Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিচারপতি নিজামের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন এটিএম ফজলে কবীর

ঢাকা: মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি নিজামুল হকের পদত্যাগের পর তার স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন ট্রাইব্যুল-২ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর। যিনি এর আগে একই ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

অন্যদিকে ট্রাইব্যনাল-২ এর চেয়ারম্যান হিসেবে ওই ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতি ওবায়দুল হাসান নিয়োগ দেয়া হচ্ছে বলে আইন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। অর্থাৎ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান এটিএম ফজলে কবীরের সঙ্গে সদস্য বিচারপতি হিসেবে থাকবেন বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি আনোয়ারুল হক।

ট্রাইব্যুনাল-২ এ চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের সঙ্গে সদস্য বিচারপতি কাকে করা হচ্ছে-এ নিয়ে কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। তবে সম্ভনার দিকে দিয়ে হাই কোর্টের বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম এবং অন্যজন বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া। এক্ষেত্রে জেলা জজ মোস্তাক খন্দকারের নামও শোনা যাচ্ছে।

এদিকে আইন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম মঙ্গলবারই দুই ট্রাইব্যুনাল পুনর্গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম পদত্যাগের পর তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, ‘‘অবশ্যই বুধবারই ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ এর নতুন চেয়ারম্যানরা নিয়োগ পাবেন।’’

বিচারপতি নিজামুল হক নাসিমের পদত্যাগে যুদ্ধাপরাধের বিচার ব্যবস্থায় কোনো ধরনের প্রভাব পড়বে না বলেও জানান আইন প্রতিমন্ত্রী।

সূত্র জানায়, বিচার প্রক্রিয়াতে কোনো ধরনের ব্যাঘাত না ঘটাতেই দ্রুততার সঙ্গে দুটি ট্রাইব্যুনালই পুনর্গঠন করা হবে।

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ গঠিত হয় ২০১০ সালের ২৫ মার্চ। বিচারপতি নিজামুল হক নাসিমের নেতৃত্বে অপর দু’জন সদস্য ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ জহির আহমেদ ও সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর। এ বছরের ২৮ আগস্ট জহির আহমেদ পদত্যাগ করলে তার স্থলে নিয়োগ পান বিচারপতি আনোয়ার-উল হক।

এ বছরের ২২ মার্চ এটিএম ফজলে কবীরকে চেয়ারম্যান করে গঠিত হয় দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল। এ কারণে প্রথম ট্রাইব্যুনালে আনা হয় বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেনকে।

ট্রাইব্যুনালের পুনর্গঠন বিষয়ে বুধবার আইনমন্ত্রণালয়ে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

বিচারাধীন বিষয় নিয়ে স্কাইপে কথা বলায় গত কয়েকদিন ধরে বিচারপতি নিজামুল হকের পদত্যাগ দাবি করে আসছিলেন বিএনপি ও জামায়াতের আইনজীবীরা। অবশেষে মঙ্গলবার বিকেলে তিনি ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেন।

এর আগে গত ২৮ আগস্ট ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক একেএম জহির আহমদ পদত্যাগ করেন। তিনি তার শারীরিক অসুস্থতার কথা উল্লেখ করে আইন মন্ত্রণালয়ে তার পদত্যাগপত্র জমা দেন।
২০১০ সালের ২৫ মার্চ যুদ্ধাপরাধ বিচারে গঠিত তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে নিয়োগ পান অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ জহির আহমদ। এ সময় ট্রাইব্যুনালের অন্য সদস্য ছিলেন এটিএম ফজলে কবীর।

২০১০ সালের ২৫শে মার্চ আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইবুনাল) আইন ১৯৭৩-এর ৬ ধারার বলে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়েছিল। সেই ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান ছিলেন বিচারপতি মো. নিজামুল হক এবং অন্য দুজন বিচারক ছিলেন বিচারপতি এ টি এম ফজলে কবীর এবং অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ এ কে এম জহির আহমেদ। পরবর্তী সময়ে ২০১২ সালের ২২ মার্চ ট্রাইব্যুনাল-২ গঠিত হওয়ার পর এটিএম ফজলে কবীর প্রথম ট্রাইব্যুনাল থেকে সরে গিয়ে দ্বিতীয়টির চেয়ারম্যানের পদ গ্রহণ করেন।

বিচার প্রক্রিয়া আরো গতিশীল করতে তিন সদস্যবিশিষ্ট নতুন আরেকটি ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয় ২০১২ সালের ২২ মার্চ। এই্ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান হয়েছিলেন প্রথম ট্রাইব্যুনালের সদস্য বিচারপতি এ টি এম ফজলে কবীর। অন্য দু’জন সদস্য ছিলেন হাই কোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও প্রথম ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার শাহিনুর ইসলাম।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট