Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

মালয়েশিয়া যেতে ৩০ হাজার কৃষি শ্রমিকের নিবন্ধন এ মাসেই, পাঠানো শুরু ফেব্রুয়ারিতে

স্টাফ বিপোর্টার,  ২ ডিসেম্বর :
চলতি ডিসেম্বর মাসেই মালয়েশিয়া প্লান্টেশনের খাতের জন্য ৩০ হাজার কর্মীর চাহিদাপত্র পাওয়া যাবে। এরপর ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে এই ৩০ হাজারের নাম নিবন্ধন শুরু হবে। ফেব্রুয়ারি থেকেই কর্মী যাওয়া শুরু হবে । প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য সব ধরনের দালাল ও মধ্যস্বত্বভোগীদের থেকে সাবধান হওয়ার পরামর্শ দিয়ে মন্ত্রী আরও জানান, দেশের সব উপজেলার কর্মীরা সুষমভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার সুযোগ পাবেন। এ জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কোটা অনুসরণ করা হবে। প্লান্টেশন খাতের কর্মীদের মালয়েশিয়া যেতে হলে কৃষিকাজে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তাঁদের বয়সসীমা ন্যূনতম ১৮ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে হতে হবে। গ্রাম এলাকার বাসিন্দা হতে হবে। শরীরের উচ্চতা কমপক্ষে পাঁচ ফুট এবং ওজন কমপক্ষে ৫০ কেজি হতে হবে বলে জানান মন্ত্রী।
নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, নিবন্ধনের সময়সূচি ও করণীয় সম্পর্কে ব্যাপকভাবে প্রচার করা হবে। জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) ওয়েবসাইটে গিয়ে নাম নিবন্ধন করতে হবে। যেকোনো স্থান থেকে কিংবা ইউনিয়ন তথ্যকেন্দ্র থেকে ইন্টারনেটে নাম নিবন্ধন করা যাবে। কোনো উপজেলার নিবন্ধনের কোটা পূরণ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই সেটি বন্ধ হয়ে যাবে। নিবন্ধনের পর মুঠোফোনে একটি বার্তা পাঠানো হবে। সেখানে কবে কোথায় সাক্ষাত্কার করতে হবে তার বিস্তারিত দেওয়া থাকবে।
মালয়েশিয়া যেতে একজন কর্মীর সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকা খরচ হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, কারও যদি এই টাকা জোগাড়ের সামর্থ্য না থাকে, তাহলে তিনি প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে পারবেন। মালয়েশিয়া যাওয়া এই কর্মীরা বেতন কত পাবেন জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ন্যূনতম বেতন হবে ৯০০ রিঙ্গিত বা ২৫ হাজার টাকা। সপ্তাহে ছয় দিন আট ঘণ্টা করে কাজ করতে হবে।
মন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়া প্রথমে প্লান্টেশন (বৃক্ষায়ন) খাতে ৩০ হাজার কর্মী নেবে। এরপর তারা কৃষি (এগ্রিকালচার), উত্পাদন (ম্যানুফ্যাকচারিং), নির্মাণ এবং সেবা (সার্ভিস) খাতে কর্মী নেবে’।

প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী  বলেন, সরকারিভাবে এবার লোক পাঠানো হবে। কাজেই মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুকদের কাছে আমার আকুল আবেদন কোনো দালাল, মধ্যস্বত্বভোগী কিংবা অসাধু কোনো জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানকে টাকা দেবেন না।
দীর্ঘ চার বছর পর বাংলাদেশ থেকে ফের কর্মী নিচ্ছে মালয়েশিয়া। গত ২৬ নভেম্বর এ ব্যাপারে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করেছেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী সুব্রানিয়াম এবং প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এরপর তিনি অস্ট্রেলিয়া যান। সেখান থেকে দেশে ফিরে রোববার এই সংবাদ সম্মেলন করেন মন্ত্রী।
সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব জাফর আহমেদ খান বলেন, ‘দীর্ঘ চার বছর পর মালয়েশিয়া বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিচ্ছে। এটি বাংলাদেশের জন্য একটি সুখবর। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এবং বর্তমান সরকারের দীর্ঘ কূটনৈতিক প্রচেষ্টার মাধ্যমেই এই বাজার চালু হলো। সচিব জানান, জনশক্তি রপ্তানি ছাড়াও দুই দেশের মধ্যে মানবপাচার প্রতিরোধ ও আন্তঃরাষ্ট্রীয় অপরাধ দমনসংক্রান্ত আরেকটি এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়েছে।
এই ঘটনাকে একটি মাইলফলক উল্লেখ করে প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘অসাধু কিছু ব্যবসায়ীর নেতিবাচক কর্মকাণ্ডের কারণে এই বাজার বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। আমরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে সেই বাজার চালু করলাম।’
মালয়েশিয়া সরকারের সঙ্গে এমওইউ স্বাক্ষর ছাড়াও মন্ত্রী এই সফরে অস্ট্রেলিয়া গিয়েছিলেন। সে প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যসহ প্রচলিত শ্রমবাজার সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। এখন ইউরোপের বাজার ধরতে হবে। আর সে কারণেই বাংলাদেশি শ্রমিকদের আধুনিক মানের প্রশিক্ষণ দেবে অস্ট্রেলিয়া। এ ব্যাপারে দেশটির সঙ্গে একটি এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়েছে।’
সংবাদ সম্মেলনে বিএমইটির মহাপরিচালক শামসুন্নাহারসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট