Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘ছেলে বন্ধুর সহযোগিতায় তার ওপর যৌন নির্যাতন’

 চট্টগ্রামে যে বন্ধুর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে এক উপজাতীয় স্কুলছাত্রী গণধর্ষণ হয়েছিল, সেই ছেলেটির পরিকল্পনাতেই এমন ঘটনা ঘটেছে। যারা ওই মেয়েটিকে ধর্ষণ করেছিল তারা ছেলেটির পূর্ব পরিচিত। ছেলে বন্ধুটি তাদের বলেছিল সেই মেয়েটিকে কৌশলে নির্জন জায়গায় নিয়ে আসবে।
তারপর তার ওপর যৌন নির্যাতন চালাবে। আর তাকে এই কাজে ওই ৪ বন্ধু সহযোগিতা করবে। কিন্তু ছেলেটির বন্ধুরা নাটক সাজিয়ে ওই উপজাতীয় মেয়েটিকে জোর করে পাহাড়ে নিয়ে যায়। তারপর সবাই মিলে ধর্ষণ করে।
চট্টগ্রাম আদালতে গতকাল মঙ্গলবার এভাবেই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে অভিযুক্ত দুই স্কুল ছাত্র। এদের একজন হলো মেয়েটির বন্ধু ও যার সঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিল পিয়াস চাকমা। অন্যজন হলো ধর্ষক সালমান জামান জয়। তারা দুইজনেই নগরীর নাসিরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র।
প্রসঙ্গত, ঈদের পরদিন গত রোববার বিকালে নগরীর বায়েজিদ পলিটেকনিক এলাকায় এক সহপাঠীর সঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিল ওই উপজাতীয় স্কুলছাত্রী। এই সময় তাকে ৪/৫ জন বখাটে স্কুলছাত্র ধর্ষণ করে।
খুলশী থানা পুলিশ জানায়, ঘটনার পরপরই ওই উপজাতীয় মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়েছে। সে মানসিকভাবেও ভীষণ ভেঙে পড়েছে। পরিবারের কারো সঙ্গে কোন কথা বলছে না। সে বর্তমানে নগরীর একটি স্কুলের দশম শ্রেণীতে পড়ছে।
সালমান জামান জয় আদালতে বলেন, ‘পিয়াস তাকে পলিটেকনিক এলাকায় নিয়ে আসে সেদিন বিকালে। সে আমাদের কয়েকজন বন্ধুকে আগে থেকে এই বিষয়টি জানিয়েছিল। বলেছিল সে তাকে যৌন নির্যাতন করবে। আর আমরা তা প্রত্যক্ষ করবো।’
জয় আরও বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা কয়েক বন্ধু আলাপ করতেই মাথায় খারাপ চিন্তা আসে। এরপর আগে থেকে ওত পেতে থাকি। মেয়েটিকে জোর করে সবাই মিলে ধর্ষণ করি।’
অভিযুক্ত পিয়াস চাকমা বলেন, ‘মেয়েটিকে ধর্ষণের আগে সবাই মিলে ইয়াবা ট্যাবলেট সেবন করি। ঘটনাটি আঁচ করতে পেরে সে (মেয়েটি) পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এরপর সবাই তাকে জোর করে ধরে স্কুলের মাঠে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যাই।’ আদালতে বিচারক ছিলেন মুনতাসির আহমেদ। তিনি আসামিদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ  দেন।
মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি সূত্র জানায়, অভিযুক্ত পিয়াস ও জয় দুইজনেই এই ঘটনায় জড়িত। তবে ওই মেয়েটিকে আরও যারা ধর্ষণ করেছে তাদের মধ্যে আহমেদ ফজল শাওন (১৬), ফাহাদ উদ্দিন পিউল (১৬) ও খালেদ শামস (১৭) নামের আরও ৩ স্কুলছাত্রকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। খুলশী থানার ওসি আব্দুল লতিফ বখাটে ৫ স্কুলছাত্রকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। পিয়াস এই বিষয়ে আমাদের কাছে জবানবন্দি দিয়েছে। আবার জয়ও তার জবানবন্দিতে আদালতে বলা একই কথা জানিয়েছে। মেয়েটির পিতা সজীব কুমার চাকমা বাদী হয়ে থানায় এই ৫ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট