Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

দেড় মাস ব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপি’র

সরকার সকল সীমা লঙ্ঘন করে দেশকে সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বলেছেন, সরকার বিরোধী মতকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য শুধু জামায়াত-শিবিরই নয়, নিরীহ লোকদের ওপরও নির্যাতন চালাচ্ছে। এভাবে বিরোধী দল নির্মূল করে সরকার একদলীয় শাসন কায়েম করতে চায়। দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং মানুষের গণতান্ত্রিক ও মৌলিক অধিকার রক্ষায় দেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনের বিকল্প নেই। দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথসভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিএনপির প্রায় দেড় মাসব্যাপী কর্মসূচির ঘোষণা দেন। মির্জা আলমগীর বলেন, ২৮শে নভেম্বরের জনসভার উদ্দেশ্য হলো- নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি প্রতিষ্ঠা করা। আমরা আশা করি, সরকার নমনীয় হবে। জনগণের দাবি মেনে নেবে। তা না হলে ওই দিন খালেদা জিয়া আরও কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দেবেন, যার মাধ্যমে সরকার দাবি মেনে নিতে বাধ্য হবে।
কর্মসূচি গুচ্ছ: যৌথসভা শেষে বিএনপি ঘোষিত কর্মসূচিগুলো হচ্ছে- ২৮শে নভেম্বর নয়াপল্টনে জনসভা। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেবেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও বিরোধী নেতা খালেদা জিয়া। এছাড়া মজলুম জননেতা মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ১৬ই নভেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভা, ১৭ই নভেম্বর দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামের নেতৃত্বে টাঙ্গাইলের সন্তোষে ভাসানীর মাজারে বিএনপি প্রতিনিধি দলের পুষ্পঅর্পন। ১৯শে নভেম্বর খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বরিশালের বেলসপার্কে জনসভা। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৪৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বেশ কয়েকটি কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে- ১৮ই নভেম্বর রাজধানীতে ছাত্রদলের র‌্যালি, ১৯শে নভেম্বর কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারাদেশের দলীয় কার্যালয়ে কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন, ২০শে নভেম্বর তারেকের জন্মদিন উপলক্ষে বগুড়ায় জনসভা এবং সারা দেশে জেলা-উপজেলায় আলোচনা সভা, ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও স্বেচ্ছায়  রক্তদান কর্মসূচি। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করবেন খালেদা জিয়া। একইদিন স্বেচ্ছাসেবক দলের আলোচনা সভা, ২১ শে নভেম্বর এতিমদের মাঝে তবারক বিতরণ এবং ২৪ নভেম্বর তারেক রহমানের কর্মময় জীবনের ওপর আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। অন্যদিকে ১লা ডিসেম্বর গরিব-দু:খী শীতার্তদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করবে বিএনপি। ৬ই ডিসেম্বর স্বৈরাচার পতন দিবস উপলক্ষে, ১৩ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা এবং ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাবেন খালেদা জিয়া। মহান বিজয় দিবসের আয়োজনের মধ্যে রয়েছেÑ ১৫ই ডিসেম্বর মহানগর নাট্যমঞ্চে আলোচনা সভা, ১৬ই ডিসেম্বর ভোরে জাতীয় স্মৃতিসৌধে ও সকাল ১০টায় জিয়ার মাজারে খালেদা জিয়ার শ্রদ্ধা নিবেদন, বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাসাসের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ১৭ই ডিসেম্বর বিজয় র‌্যালী এবং ১৯শে ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন খালেদা জিয়া। এর আগে সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ঘন্টাব্যাপী দলের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিএনপির কেন্দ্রীয় ও সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতারা অংশ নেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট