Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আবুল হোসেনকে বাদ দিয়ে মামলার প্রস্তুতি একমত নন বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দল

অনুসন্ধান প্রতিবেদনে মামলা করার সুপারিশ থাকলেও সাবেক দুই মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও আবুল হাসান চৌধুরীকে বাদ দিয়ে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে দুদক। দুর্নীতি দমন কমিশনের সঙ্গে গতকালের বৈঠকে কোন সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দল। দুদকের সঙ্গে পৌনে দুই ঘণ্টা বৈঠক শেষে বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি এ্যালেন গোল্ডস্টেইন জানিয়েছেন, আমরা এখনও আলোচনার মধ্যে আছি, কিছুটা অগ্রগতি হলেও কোন সিদ্ধান্তে আসতে পারিনি। আজ বৈঠক শেষে বিস্তারিত জানা যাবে। দুদক সূত্রে জানা গেছে, দুপুর সাড়ে ১২টায় পদ্মা সেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির অনুসন্ধানে গঠিত তদন্ত দল তাদের প্রতিবেদন কমিশনে জমা দেয়। প্রতিবেদন জমা দেয়ার পর কমিশন তা নিয়ে আলোচনায় বসে। অনুসন্ধানী টিম তাদের দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতি মন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীসহ মোট ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার সুপারিশসহ প্রতিবেদন জমা দিলেও শেষ পর্যন্ত আবুল হোসেন ও আবুল হাসান চৌধুরীকে বাদ দিয়ে মামলার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। আজ রাজধানীর যে কোন থানায় দায়ের হচ্ছে মামলা। মামলায় অভিযুক্ত হিসেবে অন্য যারা থাকছেন তাদের মধ্যে আছেন সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া, সেতু বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কাজী ফেরদৌস, এসএনসি লাভালীনের স্থানীয় প্রতিনিধি গোলাম মোস্তফা, সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রিয়াজ আহমেদ জাবের, এসএনসি লাভালীনের কানাডা অফিসের কর্মকর্তা কানাডিয়ান নাগরিক রমেশ সাহা, এসএনসি লাভালীনের কানাডা অফিসের আরেক কর্মকর্তা বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত সে দেশের নাগরিক ইসমাইল হোসেন ও কানাডিয়ান নাগরিক এসএনসি লাভালীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট কেভিন ওয়ালিস।
অনুসন্ধান টিমের প্রতিবেদন পেশ করার পর কমিশনের আলোচনা চলছে। কমিশন আলোচনা শেষে মামলার অনুমোদন দিলেই মামলা করা হবে। সূত্র মতে মামলা নিয়ে দ্বিমত দেখা দিয়েছে দুদকে। দুদকের একটি অংশ চাইছে সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীকে অভিযুক্তের তালিকায় রেখে মামলা করতে। অপর একটি অংশ চাইছে তাদের বাদ দিয়ে অন্য অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা করতে। আবুল হোসেনকে মামলার অভিযুক্ত হিসেবে রাখার পক্ষে যুক্তি দেখানো হয়েছে তিনি এসএনসি লাভালীনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করেছেন। সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী এসএনসি লাভালীনের স্থানীয় প্রতিনিধিকে নিয়ে তার দপ্তরে গিয়েছিলেন বলে আবুল হোসেন নিজে স্বীকার করেছেন। এসএনসি লাভালীনের কানাডা অফিসের কর্মকর্তা রমেশ সাহার ডায়েরিতে সৈয়দ আবুল হোসেনের নাম (মিন) সাংকেতিক ভাষায় লেখা ছিল। ওই ডায়েরিতে ইংরেজি ক্লেম শব্দটি লেখা আছে দুদক ও বিশ্বব্যাংকের ভাষায় যার অর্থ দাঁড়ায় ডায়েরিতে উল্লিখিত নামের ব্যক্তিরা এসএনসি লাভালীনের কাছে কিছু দাবি করেছিল। এছাড়াও দুদক কর্মকর্তারা বলেছেন, জিজ্ঞাসাবাদে সৈয়দ আবুল হোসেনের বক্তব্যে বেশ কিছু গরমিল পাওয়া গেছে। তাদের বক্তব্য, সৈয়দ আবুল হোসেন ছিলেন যোগাযোগ মন্ত্রী, তিনি ওই মন্ত্রণালয়ের প্রধান। এখানে দুর্নীতির ষড়যন্ত্র হলে তিনি দায় এড়াতে পারেন না। সে কারণে কর্তব্য অবহেলার দায়ে হলেও তার বিরুদ্ধে মামলা হতে হবে। এছাড়া বিশ্বব্যাংকে দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপনের পরই তিনি পদত্যাগ করেছেন। তাহলে তার পদত্যাগের কারণ কি? কেন এই পদত্যাগ? সূত্রমতে গতকাল সন্ধ্যায় কমিশনে মামলার বিষয়ে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার কথা থাকলেও মতভেদের কারণে সেটা হতে পারেনি। দুদকে বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি এ্যালেন গোন্ডস্টেইনের কাছে জানতে চাওয়া হয়, কারা মামলার আসামি হচ্ছেন? প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে তিনি বলেন, আমরা সিদ্ধান্তে আসতে পারিনি। একই ধরনের জবাব দেন দুদকের আইন উপদেষ্টা এডভোকেট আনিসুল হক। তিনি বলেন, বৈঠকে আমরা একমত হতে পারিনি, কারা আসামি হচ্ছে আজ জানতে পারবেন, অপেক্ষা করুন। দুদক চেয়ারম্যান গোলাম রহমান বলেছেন- মামলা প্রায় প্রস্তুত, আসামি দশের নিচে, সব দেখতে পাবেন অপেক্ষা করুন।
দুদকের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, অনুসন্ধান প্রতিবেদনে সৈয়দ আবুল হোসেন ও আবুল হাসান চৌধুরীর নামে মামলা করার সুপারিশ করেছে তবে আজ মামলা দায়েরের সময় দু’-একটি নাম এদিক সেদিক হতে পারে। এখন পর্যন্ত ৯ জনের নামই সুপারিশে আছে। আজ বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধিদের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হবে দুদকের। আজকের বৈঠকেও বিশ্বব্যাংক প্যানেলের সদস্য আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) সাবেক প্রধান প্রসিকিউটর লুই গাব্রিয়েল ওকাম্পো ও  হংকংয়ের দুর্নীতিবিরোধী স্বাধীন কমিশনের সাবেক কমিশনার টিমোথি টং এবং যুক্তরাজ্যের দুর্নীতি দমন কার্যালয়ের সাবেক পরিচালক রিচার্ড অল্ডারম্যান বৈঠকে বসবেন দুদক কর্মকর্তাদের সঙ্গে। ওই তিন জনের সঙ্গে থাকবেন বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি এ্যালেন গোল্ডস্টেইন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট