Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) আজ

স্টাফ রিপোর্টার: পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) আজ। ১৪৩৩ বছর আগে এই দিনে ১২ই রবিউল আউয়াল আরবের পবিত্র মক্কা নগরীতে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) জন্ম নেন। ৬৩ বছর পর একই দিনে তিনি ইহলোক ত্যাগ করেন। তাই মুসলিম উম্মাহর জন্য এ দিনটি যেমন আনন্দের তেমনি শোকের। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য এরই মধ্যে ব্যাপক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ দিনে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে পৃথকভাবে বাণী দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জিল্লুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।
হযরত মুহাম্মদ (সা.) ইতিহাসের এক অতুলনীয় ব্যক্তিত্ব। অন্য ধর্মাবলম্বী অনেকেই তাঁকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী বিখ্যাত পণ্ডিত মাইকেল এইচ হার্ট তার বহুল আলোচিত ‘দ্য হান্ড্রেড’ গ্রন্থে হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ হিসেবে স্থান দিয়েছেন। সাহিত্যিক জর্জ বার্নার্ড শ বলেছেন, এই অশান্ত পৃথিবীতে তার মতো একজন মানুষের প্রয়োজন। তিনি বেঁচে থাকলে পৃথিবীজুড়ে সুখের সুবাতাস বইতো। তাঁর আগমনে যে বিপ্লবের সূচনা হয়েছিল দুনিয়াজুড়ে তা বিস্তৃত হয়েছে। মহানবী (সা.)-কে বলা হয় সাইয়্যিদুল মুরসালিন। অর্থাৎ, সব নবী ও রাসুলের নেতা। তিনি নিখিল বিশ্বের নবী। তার জন্মের সময় আরব দেশ অশিক্ষা, অজ্ঞতা, কুসংস্কার ও ঘোর তমসায় নিমজ্জিত ছিল। এ কারণে ওই সময়কে বলা হয় ‘আইয়ামে জাহেলিয়াত বা অন্ধকারের যুগ’। ওই বর্বর যুগে পৈশাচিক স্বভাবের কালিমাতে মানুষের মানবিক গুণাবলির অপমৃত্যু ঘটেছিল। সে অবস্থা থেকে মানব জাতিকে মুক্তি দিতে মহান আল্লাহ হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে পৃথিবীতে পাঠান। এ বিষয়ে পবিত্র কোরআনের সূরা আম্বিয়ার ১০৭ নম্বর আয়াতে আল্লাহ বলেছেন, ‘আমি আপনাকে সারা বিশ্বের জন্য রহমত হিসেবে পাঠিয়েছি।’ মহান আল্লাহ পুরো মানবজাতির জন্য সর্বাপেক্ষা কল্যাণকর, পরিপূর্ণ জীবন বিধান সংবলিত পবিত্রতম আসমানি কিতাব ‘আল কোরআন’ নাযিল করেন মহানবী (সা.)-র ওপর। প্রতি বছর ১২ই রবিউল আউয়ালকে অতীব গুরুত্বপূর্ণ দিন হিসেবে পালন করে সারা মুসলিম বিশ্ব।
পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। গতকাল বাদ মাগরিব বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব চত্বরে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মো. শাহজাহান মিয়া এমপি এ অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করেন। পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে- বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব চত্বরে প্রতিদিন বাদ মাগরিব থেকে ওয়াজ মাহফিল। দেশবরেণ্য ওলামায়ে কেরামগণ সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করবেন। এছাড়া বাংলাদেশ বেতারের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে সেমিনার ও আলোচনা সভা, মহিলাদের জন্য সেমিনার এবং বায়তুল মোকাররম মসজিদে কিরাত ও হামদ-নাত মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। অমর একুশে ফেব্রুয়ারি ও পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের দক্ষিণ চত্বরে মাসব্যাপী ইসলামি বইমেলা শুরু হয়েছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে রাত ৮টা পর্যন্ত ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে এ মেলা চলবে। মেলায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন থেকে প্রকাশিত পবিত্র কোরআন ও হাদিসের বঙ্গানুবাদ ও তাফসিরসমূহ আকর্ষণীয় কমিশনে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের উত্তর পাশে সপ্তাহব্যাপী চলবে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনভিত্তিক পোস্টার ও ক্যালিগ্রাফি প্রদর্শনী। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর দৈনন্দিন ব্যবহার্য কিছু জিনিসপত্র এবং হযরত উসমান (রা.)-এর রক্তমাখা পবিত্র কোরআন শরীফ-এর প্রতিলিপিসহ অসংখ্য দুর্লভ ইসলামি পুস্তক প্রদর্শনীতে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। প্রদর্শনী প্রতিদিন বিকাল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে।
স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদরাসার ছাত্রছাত্রীদের জন্য কিরাত, আজান, হামদ-নাত, কবিতা আবৃত্তি উপস্থিত বক্তৃতাসহ বিভিন্ন ইভেন্টে ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া সারাদেশে বিভিন্ন দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রকাশিত দেয়াল পত্রিকাগুলোর মধ্যে পুরস্কার দেয়া হবে। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জেলা ও বিভাগীয় কার্যালয় এবং ইসলামিক মিশনের অফিসসমূহে ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট