Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

তারেককে ফখরুদ্দীন-মইন হত্যা করতে চেয়েছিলেন

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, দুর্নীতির সঙ্গে তার ছেলে তারেক রহমানের সংশ্লিষ্টতা ছিল না। তিনি অত্যন্ত সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করেছেন। তার নিজস্ব সম্পদ বলতে কিছু নেই। কিন্তু ফখরুদ্দীন-মইন তাকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন।
বুধবার বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে তারেক রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে ছাত্রদল আয়োজিত ‘জাতীয়তাবাদী রাজনীতির ভবিষ্যৎ ও তারেক রহমান :প্রেক্ষিত বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। এর আগে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন তিনি। নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে গতকাল বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৪৮তম জন্মদিন উদযাপন করেছে দলটি। শিশু চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী, স্বেচ্ছা রক্তদান, আলোচনাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো। সকালে ছাত্রদলের উদ্যোগে
রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। মিলনায়তনের মূল ফটকের প্রবেশদ্বারে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচিও অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে সেখানে পুরস্কার বিতরণের পাশাপাশি ৪৮ পাউন্ডের একটি কেক কাটেন খালেদা জিয়া। পরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাসাসের উদ্যোগে শিল্পী আনিসের তিন দিনব্যাপী একক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন তিনি।
দিবসটি উপলক্ষে বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো দিনব্যাপী কর্মসূচি পালন করে। মঙ্গলবার মানিকগঞ্জে রাত ১২টা ১ মিনিটে ৪৮ পাউন্ডের কেক কাটার মাধ্যমে জন্মদিনের কর্মসূচি শুরু হয়। বরিশাল থেকে ফেরার পথে খালেদা জিয়া মানিকগঞ্জে কেক কাটেন। বিএনপির উদ্যোগে বগুড়ায় এক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ঢাকার বাইরে মানিকগঞ্জসহ জেলা পর্যায়েও কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, সেনা-সমর্থিত ফখরুদ্দীন আহমদের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তারেকের ভাবমূর্তি বিনষ্ট করতে ‘পরিকল্পিতভাবে অপপ্রচার’ চালানো হয়েছিল। অথচ তারেক যেভাবে দলকে এগিয়ে নিচ্ছিল, তাতে দল ও দেশ উপকৃত হতো। দেশ সামনের দিকে এগিয়ে যেত; কিন্তু চক্রান্তকারীরা আগে থেকেই তারেককে টার্গেট করে নানাভাবে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অপপ্রচার চালাতে শুরু করে।
তারেক রহমানের পুরোপুরি আরোগ্যের জন্য দেশবাসীর দোয়া চান খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, তারেক এখন পুরোপুরি সুস্থ হয়নি। মঙ্গলবারও লন্ডনে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছিল বলে তার সঙ্গে কথা বলতে পারিনি। সে যাতে পূর্ণাঙ্গ সুস্থ হয়ে দেশে ফিরতে পারে, সে জন্য সবাই তার জন্য দোয়া করবেন।
তিনি বলেন, ‘তারেকের চিন্তাভাবনা ছিল ভিন্ন প্রকৃতির। সে তৃণমূল থেকে বিএনপিকে সুসংগঠিত করছিল। আওয়ামী লীগ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশের কথা বললেও অনেক আগেই তারেক রহমান এ কাজ শুরু করেছে। নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশ সম্পর্কে জানাতে গবেষণা কাজ করেছে। এসব দেখে প্রতিপক্ষ ভেবেছে, এই ছেলেকে বেশিদূর এগিয়ে যেতে দেওয়া যাবে না। এ জন্য তাকে টার্গেট করা হয়েছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তারা তারেক রহমানকে শেষ করতে চেয়েছিল। আল্লাহর রহমতে সে বেঁচে গেছে।’
ছাত্রদল সভাপতি সুলতান আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ঢাবির সাবেক ভিসি অধ্যাপক মনিরুজ্জামান মিঞা, বার কাউন্সিলের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, ঢাবির অধ্যাপক ড. সুকোমল বড়ূয়া, অধ্যাপক তাজমেরী এসএ ইসলাম, সাবেক ফুটবল তারকা রুম্মন ওয়ালা বিন সাবি্বর, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিব, সিনিয়র সহসভাপতি বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ সিনিয়র নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানস্থলে ন্যাশনালিস্ট রিসার্চ সেন্টারের সহায়তায় আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। এতে মায়ের কোলে শিশু তারেক রহমান থেকে শুরু করে তার পারিবারিক-রাজনৈতিক-সামাজিক-কূটনৈতিক কার্যক্রম এবং গ্রেফতার ও নির্যাতনের ছবি স্থান পেয়েছে। ১৪৬টি ছবির মধ্যে সর্বশেষে রয়েছে যুক্তরাজ্যের হিথ্রো বিমানবন্দরে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হুইলচেয়ারে বসা তারেক রহমানের ছবি।
সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। খালেদা জিয়া কিছুক্ষণ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। শুরুতেই তারেক রহমানকে নিয়ে শায়রুল কবির খানের লেখা ‘নতুন পথের দিশারী’ গান গেয়ে শোনান শিল্পী আসিফ।
মঙ্গলবার রাতে ধানমণ্ডি থানা বিএনপি এবং অঙ্গদলগুলোর উদ্যোগে কেক কাটা হয়। এতে স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল মান্নান, কেন্দ্রীয় নেতা নাসির উদ্দিন আহমেদ অসীম ও ব্যারিস্টার কায়সার কামাল উপস্থিত ছিলেন। বাদ আসর দৈনিক দিনকাল অফিসে কেক কাটা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। যুবদল বাদ মাগরিব দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কেক কাটে।
দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আ’লীগ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে_ মওদুদ : বিএনপির স্থায়ী কমিটি সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ফের ১/১১-এর মতো ঘটনা ঘটলে সব থেকে বড় আঘাত আসবে আওয়ামী লীগের ওপর। সেদিকে না গিয়ে আওয়ামী লীগের জন্য সম্মানজনক হবে বিরোধী দলের হাতে নেতৃত্ব ছেড়ে দেওয়া। তিনি আরও বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ হেরে গিয়ে বিরোধী দলে থাকবে। কিন্তু দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আর ১/১১-এর ?মতো ঘটনা ঘটলে রেল, পদ্মা সেতুতে যেসব মন্ত্রী-এমপি দুর্নীতি করেছেন, তারা যত শক্তিশালী হোন না কেন, ছাড় পাবেন না।
মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে তারেক রহমানের ৪৮তম জন্মদিন উপলক্ষে স্বদেশ মঞ্চ আয়োজিত ‘১/১১ ষড়যন্ত্র, আগামী প্রজন্মের নেতৃত্ব ও তারেক রহমান’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় মওদুদ এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, যতদিন সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় না হবে, ততদিন আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। বর্তমানে দলীয় নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের যে প্রক্রিয়া চালাচ্ছে তাতে ১৮ দল অংশ নেবে না। তিনি বলেন, নির্বাচিত সরকার গঠিত হলে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করা হবে। আগামীতে তারেক রহমানের নেতৃত্বে সংসদকে কার্যকর, হিংসা-বিদ্বেষের রাজনীতি দূর করে বিচার বিভাগ ও সংবাদমাধ্যমের ওপর হস্তক্ষেপ না করে বিরোধী দলকে সম্মানজনক অবস্থানে রাখা হবে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট