Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আইসিসির ভাইস প্রেসিডেন্ট হলেন মোস্তফা কামাল

ঢাকা, ৯ অক্টোবর: বিশ্ব ক্রিকেটের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ আইসিসিরি কোনো গুরুত্বপূর্ণ আসনে আসীন হবে এটা তো অনেক দেশই প্রত্যাশা করেনি। কিন্তু বিসিবি সভাপতি আহম মোস্তফা কামালের আপ্রাণ চেষ্টা ছিল আইসিসির গুরুত্বপূর্ণ আসনে বসার। সেই চেষ্টা অবশেষ আজ পূর্ণ হয়েছে। গুঞ্জন আগের দিনই ছিল। শুধু অপেক্ষা ছিল কাঙ্ক্ষিত ঘোষণার।

শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত সদ্য সমাপ্ত টি-২০ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব থেকে বাদ পড়ে হতাশ মিশন শেষে দেশে ফিরেছিল জাতীয় দল। মাঠের ক্রিকেটে ব্যর্থ হলেও শ্রীলঙ্কা থেকে ঠিকই একটা সুসংবাদ, অর্জন পেল বাংলাদেশ। বিসিবি সভাপতি আহম মোস্তফা কামাল আইসিসির ভাইস প্রেসিডেন্ট মনোনীত হয়েছেন। এটা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য অবশ্যই গুড নিউজ।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সহ-সভাপতি হিসেবে চূড়ান্ত মনোনয়ন পেয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি আহম মোস্তফা কামাল ওরফে লোটাস কামাল। আজ বিসিবির বিশ্বস্ত সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। পরে তাঁর মেয়ে নাফিজা কামাল জানিয়েছে খবরটা তারাও শুনেছেন। যদিও আইসিসি এ বিষয়ে এখনো অফিসিয়াল ঘোষণা দেয়নি। কাল ঘোষণা আসতে পারে। কালও চলবে আইসিসির বোর্ড সভা।

দুই বছরের জন্য আইসিসির সহ-সভাপতি পদে মনোনীত হলেন কুমিল্লা-১০ আসনের সংসদ সদস্য লোটাস কামাল। ২০১৪ সাল পর্যন্ত বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থার সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। বর্তমানে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সভাপতি লোটাস কামাল। আইসিসির সহ-সভাপতি পদটি একটি আন্তর্জাতিক পদ। বাংলাদেশের জন্য বিরল এক সম্মান বয়ে আনলেন লোটাস কামাল। প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে আইসিসির নেতৃস্থানীয় সহ-সভাপতি পদে বিসিবি সভাপতির মনোনয়নে বিসিবি কার্যালয়ে আনন্দের ঢেউ বইছে।

অতীতে কোনো বাংলাদেশীই বিশ্ব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থার কার্যনিবাহী পরিষদের সদস্য হতে পারেননি। পেশায় এফসিএ লোটাস কামাল ১২ অক্টোবর ২০১০ সালে আইসিসির অডিট কমিটির চেয়ারম্যান হন। যার মাধ্যমেই প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে আইসিসির কার্যনির্বাহী পরিষদে যুক্ত হন লোটাস কামাল।

২০১২-২০১৪ মেয়াদে রোটেশন প্রথা অনুযায়ী আইসিসির সহ-সভাপদি পদে মনোনয়ন বাংলাদেশ ও পাকিস্তান থেকে হয়। বাংলাদেশ থেকে প্রার্থী হন বিসিবি সভাপতি লোটাস কামাল। কোনো প্রার্থী না থাকায় পাকিস্তান বাংলাদেশ তথা লোটাস কামালকে সমর্থন দেয়। এরপর দেশী-বিদেশি অনেক কূটনৈতিক চালে পড়ে অনেক বাধার মুখে পড়ে লোটাস কামালের মনোনয়ন। অনেক সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। এমনকি আইসিসির গঠনতন্ত্র সংশোধন করে রোটেশন প্রথা বাদ দিয়ে লোটাস কামালের প্রার্থীতা বাতিলের চেষ্টাও করা হয়। ক্রিকেটের বড় দেশগুলো বাংলাদেশের কেউ বিশ্ব ক্রিকেটের এতবড় সম্মানিত পদে আসীন হবে তা মেনে নিতে পারেনি। তাই তো গত জুনে ভারতের শারদ পাওয়ার আইসিসির সভাপতি পদ থেকে বিদায় নিয়ে নিউজিল্যান্ডের অ্যালান আইজ্যাকের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করলেও একই সময় সহ-সভাপতি পদে লোটাস কামালের মনোনয়ন আটকে রাখা হয়। অ্যালান আইজ্যাক ২০১০-২০১২ মেয়াদে সহ-সভাপতি ছিলেন। শেষতক রোটেশন প্রথা দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে, পাকিস্তানের চাপের মুখে বহাল রাখতে বাধ্য হয় আইসিসির বোর্ড সভা। তারপর গঠনতন্ত্র সংশোধন করে রোটেশন প্রথা ২০১৪ সাল পর্যন্ত রাখা হয় এবং আইসিসির সভাপতি পদকে শুধু সম্মানের পদ বানিয়ে নতুন চেয়ারম্যান পদ সৃষ্টি করা হয়। যেখানে সভাপতির স্থলে চেয়ারম্যানই হবে আইসিসির কার্যনির্বাহী পরিষদের প্রধান। সভাপতির হাতে কোনো ক্ষমতাই থাকবে না। সহ-সভাপতি হলেও লোটাস কামাল রোটেশন প্রথা অনুযায়ী ২০১৪ সালে আইসিসির সভাপতি হতে পারবেন কিনা তা সংশয়ে রয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট