Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

৪০০০ কোটি টাকার দুর্নীতি বেশি কিছু নয়

হলমার্ক গ্রুপকে দেয়া সোনালী ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি নিয়ে গণমাধ্যমের ভূমিকার সমালোচনা করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন, ব্যাংকিং খাতে আমরা ৪০ হাজার কোটি টাকা ঋণ দিই। অথচ মাত্র চার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি নিয়ে যা প্রচার হচ্ছে তাতে মনে হয়, পুরো ব্যাংকিং খাতেই ধস  নেমেছে। এই প্রচারণা ব্যাংকিং খাতকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।
গতকাল রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে ‘দুর্নীতি প্রতিরোধে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গোলটেবিল আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান। আলোচনায় বিশ্বব্যাংকের সততা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংকের সততা বিভাগ জিহাদি মনোভাব নিয়ে কাজ করে। এই জিহাদি মনোভাব নিয়ে কাজ করা যাবে না। বিশ্বব্যাংক যা বলে, তা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য ও জবাবদিহিহীন। এটি দুর্নীতি প্রতিরোধের বিরোধী হিসেবে কাজ করে। আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, কালো টাকা বাংলাদেশের জন্য বড় সমস্যা। কালো টাকা থাকবেই। এটা মেনে নিয়ে আমাদের কাজ করতে হবে। গোলটেবিলের আয়োজন করে ইউএসএআইডি, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), প্রগতি ও এমআরডিআই। অর্থমন্ত্রী শেয়ারবাজার প্রসঙ্গে বলেন, শেয়ারবাজারে যে দুর্নীতি হয়েছে, এজন্য দুদকে কেউ সাক্ষী দিচ্ছে না। সাক্ষী পাওয়া যাচ্ছে না। সংবাদ মাধ্যমের সমালোচনা করে তিনি বলেন, দেশের সংবাদ মাধ্যমেরও সংস্কারের (রিফর্ম) দরকার আছে। তিনি বলেন, দুর্নীতি দূর করতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খুবই ভাল একটি উপাদান। দুর্নীতি দমনে অর্থমন্ত্রী আজ থেকে ৫০ বছর আগের মাঠ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা থাকাকালে নিজের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন।
তিনি বলেন, ওই সময় কোন একটি মহল্লা কিংবা গ্রামে একজন চোর কিংবা ডাকাতের বিরুদ্ধে জনসম্মুখে বিচার হতো। এ নিয়ে কারও কাছে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ ছিল না। তবে সবাই জানতো কে ডাকাত কিংবা চোর। এভাবে বিভিন্ন জনের সাক্ষ্য থেকে অভিযুক্ত অপরাধীর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হতো। আমি নিজেও এ ধরনের শাস্তি দিয়েছি। দুর্নীতি দমনে আমি এ ধরনের একটি পদ্ধতি চাই। শাস্তিস্বরূপ ওই অপরাধীকে প্রতি সপ্তাহে থানায় হাজিরা দিতো। সেই সঙ্গে মধ্যরাতে ওই ব্যক্তির বাড়িতে গিয়ে দেখা হতো সে বাড়িতে আছে নাকি চুরি করতে গেছে। তিনি বলেন, জেলায় জেলায় সরকারের কথা সবাই ভাল বলে। কিন্তু বাস্তবে সমর্থন পাওয়া যায় না। যেমন সমর্থন পাওয়া যায় না শেয়ারবাজারের ঘটনা নিয়ে দুর্নীতি দমনের সাক্ষী পাওয়ার ক্ষেত্রে। অনলাইন পেমেন্ট স্মার্ট কার্ড দুর্নীতি কমাতে সাহায্য করেছে বলে মন্তব্য করেন অর্থমন্ত্রী।  গোলটেবিল আলোচনায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা  চৌধুরী। এতে শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান। ড. অনন্য রায়হানের সঞ্চালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিজ্ঞান ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান ও মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা।
অর্থমন্ত্রীর বিবৃতি আজ: হলমার্ক কেলেঙ্কারির ঘটনায় আজ বুধবার গণমাধ্যমে বিবৃতি দেবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। গতকাল দুপুরে একনেক বৈঠকে যোগ  দেয়ার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি। অর্থমন্ত্রী বলেন, বিবৃতির খসড়া এরই মধ্যে তৈরি হয়ে গেছে। আমি সইও করে দিয়েছি।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট