Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

ব্যাংকের নতুন শাখা-বুথ ও সেবা কেন্দ্র স্থাপনের নীতিমালা জারি

০১ ডিসেম্বর : ব্যাংকের ব্যবসার প্রসার, জনগণের কাছে ব্যাংকিং সুবিধা পৌঁছানো এবং অধিকতর আর্থিক সেবাভুক্তির লক্ষ্যে তফসিলি ব্যাংকের শাখা বা এটিএম বুথ স্থাপন-স্থানান্তর ও সান্ধ্যকালীন ব্যাংকিংয়ে নীতিমালা প্রণয়ন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বৃহস্পতিবার ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠিয়েছে। সার্কুলারে নীতিমালার আলোকে ছয়টি নমুনা ছকের কপি পাঠানো হয়েছে।
নীতিমালায় ব্যাংকের শাখা-বুথ বা ব্যবসায় উন্নয়ন কেন্দ্র স্থাপনের সাজসজ্জায় আড়ম্বরপূর্ণ সরঞ্জাম ও আসবাবপত্র ক্রয়ে উচ্চব্যয় পরিহার করতে বলা হয়েছে। আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির সরঞ্জাম ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেত্রে বিলাসবহুল-চাকচিক্যের পরিবর্তে গুণগতমানকে প্রধান্য এবং স্থাপনার ব্যয় প্রস্তাবিত লোকবল ও শাখার আয়তন অনুসারে যৌক্তিকভাবে নির্ধারণ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। নীতিমালায় বলা হয়েছে, পরবর্তী বছরের জন্য ব্যাংকের নতুন শাখা খোলার জন্য বার্ষিক পরিকল্পনা পর্ষদের সিদ্ধান্তের কপিসহ নভেম্বর মাসে জমা দিতে হবে এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক সার্বিক বিষয়াদি পর্যালোচনা করে নির্ধারিত সংখ্যক শাখা খোলার অনুমতি প্রদান করবে। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি পাওয়া শাখা ওই বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে খুলতে ব্যর্থ হলে ওই অনুমতি বাতিল হয়ে যাবে। নীতিমালায় আরও বলা হয়েছে, অনুমোদন পাওয়া মোট শাখার ন্যূনতম ৫০ শতাংশ পল্লী এলাকায় হবে, আর এক বছরে প্রতিটি শহরে একটির বেশি শাখা স্থাপন করা যাবে না। শহর শাখা হিসেবে মেট্রোপলিটন এলাকা বা সিটি করপোরেশন বা পৌরসভায় স্থাপিত শাখাকে বোঝাবে এবং এর বাইরে স্থাপিত শাখাকে পল্লী শাখা হিসেবে গণ্য করা হবে। তবে পল্লী শাখাগুলোর সর্বোচ্চ এক-চতুর্থাংশ শাখা (গ শ্রেণীভুক্ত) পৌরসভা এলাকায় এবং ‘এ’ শাখাগুলো পল্লী শাখা হিসেবে বিবেচিত হবে। এসএমই বা কৃষি শাখা বিভাগীয় শহরের বাইরে স্থাপিত হবে এবং ব্যাংকিং সুবিধাবঞ্চিত এলাকাকে প্রধান্য দেয়া হবে। তবে তা শহর এলাকায় হলে শহর শাখা এবং পল্লী এলাকায় হলে পল্লী শাখা হতে সমন্বয় করতে হবে। এসব শাখায় বৈদেশিক মুদ্রায় লেনদেন ব্যতীত অন্য ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে। আর ওই শাখার মাধ্যমে আহরিত তহবিলের ৫০ শতাংশ একই শাখার এসএমই ও কৃষি খাতে বিনিয়োগ করতে হবে। আর এ শাখা স্থাপনে সৌর বিদ্যুত ব্যবস্থা নিশ্চিত করার শর্ত দেয়া হয়েছে। শাখা স্থানান্তরের ক্ষেত্রে পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তের কপিসহ আবেদন করতে হবে। আর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনের ছয় মাসের মধ্যে শাখা স্থানান্তর সম্পন্ন করতে হবে। অন্যথায় অনুমোদন বাতিল হয়ে যাবে। শাখা স্থানান্তরের ৭ দিনের মধ্যে অনুমতিপত্র সংশোধন করতে হবে। তবে কোন শাখা ক্রমাগত লোকসানে থাকলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন সাপেক্ষে নিকটবর্তী শাখায় একীভূত বা বন্ধ করে দেয়ার সুযোগ রয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে কালেকশন বুথ ও ইলেক্ট্রনিক বুথ স্থাপন করা যাবে। ইউটিলিটি বিল সংগ্রহ, সরকারি রাজস্ব্ব আদায় ও শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি জমায় কালেকশন বুথ ব্যবহূত হবে। প্রতিটি কালেকশন বুথ একটি পূর্ণাঙ্গ শাখার নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হবে এবং ইলেক্ট্রনিক লেনদেন ব্যতীত এটিএম বুথে অন্য কোন প্রকার ব্যাংকিং লেনদেন করা যাবে না। গ্রাহক সেবা, ব্যবসা উন্নয়ন, কল সেন্টার, ইউনিট অফিস, আঞ্চলিক কার্যালয় নামে ব্যবসায় উন্নয়ন কেন্দ্র স্থাপন করা যাবে। তবে এতে কোন প্রকার ব্যাংকিং লেনদেন করা যাবে না। আর সান্ধ্য ব্যাংকিংয়ের সময়সূচি অফিস সময় পরবর্তী ২ ঘণ্টা পর্যন্ত প্রযোজ্য হবে। এ সময়ে অর্থ জমা নেয়া ছাড়া অন্য কোন ব্যাংকিং করা যাবে না। ব্যাংকের প্রয়োজনে স্থাপনা ভাড়া বা ইজারা গ্রহণ ও নবায়ন করতে পর্ষদের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন নিতে হবে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট