Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘সাগরের সম্পদ যুগান্তকারী ভূমিকা রাখবে’

 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সমুদ্র ও এর সম্পদের অপার সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা সম্ভব। বঙ্গোপসাগের সম্পদ আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নে যুগান্তকারী ভূমিকা রাখতে পারে।

সোমবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জাতিসংঘ সমুদ্র আইন কনভেনশন স্বাক্ষরের উন্মুক্তকরণের ৩০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যে দেশ সমুদ্রকে যতো বেশি ব্যবহার করতে পেরেছে, সে দেশ অর্থনীতিকে ততো বেশি এগিয়ে নিতে পেরেছে। সমুদ্রসীমা নির্ধারণের ফলে আমরা আমাদের গভীর সমুদ্রের ব্লকগুলোতে অবাধে খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান করতে পারব।

এছাড়া আমাদের সমুদ্র সৈকতে প্রাপ্ত বিভিন্ন মূল্যবান খনিজসম্পদ আহরণের সুযোগ রয়েছে। অন্যান্য রাষ্ট্র বঙ্গোপসাগরের তলদেশ থেকে ইতোমধ্যে খনিজ সম্পদ উত্তোলন শুরু করেছে।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রে নৌ বাণিজ্যের গুরুত্বের কথাও অনুষ্ঠানে তুলে ধরেন শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের সীমানা সুনির্দিষ্ট হওয়ায় সমুদ্রপথে আন্তর্জাতিক যোগাযোগ ও ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রে দেশি-বিদেশি জাহাজের নিরাপদ চলাচলের সুযোগ বাড়ল।

সমুদ্র উপকূলবর্তী এবং উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে বাংলাদেশের জন্য জাতিসংঘ সমুদ্র আইন কনভেনশন বিশেষ গুরুত্বের কথাও অনুষ্ঠানে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের দীর্ঘকাল ধরে অনিষ্পন্ন সমুদ্রসীমা নির্ধারণে এর ভূমিকা ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

জাতিসংঘ সমুদ্র আইন কনভেনশনকে বাংলাদেশের সম্ভাব্য উন্নয়নের জন্য ‘একটি গুরুত্বপূর্ণ চালিকাশক্তি’ হিসাবে উল্লে করেন প্রধানমন্ত্রী। মতভেদ ভুলে সাধারণ মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করার আহবান জানান তিনি।

সমুদ্র আইন কনভেনশন স্বাক্ষরের জন্য উন্মুক্তকরণের ৩০ বছর পূর্তিতে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের একটি ভিডিও বার্তাও অনুষ্ঠানে প্রচার করা হয়।

সমুদ্র আইন কনভেনশন ও বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের দাবির ওপরে তথ্যচিত্র উপস্থাপন করেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব খুরশীদ আলম।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মুসতাফা কামাল।

অন্যদের মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রী দীপু মনি, পেট্রোবাংলার চেয়াম্যান মো. হোসেন মনসুর, ল’ কমিশনের চেয়ারম্যান শাহ আলম এবং বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি নিল ওয়াকার অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট