Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

গার্মেন্ট কারখানা নিরাপত্তায় অর্থ দেয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল ওয়াল-মার্ট : ব্লুমবার্গ

৬ ডিসেম্বর : বাংলাদেশের তৈরী পোশাক প্রস্তুতকারকদের অগ্নিকাণ্ড থেকে রক্ষার জন্য অর্থ দেয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল ওয়াল-মার্ট। এ জন্য ২০১১ সালের এপ্রিলে রাজধানী ঢাকায় তৈরী পোশাকের ক্রেতাদের একটি বৈঠক বসে। সেখানে বাংলাদেশের গার্মেন্ট কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার বিষয়টি জোর দেয়া হয়। কিন্তু ওয়াল-মার্ট এ জন্য বাড়তি অর্থ দেয়ার দাবি প্রত্যাখ্যান করে। আশুলিয়ায় তাজরিন ফ্যাশনে ভয়াবহ আগুনে শতাধিক শ্রমিকের মৃত্যুর পর এ তথ্য সবেমাত্র বেরিয়ে আসছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন ব্লুমবার্গ। এতে বলা হয়, ঢাকার ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন ওয়াল-মার্ট, গ্যাপ করপোরেশন, জেসি পেনি কো. সহ এক ডজনেরও বেশি ক্রেতা সংস্থার প্রতিনিধি। ওই সভায় শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশের কারখানাগুলোতে মজুরি বেশি দেয়ার দাবি করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন ওয়াল-মার্টের পরিচালক শ্রীদেবী কালাভাকোলানু। তিনি ওই সভায় উপস্থিতদের জানিয়ে দেন, তার প্রতিষ্ঠান বাড়তি অর্থ শেয়ার করবে না। তিনি বলে দেন, আর্থিক উপযোগিতা নেই এমন বিনিয়োগে তার কোম্পানি এগিয়ে আসবে না। ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন ক্লিন ক্লথস ক্যাম্পেইনের আন্তর্জাতিক সমন্বয়ক ইনেকে জেলডেনরাস্ট। তিনিই দিয়েছেন এসব তথ্য। এ বিষয়ে ওয়াল-মার্টের মুখপাত্র কেভিন গার্ডনার কোন মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি মনে করি গার্মেন্টে অগ্নিকাণ্ড কমিয়ে আনার জন্য বিশ্বাসযোগ্য ও উপযোগী পদক্ষেপ নেয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ওদিকে ওয়াল-মার্টের এই অবস্থানকে ‘শকিং’ বলে অভিহিত করেছেন জেলডেনরাস্ট। এদিকে বাংলাদেশ সেন্টার ফর ওয়ার্কার সলিডারিটির নির্বাহী পরিচালক কল্পনা আখতার বলেছেন, বাংলাদেশের শতকরা ৫০ ভাগ গার্মেন্টে কর্মক্ষেত্রে যে নিরাপত্তা প্রয়োজন তা নেই। যেগুলোতে এ অবস্থার উন্নতি ঘটানো হয়েছে তা হয়েছে পশ্চিমা তৈরী পোশাকের ক্রেতাদের চাপে। বাংলাদেশের শ্রম আইনে কর্মক্ষেত্রে শ্রমিককে ফায়ার এক্সটিংগুইসার দেয়ার নিয়ম আছে এবং তারা যাতে সহজে কারখানা থেকে বেরিয়ে যেতে পারে তার ব্যবস্থা থাকতে হবে। এক্ষেত্রে কারখানাগুলোতে অডিট প্রসঙ্গে এডিডাস এজি’র সাবেক নির্বাহী টিমোথি লি বলেন, যখন কন্ট্রাক্টররা কাজ তার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে অন্য কারখানায় করায় তখন অডিটের কোন মূল্য থাকে না। ওদিকে গত ২৪ নভেম্বর তাজরিন ফ্যাশনে অগ্নিকাণ্ডের পর ওয়াল-মার্ট ও সিয়ারস ঘোষণা দিয়েছে তারা সরবরাহকারীর সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। ম্যাসাচুসেটসের এমআইটি স্লোয়ান স্কুল অব ম্যানেজমেন্টের পলিটিক্যাল সায়েন্সের প্রফেসর রিচার্ড লক বলেন, এ জন্য বাংলাদেশ সরকারকে নিজের আইন কঠোরভাবে প্রয়োগ করতে হবে। এ কাজ করেছে চীন। এখন বিদেশী কোম্পানিকে আকর্ষণ করতে বাংলাদেশকেও একই কাজ করতে হবে। অন্যথায় তারা ব্যবসা হারাবে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট