Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

এফবিসিসিআই নির্বাচন বোর্ডের সচিব ‘উধাও’ নাটক

এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি ও দুজন সহসভাপতি নির্বাচনে বিকেল ৩টা পর্যন্ত মনোনয়ন জমা নেয়ার কথা থাকলেও নির্বাচন বোর্ডের সচিব দীর্ঘ সময় ‘নিখোঁজ’ থাকায় শেষ মুহূর্তে চলছে নাটকীয়তা।

 

অভিযোগ ওঠেছে, এক পক্ষের প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র কিনে নিয়ে যাওয়ার পরেই বোর্ড সচিবকে ‘সরিয়ে নিয়ে’ যাওয়া হয়। ফলে অন্য পক্ষের প্রার্থীরা ফরম কিনতে এসে খালি হাতে ফেরেন।

 

অবশ্য পরে তাদের আবেদনে সময় বাড়ানো হলে ফরম কেনেন অন্য পক্ষের দুই প্রার্থী। আর এর পরপরই কার্যালয়ে ফিরে এলেও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি নির্বাচন বোর্ডের সচিব আশরাফুল আরেফিন।

 

নির্বাচন বোর্ডের সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক বলছেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফরম বিক্রি ও জমা শেষ করতে না পারলেও তারা নির্বাচন করতে চান।

 

আগের ঘোষণা অনুযায়ী সোমবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত এফবিসিসিআইয়ের শীর্ষ তিন পদের মনোনয়ন বিক্রি হবার কথা ছিল। আর এই প্রার্থীদের মধ্য থেকেই বিকাল ৪টায় সংগঠনের শীর্ষ নেতৃত্ব বেছে নেয়ার কথা ছিল নবনির্বাচিত পরিচালকদের।

 

সে অনুযায়ী সকালে সভাপতি পদের জন্য মনোনয়নপত্র কেনেন স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ। তার প্যানেল থেকে নির্বাচিত পরিচালক মনোয়ারা হাকিম আলী ও মো. হেলাল উদ্দিন কেনেন সহ সভাপতি পদের ফরম।

 

কিন্তু এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আনিসুল হক নেতৃত্বাধীন প্যানেল থেকে পরিচালক নির্বাচিত আব্দুল হক দুপুরে অভিযোগ করেন, তিনি সহ সভাপতি পদের জন্য মনোনয়ন পত্র কিনতে গিয়ে সচিবকে খুঁজে পাননি।

 

আবদুল হক বলেন, এফবিসিসিআইয়ের অন্য পক্ষের এক নেতা নির্বাচন বোর্ডের সচিব আশরাফুল আরেফিনকে সরিয়ে নিয়ে গেছেন বলেও শুনেছেন তিনি।

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাচন বোর্ডের সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক ই-নিউজকে বলেন, ‘‘আমি শুনেছি আমাদের নির্বাচন বোর্ডেও সচিবকে পাওয়া যাচ্ছে না। তার অফিস কক্ষে তালা দেয়া। ফলে নির্বাচনের জন্য প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র কিনতে পারছেন না।’’

 

দুজন প্রার্থী টেলিফোনে এ অভিযোগ করেছেন বলে জানান আবু বক্কর সিদ্দিক।

 

ফরম বিক্রি বন্ধ করার পূর্বনির্ধারিত সময়ে তিনি বলেন, ‘‘যেহেতু সমস্যা হয়েছে, তাই আমরা আগ্রহী প্রার্থীদের আসতে বলেছি। তারা এলে ফরম দেয়া হবে।’’

 

তিনি আরো বলেন,‘‘আমরা এই নির্বাচন করতে চাই।’’

 

এরপর বিকাল পৌনে ৪টায় বোর্ডে এসে আবু বক্কর সিদ্দিকের কাছ থেকে মনোনয়নপত্র কেনেন আনিসুল হক নেতৃত্বাধীন প্যানেলের নির্বাচিত পরিচালক আবদুল হক ও গোলাম মর্তুজা তালুকদার।

 

আবদুল হক এ সময় সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আমরা মনোনয়ন জমা দেয়ার জন্য সময়ের আবেদন করেছি। বোর্ড আমাদের সময় দিয়েছে।’’

 

গত শনিবার এফবিসিসিআই পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে ৩০টি পরিচালক পদের মধ্যে ২০টিতে জয় পায় কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদের নেতৃত্বাধীন প্যানেল। এর মধ্যে চেম্বার গ্রুপের ১৫টি পদের মধ্যে ১১টি এবং অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপের ১৫টির মধ্যে ৯টিতে জয়ী হন এই প্যানেলের প্রার্থীরা।

 

নির্বাচনে চেম্বার গ্রুপে প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেল আনিসুল হক সমর্থিত গণতান্ত্রিক পরিষদ থেকে চার পরিচালক নির্বাচিত হন। আর অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপে এই প্যানেল থেকে নির্বাচিত হন ৬ জন।

 

নিয়ম অনুযায়ী নির্বাচিত এই ৩০ জন পরিচালক ও ইতোমধ্যেই মনোনীত ১৮ জন পরিচালকই সংগঠনের নতুন সভাপতি ও সহসভাপতি নির্বাচিত করবেন।

 

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ ইতোমধ্যে নিজেকে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের পক্ষ থেকে পরিচালক হিসেবে মনোনীত।

 

অন্য প্যানেলের নেতৃত্বে থাকা আনিসুল হক ব্যবসায়ীদের এই শীর্ষ সংগঠনের সাবেক সভাপতি ছিলেন। তবে তিনি নিজে এই নির্বাচনে অংশ নেননি।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট