Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে: মুশফিক

খুলনা: সকাল থেকেই নেটে চলেছে অনুশীলন পর্ব। দুপুর নাগাদ শেষ হয় বাংলাদেশ দলের অনুশীলন। তখন ক্রিকেটাররা ব্যাট-প্যাড গুছাতে ব্যস্ত। নেটের পাশে নাসির হোসেন ব্যাট-প্যাড গুছাতে থাকা মমিনুল হকের দিকে সাংবাদিক সেঁজে রেকর্ডার বাড়িয়ে দিয়ে প্রশ্ন করলেন কালকের ম্যাচ নিয়ে কিছু বলুন? আসলে নাসির হোসেন অন্য সাংবাদিকদের সঙ্গে মিলে মমিনুলের সঙ্গে মজা করছিলেন। কিন্তু মজা হলেও এটা সত্যি কালকের ম্যাচের আগে আজ খুলনার ভেন্যুতে আলোচিত তারকা হয়ে ওঠেন তরুণ ব্যাটসম্যান মমিনুল হক। কারণ তিনি যে এক দিন আগে সাকিবের বিকল্প হিসেবে দলে এসেছেন। আর আছেন আনামুল হক বিজয়। এ দুই জনকে নিয়েই এখন মিডিয়াতে বেশি আগ্রহ।

হবে বা নাই কেন? দুই জনেই যে ওডিআই অভিষেক হবার অপেক্ষায় আছেন। এক বছর আগে জিম্বাবুয়ে সফরে আর ঘরের মাঠে এশিয়া কাপে দলে ছিলেন আনামুল হক আর এবারই প্রথম দলে ডাক পেলেন মমিনুল হক। দৃষ্টিটা সে কারণেই। কিন্তু কাল খুলনার মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কি দুই জনেরই অভিষেক হবে! এই সম্ভাবনা কম। সাকিবের বিকল্প হিসেবে একজন বাড়তি ব্যাটসম্যান টিম ম্যানেজম্যান্ট নিলেও দুই জনের সুযোগ কম। কারণ দুই জনই ব্যাটসম্যান। আর দলে সাকিরেব বিকল্প হিসাবে ব্যাটসম্যান আর বোলার দুইটাই দরকার। সাকিব অলরাউন্ডার হিসেবে যে সার্ভিস দিয়েছেন তাতো দুই ব্যাটসম্যানের পক্ষে সম্ভব নয়। যতোটা জানা গেছে, কাল স্পিনার সোহাগ গাজী আর আনামুলের অভিষেক হবার সম্ভাবনা বেশি। অবশ্য এর অন্যথাও হতে পারে।

তবে সাকিবের বিকল্প যে নেই, তা এক বাক্যেই তিন নির্বাচক আর অধিনায়ক মুশফিক এমনকি প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের অধিনায়ক ড্যারেন সামিও স্বীকার করেছেন। সেটাই স্বাভাবিক। ৮ মাস আগে এশিয়া কাপে আর এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে সাকিবের পারফরমেন্সই বলে দেয় যা বলার। এশিয়া কাপে ৪ ম্যাচে ব্যাট হাতে রান সংগ্রহ করছেন ২৩৭ আর উইকেট শিকার করেছেন ৬টি। অন্যদিকে সামিদের বিপক্ষে গত বছর সিরিজে দুই ম্যাচে ৭৯ রান আর তিন ম্যাচে ৬ উইকেট শিকার করেন। প্রতি ম্যাচেই ব্যাট করা ছাড়াও বল করেছেন ১০ ওভার করে! তাই সাকিব, সাকিবই। ব্যবহার যাই হউক না কেন! সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত টানা অনুশীলন পর্বে তাই সকলেই সাকিবের অনুপস্থিতি টের পেয়েছেন। দলের সকলেই তা স্বীকারও করেছেন।

তবে এর বাইরে আইসিসির নতুন নিয়ম নিয়েও আলোচনা হয়েছে। এখন থেকে তো ওডিআই ১৫ ওভারের সার্কেলের মধ্যে ৪ জন ফিল্ডার থাকবেন। অনুশীলন শেষে দুপুরে হোটেলে ফেরার আগে খুলানা আবু নাসের স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলন কক্ষে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম সেই নতুন নিয়ম প্রসঙ্গে দিয়ে শুরু করেন। বলেন, ‘নতুন নিয়ম হওয়াতে আমাদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। এতে আমাদের ক্ষতি হবে ব্যাপারটা এমন না। তবে পাঁচজন ফিল্ডার যখন উপরে থাকবে তখন এটা কঠিন কাজ। তবে আমাদের চেষ্টা থাকবে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এর সাথে মানিয়ে নেয়া। এই নিয়মে আমরা একটা প্রস্ত্ততি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছি। তবে এটা স্পিনারদের জন্য কঠিন হবে। এটা নিয়ে আমরা কাছ করছি। এবং নতুন নিয়মের ব্যাপারে আমাদের পরিকল্পনাও আছে। আমার মনে হয় খুব একটা সমস্যা হবে না।’

সিরিজে টার্গেট কী জানতে চাইলে অধিনায়ক বলেন, ‘ওয়ানডে সিরিজে আমাদের লক্ষ্য আছে। শেষ ওয়ানডেতে আমরা খুব ভালো খেলেছিলাম। ওয়ানডে ক্রিকেটে আমরা অনেক ভালো ক্রিকেট খেলেছি। সে হিসেবে আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে। এখানেও আমরা ভালো খেলব। আমাদের অলরাউন্ডার সাকিব দলে নেই। এটা নতুনদের জন্য একটা বড় সুযোগ। তারা যদি তাদের সেরাটা খেলতে পারে এবং আমরা যারা সিনিয়র আছি, ওদের সঙ্গে কমবাইন্ড করে নিতে পারি, তাহলে আশা করা যায় ভালো একটা সিরিজ হবে।’

প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সম্পর্কে মুশফিক বলেন, ‘বর্তমানের বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী দল ওরা। গেইল, পোলার্ড স্যামুয়েলস, পাওয়েল ওরা অনেক লম্বা ইনিংস খেলতে পারে। এরা ক্যারিবীয় দলের বড় শক্তি। আমরা যদি লাইন-লেন্থ ঠিক রেখে বল করতে পারি। আর আমাদের স্পিনারা যদি উইকেটে থেকে সুবিধা পায় তাহলে ওদের কম রানে ফিরিয়ে দিতে পারবো। আমরা ভালো বোলিং করে ওদের উপর চাপ দিতে পারি তাহলে ম্যাচে লড়াই হবে। আমরা কাল সকালে উইকেট দেখে পরিকল্পনা করবো। উইকেটে হয়তো স্পিনাররা সুবিধা পাবে। আমরা উইকেটের অবস্থা দেখে একাদশ সাঁজাবো। আমরা এ বছর অনেক কম ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছি। বলতে গেলে এশিয়া কাপের পর তেমন কোনো ওয়ানডে ম্যচ খেলিনি। তবে আমাদের খেলোয়াড়রা খেলার মধ্যেই আছে। এটা একটা ভালো দিক এবং সবাই মোটামুটি রান করছে।

নতুন পাওয়ার প্লে’র পাঁচ ওভারে বোলিং করা অনেক কঠিন ব্যাপার। তারপরও আমরা চাইবো সেটাকে কনটেইন করার জন্য। এখানকার উইকেট অনেক স্লো। আশা করছি স্পিনারদের জন্য সহায়ক হবে। আমরা স্পিনারদের ধারাবাহিকভাবে বল করাতে চেষ্টা করবো। আমাদের দলে অভিজ্ঞ বোলার মাশরাফি ভাই, রাজু, শফিউল আছে। আমরা যদি ভালো বোলিং করতে পারি এবং ব্যাটসম্যনরা যদি নিজেদেরকে মেলে ধরতে পারে তাহলে লড়াই হবে। ওয়ানডেতে বোলাররা ভালো বোলিং করলে আর ব্যাটসম্যানরা বড় রান করতে পারলে জেতার একটা সুযোগ থাকে। তবে আমাদের ওদের মতো সেরা পারফরমার নেই। দলে নতুন নতুন অনেক খেলোয়াড় আছে। আমরা যাতে সবাই এক সঙ্গে অংশ নিতে পারি সেটা নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা আছে।’

নতুন নিয়ম কতটা সমস্যা হবে বলে মনে করেন? মুশফিক বলেন, ‘নতুন নিয়ম হলে ওদের সমস্যা হলে আমাদেরও হবে। তবে যারা এটাকে মানিয়ে নিতে পারবে তাদের জন্য ভালো হবে।’

কাল কাদের অভিষেক হচ্ছে? নামগুলো বলা যায়? অধিনায়ক জবাবে বলেন, ‘কালকে যাদের অভিষেক হবে, আশা করবো তারাও দলের হয়ে পারফর্ম করবে। আমরা সবাই মিলে যাতে ভালো করতে পারি। আমাদের যারা ব্যাটসম্যান আছে তাদের দায়িত্ব নিতে হবে। আর বোলারদেরও দায়িত্ব কাধে নিয়ে খেলতে হবে। আমরা যারা আছি সবাই দলের জন্য পারফর্ম করার জন্য সক্ষম। তবে নতুনদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ।

আমরা ওদেরকে বোলিংয়ে চাপ দিতে পারলে ওরা মিসটেক করতে বাধ্য। আমাদেরও ওরকম পরিকল্পনা আছে। আমরা যদি ওদের তাড়াতাড়ি দুই-তিনটা উইকেট নিতে পারি। ওদের যেখানে দুর্বলতা আছে সেগুলো নিয়ে আমরা আলোচনা করছি। আমাদের অনেক ক্রিকেটার আছে অনেক বড় ইনিংস খেলতে পারে। আমরা আমাদের মতো খেলতে পারলেই হয়। পাঁচ ম্যাচ সিরিজ হওয়াতে অনেক সুবিধা আছে। এতে ইনডিভিজুয়াল পারফরমেন্স করার সুবিধা থাকে। যেহেতু আমরা এরকম একটা সুযোগ পেয়েছি চেষ্টা করবো তা কাজে লাগাতে। আমাদের ওপেনিংয়ে যারাই খেলবে আশা থাকবে তারা ভালো একটা শুরু এনে দিবে। শুধু গেইলই নয় ওদের যেসব হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান আছে তাদের সবাইকে কম রানে ফিরাতে আমাদের পরিকল্পনা আছে। টেস্টেও গেইলকে আমরা রান করতে দেইনি। ওয়ানডেতেও চাইবো ওকে কম রানে আটকাতে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট