Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বাংলা ভাই স্টাইলে ৫ দিনের ব্যবধানে ২ জনকে রগ কেটে নির্যাতন

রংপুর, ৫ ডিসেম্বর : গাইবান্ধার জেলার পলাশবাড়ীতে বাড়ির অঙ্গিনায় একটি আম গাছের সাথে যুবকে বেধে রেখে বেদম মারপিট করা হয়। আশাপাশের অনেক লোকজন ঘটনাটি দেখলেও যুবককে উদ্ধার করতে সাহস পায়নি কেহ। এভাবে প্রায় ২ ঘন্টা নির্যাতন করার পর সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার দুপায়ের রগ কেটে দেয়। । যুবক জ্ঞান  হারিয়ে ফেললে তাকে মৃত ভেবে একটি ভ্যান যোগে অন্যত্র ফেলে দেয়ার সময় বিষয়টি এলাকাবাসির চোখে পড়ে। এলাকাবাসী গুরুত্বও আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে পলাশবাড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারিরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে রচিম হাসপাতালে অর্ধচেতন অবস্থায় আহত  সোহরাব হোসেন তার ওপর নির্মম নির্যাতনের কথা তুলে ধরে বলেন। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আমাকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে আমার উপর নির্যাতন চালানো হয়। স্থানীয় উপজেলা জাতীয় পার্টির নেতা মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফার  ভাই মাহবুবুর রহমানের বাড়িতে নিয়ে একটি আমগাছের সাথে বেধে আমাকে মারধার করার পর পায়ের রগ কেটে দেয়া হয়। সোহরাবের স্ত্রী ইউ পি সদস্য শাবানা আক্তার দিনা জানান, বেশ কিছু দিন আগে এক র্শীষ সন্ত্রাসী পুলিশের হতে ধরা পড়ে। সন্ত্রাসীদের ধারনা এই ঘটনার পিছনে সোহরাবের হাত রয়েছে। তারেই জের ধরে দিনের বেলা মোস্তফার হুকুমে এক দল সন্ত্রাসী আমার স্বামীকে ধরে নিয়ে বাংলা ভাইয়ের মত গাছে বেধে নির্যাতন করে পায়ের রগ কেটে দিয়েছে। হাসপাতালেও এসেও শান্তি নেই। হাসপাতালও বিভিন্ন ভাবে আমাদেরকে  হুমকি দেয়া হচ্ছে। হাসপাতাল থেকে যদি রোগী সরিয়ে নেয়া না  হয় তাহলে আমাদের স্বপরিবারকে হত্যা করা হবে। তাই আমরা বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এদিকে অভিযুক্ত মোস্তফা বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন ঘটনার দিন আমি পলাশবাড়িতেই ছিলাম না। তাকে মাহাবুবের বাড়িতে নিয়ে নির্যাতন করার বিষয়টি আমি লোক জনের কাছে শুনেছি । অপরদিকে গত ২৭ নভেম্বর একই উপজেলার বরকতপুর গ্রামের মৃত আব্দুল জলিল প্রধানের পুত্র আশরাফ মাহমুদ টিটন(৩২)কে  সন্ত্রাসীরা জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে তার পায়ের রগ কেটে শরীরের বিভিন্নস্থান ক্ষত বিক্ষোভ করেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকেও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তার অবস্থাও আশংকাজনক। টিটনের স্ত্রী জানান জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে চাচা জামায়াত নেতা  আব্দুর রশিদ প্রধানগং সন্ত্রাসী কায়দায তার স্বামীকে নির্যাতন করে পায়ের রগ কেটে দেয়। আহত অবস্থায় থানায় নিয়ে যাওয়া হলেও থানা মামলা গ্রহন না করে উল্টো তার স্বামীর বিরুদ্ধে একটি মিথ্যে মামলা ঠুকে দেয়। পলাশবাড়ি থানার ওসি ফরিদুল ইসলাম দৈনিক আজকালের খবরকে বলেন দুটি ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ মামলা করেনি। মামলা করা হলে আসামীদের গ্রেফতারে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ৫ দিনের মাথায় পর পর দুটি রগ কাটার ঘটনায় জনমনে আতংক দেখা দিয়েছে। অনেকের ধারনা নাশকতামূলক কাজকে উস্কে দেয়ার জন্য পলাশবাড়ীতে এ রকম ঘটনা ঘটছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট