Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

যুদ্ধাপরাধ মামলায় বিচারকের ওপর সরকারের চাপ

ঢাকা: ঢাকার মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইবুনালের চেয়ারম্যানের কথোপকথন নিয়ে তোলপাড় চলছে এখন বাংলাদেশের অনলাইন গণমাধ্যমগুলোতে৷ ঢাকার একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সেই কথোপকথনে ট্রাইবুনালের ওপর সরকারের চাপের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে গেছে৷

ঢাকার দৈনিক আমার দেশ পত্রিকায় প্রকাশিত বিচারপতি নিজামুল হক নাসিমের স্কাইপ কথোপকথনে দেখা গেছে চলতি ডিসেম্বর মাসেই যুদ্ধাপরাধ বিচারের অন্তত একটি মামলার রায় দেয়ার জন্য তাকে চাপ দেয়া হচ্ছে৷ এতে তিনি বলেন, ‘‘গভর্নমেন্ট গেছে পাগল হইয়া, তারা একটা রায় চায়৷”

আন্তর্জাতিক আইনজীবী ড. আহমদ জিয়াউদ্দিনের সঙ্গে কথোপকথনে যুদ্ধাপরাধ মামলার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তার মতামত জানতে চান বিচারপতি নাসিম৷

উল্লেখ্য, এই বিচারক সম্প্রতি দি ইকোনমিস্ট পত্রিকার বিরুদ্ধেও রুল জারি করেছেন৷ সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদনটি লিখেছেন অলিউল্লাহ নোমান, যিনি উচ্চ আদালত নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করার দায়ে একবার জেলও খেটেছেন৷ তাঁকে জিজ্ঞেস করেছিলাম তার এই প্রকাশিত প্রতিবেদনের উদ্দেশ্য কী? জবাবে নোমান বলেন, ‘‘আমাদের আসল উদ্দেশ্য হলো বিচার বিভাগের স্বচ্ছতাটা মানুষের সামনে তুলে ধরা৷ বিচার বিভাগের কাজ হচ্ছে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা, স্বচ্ছতার সঙ্গে বিচার করা৷ তবে আমাদের কাছে যখন এই তথ্যগুলো এলো তাতে মনে হলো যে এখানে ন্যায় বিচার হচ্ছে না৷ তাই আমরা এটি জনগণের আদালতেই তুলে ধরলাম৷”

বিচারক নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশের দায়ে যে জেল জরিমানা আসতে পারে সেই বিষয়ে পুরোপুরি অবহিত রয়েছেন অলিউল্লাহ নোমান৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার সম্পাদকের সঙ্গে আমি এই বিষয়ে কথা বলেছি৷ তিনি জানতে চেয়েছিলেন যে, এর পরিণতি কী হতে পারে৷ আমি তাকে বলেছি যে, একটি আইন আছে যদি কেউ ট্রাইবুনালের কাজে বাধা প্রদান করে তাহলে তার শাস্তি হতে পারে৷ এখন তারা যদি মনে করে এই প্রতিবেদন তাদের কাজে বাধা তাহলে তারা আমাকে এক বছরের শাস্তি দিতে পারে৷ তবে আমাদের দৃষ্টিতে এই প্রতিবেদন তাদের কাজে কোনো বাধা নয়৷”

অলিউল্লাহ নোমান ২০১১ সালে প্রণীত জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ আইন এর বরাত দিয়ে বলেন, ‘‘এতে বলা হয়েছে যদি জনস্বার্থ থাকে তাহলে তাকে আইন সুরক্ষা দেবে৷ তো আমার মনে হলো যে এটা জনস্বার্থের ব্যাপার৷ কারণ কোন মানুষ যখন বিচারকের চেয়ারে বসেন তখন সেখানে জনস্বার্থ জড়িত থাকে৷”

বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের একজন বিচারপতি৷ উচ্চ আদালতের রীতি অনুযায়ী মামলার বিষয় নিয়ে কারো সঙ্গে কথা বলা অনুচিত বলে জানান সাংবাদিক নোমান৷ এমনকি দি ইকনোমিস্টের মামলাতেও বিচারপতি নাসিম বলেছেন যে, বিচারকরা মামলার বিষয় নিয়ে স্ত্রীদের সঙ্গে কথা বলেন না৷

তবে বিচারকের কথোপকথনে আড়ি পাতার বিষয়টি কতটুকু বিধিসম্মত, সেটি নিয়ে ইতিমধ্যে ব্যাপক আলোচনা চলছে নানা মহলে৷ সূত্র: ডিডব্লিউ

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট