Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার রানা, টাঙ্গাইল-৩ উপনির্বাচন

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমানুর রহমান খান রানাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে গতকাল। এ অবস্থায় ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। অবশ্য শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় তিন প্রার্থীই মরিয়া। জাতীয় পার্টির প্রার্থী সৈয়দ আবু ইউসুফ আবদুল্লাহ তুহিন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে না পারলেও তার পক্ষে বৃহস্পতিবার আবারও নির্বাচনী সভা করে গেছেন পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। সঙ্গে ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর আহম্মদ, ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার ও কবি বুলবুল খান মাহবুব। শহিদুল ইসলাম লেবুর পক্ষে আবারও এসেছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফরউল্লাহ ও যুগ্ম মহাসচিব মাহবুবুল আলম হানিফ। লেবুর পক্ষে কাজ করতে আসছেন গায়িকা মমতাজও। নাগরিক কমিটি নিয়ে প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত বিদ্রোহী প্রার্থী আমানুর রহমান খান রানা। জাতীয় পার্টি প্রধান এরশাদ মহাজোটের সমালোচনা করে তার প্রার্থীর পক্ষে ভোট দেয়ার জন্য এলাকাবাসীকে আহ্বান জানান। নির্বাচনী সভায় অপর দুই প্রার্থী একে অপরের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলেছেন। শহিদুল ইসলাম লেবু রানাকে সন্ত্রাসী হিসেবে আখ্যা দিয়ে তার অতীত কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরছেন ভোটারদের কাছে। পাশাপাশি আমানুর রহমান খান রানা গত চার বছরে প্রয়াত এমপি ডা. মতিউর রহমানের ছত্রছায়ায় লেবুর দুর্নীতির কথা বলছেন নির্বাচনী সভাগুলোতে। এদিকে সাধারণ ভোটাররা রয়েছেন আতঙ্কে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ নিরাপত্তার লক্ষ্যে তৎপর থাকলেও স্বস্তি মিলছে না ভোটারদের মনে। এ আসনের মোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৯৬টি। এর মধ্যে ৬৭টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছে নির্বাচন কমিশন। পুলিশ এবং গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে অধিক সতর্ক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে নির্বাচন কমিশন। ৬৭টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের মধ্যে ৪১টি কেন্দ্রকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন অধিক গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোকে বিশেষভাবে নজরদারি করবে। উপ-নির্বাচন নিয়ে সরকারের স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী শুরু থেকেই সতর্ক অবস্থান নিয়েছে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বিভিন্ন সংস্থা থেকে কেন্দ্র প্রতি ২৭ জন সদস্য মোতায়েন করা হবে। নির্বাচনের দিন টহল দেয়ার জন্য সার্বক্ষণিক থাকবে বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজিবি) ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট