Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

রিমিকে সমর্থন করেননি তাজউদ্দিনের ভাই-ভাগ্নেসহ ৪ সম্ভাব্য প্রার্থী

গাজীপুর-৪ আসনের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তাজউদ্দিন-কন্যা সিমিন হোসেন রিমি গতকাল তার বনানীর বাসায় সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন কাপাসিয়ার লোকজনের সঙ্গে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন উপনির্বাচনে আওয়ামী
লীগের বেশির ভাগ সম্ভাব্য প্রার্থী। মোট ১৩ জন সম্ভাব্য প্রার্থীর মধ্যে ৯ জন এ পর্যন্ত প্রকাশ্যে সিমিন হোসেন রিমিকে সমর্থন জানিয়ে নির্বাচনী এলাকায় তাদের প্রচারণা বন্ধ করে দিলেও এখন পর্যন্ত মাঠে থেকে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ৪ সম্ভাব্য প্রার্থী। ওই চার সম্ভাব্য প্রার্থীর একজন তাজউদ্দিন আহমেদের ভাই, আরেকজন ভাগনে। অবশ্য সিমিন হোসেন রিমি গতকাল সাংবাদিকদের  বলেছেন, তার চাচা আফসারউদ্দিন খান তার সঙ্গেই আছেন।
গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভায় গত শনিবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদের দ্বিতীয় কন্যা বিশিষ্ট লেখিকা, কলামনিস্ট সিমিন হোসেন রিমি’র নাম ঘোষণা করা হয়। অপরদিকে তাজউদ্দীন আহমেদের ছোট ভাই রিমির চাচা সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আফসার উদ্দিন আহমেদ খান নির্বাচনী মাঠে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি উপনির্বাচনে অংশ নিতে এলাকায় আসার আগেই ভাবী সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীনের কাছ থেকে অনুমতি নিয়েছি। আমি মাঠে কাজ করছি, জনগণকে কথা দিয়েছি আমি নির্বাচন করবো। তিনি ও তার ঘনিষ্ঠরা জানিয়েছেন, নির্বাচন করার জন্য তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেবেন। তিনি ১৯৮৯ সালে উপজেলা চেয়ারম্যান, ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। এনিয়ে উপ-নির্বাচনে চাচা ভাইঝি’র নির্বাচনী লড়াই জমে উঠবে বলে ধারণা করছে এলাকাবাসী। এদিকে সিমিন হোসেন রিমিকে প্রার্থী ঘোষণার পর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে তাকে সমর্থন জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সভাপতি ও কাপাসিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন মোল্লা, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ, সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য এডভোকেট মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী, মাহমুদুল আলম খান বেণু, আমেরিকা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফজলুর রহমান মোল্লা, গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট আমানত হোসেন খান, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ নাজমুল হাসান চৌধুরী পিন্টু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনিছুর রহমান আরিফ, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী একেএম আলমগীর হোসেন আকন্দ, বঙ্গবন্ধু ল’ কলেজের অধ্যক্ষ ড. মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। গতকাল পর্যন্ত রিমিকে যারা সমর্থন জানাননি তারা হলেন- তাজউদ্দীন আহমেদের ছোট ভাই সাবেক গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট আফসার উদ্দিন আহমেদ খান, সাবেক  কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের নেতা ও বিশিষ্ট শিল্পপতি আবদুর রশিদ সরকার, কাপাসিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রুহুল আমিন, তাজউদ্দিন আহমেদের ভাগ্নে ড. আবদুল কাদের হিরন। গত ৭ই জুলাই সোহেল তাজের ছেড়ে দেয়ায় আসনটি শূন্য ঘোষিত হলে এক ডজন আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রচারণা চালিয়ে রাজনৈতিক মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। গত প্রায় মাসব্যাপী দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা মাঠে সরগরম থাকলেও গতকাল শনিবার তাজউদ্দীন কন্যা সিমিন হোসেন রিমি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার খবরে পাল্টে গেছে হিসাব-নিকাশ। গতকাল বিকালে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিনের বনানীর বাসায় গিয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে উপনির্বাচন নিয়ে আলোচনা করেন। সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন তার পরিবারের কাউকে মনোনয়ন দেয়ার জন্য। তারপরই প্রধানমন্ত্রী সিমিন হোসেন রিমি ও মাহজাবিন আহমদ মিমিকে গণভবনে নিয়ে যান। গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও এলজিইডি মন্ত্রী  সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তাজউদ্দীন কন্যা সিমিন হোসেন রিমির নাম ঘোষণা করেন। গতকালও রিমির বনানীর বাসায় দলের অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশীসহ কাপাসিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীরা উপস্থিত হয়ে সমর্থন এবং শুভেচ্ছা জানান। গতকাল দুপুরে মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টি সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছেন, গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) আসনে উপ-নির্বাচনে জাতীয় পার্টি একক প্রার্থী দেবে। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গাজীপুর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) কাজী মাহমুদ হাসান এবং জাতীয় পার্টির জেলার যুগ্ম সম্পাদক ও কাপাসিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা দু’জনের মধ্যে যে কাউকে মনোনয়ন দিতে পারে জাতীয় পার্টি। সিপিবি’র গাজীপুর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক দলের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে এডভোকেট আসাদুল্লাহ বাদলকে বাম গণতান্ত্রিক বলয়ের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ।

আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড আজ আবার বসছে
গাজীপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে তাজউদ্দীন-কন্যা সিমিন হোসেন রিমিকে মনোনয়ন দেয়ার ঘোষণার একদিন পর আজ আবার এ নিয়ে বৈঠকে বসছে দলের সংসদীয় বোর্ড। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এই মনোনয়ন প্রক্রিয়া যথাযথ না হওয়ায় এই বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে। দলীয় সূত্র জানায়, আজ সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে ওই আসনে দলের যেসব নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন তাদের সঙ্গেও বৈঠক করবেন দলের সভানেত্রী।
শনিবার সন্ধ্যায় দলের সংসদীয় বোর্ডের সভা শেষে পদত্যাগী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজের বড় বোন সিমিন হোসেন রিমিকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার কথা ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তবে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এভাবে সরাসরি কাউকে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার নিয়ম নেই। এ নিয়ে দলের নেতাদের মধ্যে প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। মনোনয়ন প্রক্রিয়াটি গঠনতন্ত্রের নিয়ম অনুযায়ী করতেই আজ বৈঠক ডাকা হয়েছে বলে দলীয় সূত্র দাবি করেছে।
উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের সর্বশেষ গঠনতন্ত্র অনুযায়ী দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা মনোনয়নের জন্য সংসদীয় বোর্ডে আবেদন করবেন। একই সঙ্গে তিনি এই দরখাস্তের অনুরূপ দরখাস্ত জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদ বরাবরেও পাঠাবেন। এছাড়া, উপজেলা/থানা/ইউনিয়ন/পৌর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের গুণাগুণ ও জনপ্রিয়তা মূল্যায়ন করে একটি প্রার্থী প্যানেল স্ব স্ব সাংগঠনিক কমিটির মাধ্যমে দলের সংসদীয় বোর্ডের কাছে পাঠাবে। বোর্ড এ বিষয়ে একজনকে প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেবে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট