Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিরোধী দলের প্রস্তাব সংসদে এসে দেয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। সরকার পরিবর্তন হবে গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক প্রক্রিয়ায়। যারা পার্লামেন্টে আছেন, পার্লামেন্টে যত রকম সহযোগিতা দরকার, আমরা তা দিতে রাজি আছি। সাংবিধানিক প্রক্রিয়া অনুসরণ করে সরকার পরিবর্তনের ক্ষেত্রে বিরোধী দলের কোন প্রস্তাব থাকলে তা সংসদে এসে দেয়ার জন্য তিনি আবারও আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী গতকাল বিকালে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের কর্মসূচির অংশ হিসেবে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে না বলে বিরোধী দলের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকারের সময়ে উপনির্বাচন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন থেকে শুরু করে স্থানীয় সরকার নির্বাচনসহ প্রায় পাঁচ হাজারের বেশি নির্বাচন হয়েছে। কোন নির্বাচনে অনিয়ম হয়নি। জীবনহানি হয়নি। রাজনৈতিক দলের অধীনে নির্বাচন কেন সুষ্ঠু হবে না? আওয়ামী লীগ জনগণের দল, কোন জেনারেলের পকেট  থেকে গজিয়ে ওঠা দল নয়। বিগত  সেনা মদতপুষ্ট তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অভিজ্ঞতা মনে করিয়ে দিয়ে শেখ হাসিনা জনগণকে সতর্ক করে বলেন, অনেকেই আছেন- যারা রাজনৈতিক দল করতে পারেন না। তাদের জনগণের কাছে গিয়ে ভোট চাওয়ার অধিকার নেই। কিন্তু তাদের ক্ষমতায় যাওয়ার খায়েশ আছে। তাদের খায়েশ অনেক। তারা চায় কিভাবে রাজনীতির অলি-গলি দিয়ে সহজে ক্ষমতায় যাওয়া যায়। ওই  খেলোয়াড়দের সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে- যারা ক্ষমতায় গিয়ে নিজেদের ভাগ্য গড়তে চায়, জনগণের ভাগ্য নিয়ে খেলতে চায়।  টেলিভিশনে আলোচনা অনুষ্ঠানে সরকারের সমালোচনাকারীদেরও সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী।
১৫ই আগস্টের ঘটনার স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ১৫ দিন আগে আমি আমার ছোট বোন রেহানাকে নিয়ে আমার স্বামীর কর্মস্থলে যাই। আর আসা হয়নি। যে বাংলাদেশে মা-বাবা আর ভাইদের রেখে  গেলাম, ১৫ দিন পর শুনলাম কেউ  নেই। আমরা এতিম হলাম। আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত  সেনগুপ্ত ও দুর্গাদাস ভট্টাচার্য,  প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী, কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য  মোহাম্মদ নাসিম এবং ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন  চৌধুরী মায়া এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বক্তব্য রাখেন।
খুনিদের সঙ্গে সমঝোতা নয়: সভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকারমন্ত্রী  সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, যারা ১৫ই আগস্ট জন্মদিন উদযাপন করে উৎসব করে, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের প্রশ্রয় দেয় এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে নিশ্চিহ্ন করতে চায়, তাদের সঙ্গে কোন রকম সমঝোতা করা হবে না। তিনি বলেন, যে দলের নেত্রী ১৫ই আগস্ট ইচ্ছাকৃতভাবে জন্মদিন পালন করেন, যে ব্যক্তি ১৫ই আগস্ট জন্মদিন করে উল্লাস করেন, তাদের সঙ্গে কি সমঝোতা সম্ভব? হত্যাকারী, খুনি, খুনির আশ্রয়দাতা ও মদতকারীদের সঙ্গে ঐক্য সম্ভব নয়। কোন খুনির সঙ্গে রাজনীতি সম্ভব নয়।
‘কিছু বুদ্ধিজীবী, কলাম লেখক ও সম্পাদক রাজনীতিকে জটিল করে তুলেছে’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, কলাম লেখকরা কি ১৫ই আগস্ট ভুলে গেছেন? তারা কি জানেন না- কারা ষড়যন্ত্র করেছিল? কারা চট্টগ্রামে গুলি করেছিল? কারা ২১শে আগস্টে গ্রেনেড হামলা করেছিল?

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট