Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আটক মার্কিন ড্রোন স্ক্যানঈগলের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেছে ইরান

 ৪ ডিসেম্বর : পারস্য উপসাগর থেকে আটক মার্কিন ড্রোনের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেছে ইরানের রেভ্যুলুশনারি গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি। আইআরজিসি’র জনসংযোগ অধিদপ্তর এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, অত্যন্ত ছোট আকৃতির এ ড্রোনটির দৈর্ঘ্য ১,১৯ মিটার, প্রস্থ ৩.০৫ মিটার (দু’টি ডানাসহ) এবং ওজন ১৮ কিলোগ্রাম। আকাশে ওড়ার জন্য এটির কোনো রানওয়ের প্রয়োজন নেই বরং একটি বিশেষ বিমান উতক্ষেপণ যন্ত্রের সাহায্যে আকাশে ওড়ানো হয়।

১৬ হাজার ফুট উচ্চতায় ঘন্টায় ১২০ কিলোমিটার বেগে উড়তে সক্ষম ‘স্ক্যানঈগল’ শ্রেণীর এ ড্রোন। একটানা ২০ ঘন্টা আকাশে উড়তে সক্ষম এ ড্রোন ২০০৪ সালের আগস্ট মাসে ইরাক যুদ্ধে মার্কিন বাহিনীকে সহায়তা করার কাজে প্রথম ব্যবহৃত হয়।

আইআরজিসি’র বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “ইরানের পূর্ব সীমান্ত থেকে আমেরিকার আরকিউ-১৭০ মডেলের ড্রোন আটক করার এক বছরের মাথায় দক্ষিণের পানসীমার আকাশ থেকে আরেকটি মার্কিন ড্রোন আটক করা হলো। মার্কিন বাহিনী এ পর্যন্ত বহুবার গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের জন্য ইরানের সীমান্ত এলাকায় ড্রোন নিয়ে ঘোরাঘুরি করেছে এবং যতবারই এদেশের আকাশসীমায় প্রবেশের চেষ্টা করেছে ততবারই ‘শক্ত জবাব’ পেয়েছে। মার্কিন বিমান নির্মাণকারী কোম্পানি বোয়িংয়ের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ‘ইনসিটু’ স্ক্যানঈগল মডেলের এ ড্রোন তৈরি করেছে।”

আইআরজিসি’র বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, “প্রথমে ড্রোনটি মতস্য-শিকার শিল্পে ব্যবহারের জন্য তৈরি এবং মার্কিন জেলেরা মাছ ধরার সময় তাদের ওপর নজরদারির কাজে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু পরবর্তীতে এর নজরদারি ও গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহের ক্ষমতা বহুগুণে বাড়ানো হয়। এ পর্যন্ত মার্কিন মেরিন সেনারা ইরাকসহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে সামরিক উদ্দেশ্যে হাজার হাজার ঘন্টা ধরে এ ধরনের ড্রোন ব্যবহার করেছে।”

ইরানের হাতে আটক মার্কিন ড্রোন স্ক্যানঈগলে একটি ইলেকট্রো-অপটিক্যাল ক্যামেরার পাশাপাশি একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন নাইটভিশন ক্যামেরা রয়েছে। আকাশে উড্ডয়নরত অবস্থায় এটি ১০০ কিলোমিটার দূরত্ব পর্যন্ত তথ্য পাঠাতে পারে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট