Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

১৫ শতাংশ ভোটও পড়েনি, সিল মেরে তা ৫০ শতাংশ করা হয়েছে: আফসার

গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আফসার উদ্দিন বলেছেন, প্রহসনের এ নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করছি। সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি। গতকাল রাত থেকে আমার লোকজনদের হুমকি দেয়া হচ্ছিল। আমরা সকাল থেকে কয়েকদফা প্রশাসনকে মৌখিকভাবে জানিয়েছি। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

তিনি অভিযোগ করেন, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বেশিরভাগ কেন্দ্রে ১৫ শতাংশ ভোটও পড়েনি। কিন্তু বিকালে বৃষ্টি শেষ হওয়ার পরে সেসব কেন্দ্রে সিল মেরে তা ৫০ শতাংশ করা হয়েছে।

লিখিত অভিযোগে তিনি বলেন, এ প্রহসনের নির্বাচনের সাজানো ফল আমি মেনে নিতে পারছি না। অনেক কেন্দ্র দখলসহ জাল ভোট দিয়ে একপেশে পাতানো নির্বাচন মানার মতো নয়।

রোববার সকাল ৮টা থেকে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট শুরু হবার পর তা বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা চলবে। তবে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি এ নির্বাচন বর্জন করছে।

এদিকে অর্ধেকের বেশি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় অতিরিক্ত পুলিশ, র‌্যাব ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে।

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজের ছেড়ে দেয়া আসনে ভোট নিতে নির্বাচন কমিশন সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। ভোট প্রদান নির্বিঘ্ন করতে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

এর মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগদলীয় প্রার্থী সিমিন হোসেন রিমি ও তার চাচা স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট আফসার উদ্দিন আহমেদ খানের ভোটের লড়াইয়ের অবসান ঘটবে। অপর প্রার্থী হলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবি’র আসাদুল্লাহ বাদল।

আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী রিমি ও চাচা আফসার উদ্দিন একই বাড়ির বাসিন্দা হওয়ায় তারা দু’জনেই নিজ গ্রামের বাড়ি সংলগ্ন দরদরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন।

রিমি সকাল ৮টায় ভোট দেয়ার পর অন্যান্য কেন্দ্র পরিদর্শনে যান। আফসার তাদের পারিবারিক কবর জিয়ারতের পর সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ওই একই কেন্দ্রে ভোট দেয়ার পর তিনিও কেন্দ্র পরিদর্শন শুরু করেন।

সিপিবি প্রার্থী আসাদুল্লাহ বাদল তার ভিকারটেক গ্রামের ছাবেদিয়া দাখিল মাদরাসা কেন্দ্রে সকাল ১০টায় ভোট দেন।

দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ ছিলেন এই আসনের প্রথম সংসদ সদস্য। তারই সন্তান সোহেল তাজ গত জাতীয় নির্বাচনে এই আসন থেকে নির্বাচিত হয়ে প্রতিমন্ত্রী হন। তবে সরকারের সাথে বনিবনা না হওয়া পরে তা ছেড়ে দেন।

নির্বাচন কমিশন ইতিমধ্যে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সব প্রস্তুতি শেষ করেছে। ১১টি ইউনিয়নের ১০২টি ভোটকেন্দ্রের প্রতিটিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছে।

গাজীপুর উপনির্বাচনে দুই লাখ ১১ হাজার ৮৮৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৩৯৫ জন ও নারী ভোটার এক লাখ ১১ হাজার ৪৮৯ জন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট