Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আবারও নাশকতার আশঙ্কা বিজিএমইএ’র

 শনিবার আশুলিয়ায় তাজরিন ফ্যাশন লিমিটেডের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাকে আবারও নাশকতা বলে উল্লেখ করেছেন বাংলাদেশ তৈরী পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।  বিজিএমই কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, দেশের অর্থনীতির মেরুদণ্ড ২০ বিলিয়ন ডলারের এ শিল্পখাতকে অস্থিতিশীল করতে দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিকেএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি মুহাম্মদ হাতেম, বিজিএমইএ সহসভাপতি (দ্বিতীয়) সিদ্দিকুর রহমান, সহসভাপতি (অর্থ) এস এম মান্নান কচি প্রমুখ। শফিউল ইসলাম বলেন, ওইদিন শ্রমিকরা জীবন বাঁচানোর জন্য সিঁড়ি দিয়ে নামার চেষ্টা করছেন। কিন্তু তখন কিছু কর্মকর্তা বলেছেন নামার প্রয়োজন নেই। কারণ যে শব্দ শুনেছেন তা মহড়ার আওয়াজ। বিজিএমইএ সভাপতির প্রশ্ন এরা কারা? এদেরকে খুঁজে বের করতে হবে। তিনি বলেন, গত কয়েক দিনে তিন-চারটি পোশাক কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এসব কারখানায় নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড কোনভাবেই উড়িয়ে দেয়া যায় না। এছাড়া আমাদের কোন দুর্বলতা আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা তদন্তের কাজ করে যাচ্ছে। সভাপতি আরও জানান, ১৯৯০ সাল থেকে আজ পর্যন্ত পোশাক কারখানায় মোট ২১৪টি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৩৮৮ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। তবে বিজিএমইএ কর্তৃক ২০০১, ২০০৬ এবং ২০১০ সালে ক্র্যাশ প্রোগ্রাম নেয়ার প্রেক্ষিতে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পোশাক শিল্পে অগ্নি দুর্ঘটনার হার অনেক কমেছে। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ২০১০ সালে গাজীপুরের গরীব অ্যান্ড গরীব সোয়েটার কারখানা এবং আশুলিয়ার হামীম গ্র“পের কারখানায় সংঘটিত অগ্নি দুর্ঘটনায় ৫০ জন শ্রমিক শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। অথচ এসব প্রত্যেকটি কারখানাই অত্যাধুনিক বড় কমপ্লায়েন্ট কারখানা। কেন এসব কারখানাতেই বড় বড় অগ্নিকাণ্ড ঘটছে, তা আমাদের ভাবিয়ে তুলছে বলে জানান তিনি। সফিউল ইসলাম জানান, সোমবার দেবুনিয়া ফ্যাশন লিঃ কারখানায় আগুন দিতে গিয়ে জাকির হোসেন এবং সুমি বেগম নামে দু’জন পুলিশের কাছে ধরা পড়েছে। গতকাল আবার সকালবেলায় দক্ষিণখানের মোল্লারটেকে সোয়ান গার্মেন্টস লিঃ-এর গোডাউনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় শ্রমিকদের নিরাপদে নামিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। এগুলোর পেছনে কোন নাশকতা আছে কি না, অথবা আমাদেরই কোন দুর্বলতা আছে কি না তা জানতে চাই। তিনি পোশাক খাতকে বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিবেচনায় তৈরী পোশাক উৎপাদনকারী দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশই সেরা উল্লেখ করেন। কারণ তৈরী পোশাক শিল্পখাতের প্রধান রপ্তানিকারক দেশ চীনের উৎপাদন ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় বড় বড় আন্তর্জাতিক ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের কাছে বাংলাদেশই এখন পছন্দ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট