Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হুদার নতুন দল ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফ্রন্ট’

 ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ফ্রন্ট’ নামে নতুন দল ঘোষণা করেছেন ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। আজ বিকালে রাজধানীর একটি হোটেলে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে এই ফ্রন্টের ঘোষণা দেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, নির্বাচনে ‘লড়ার’ লক্ষ্য নিয়েই নতুন এই ফ্রন্টের ঘোষণা।
আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে ঘোষণা করা হয়, এ দলের ২১ সদস্য বিশিষ্ট একটি স্টিয়ারিং কমিটি, ১০১ সদস্য বিশিষ্ট জাতীয় নির্বাহী কমিটি ও ৫১ সদস্য বিশিষ্ট ৩০০টি আসন ভিত্তিক একটি কমিটি নির্বাচিত হবে। মাঠ পর্যায়ে দলের কমিটি হবে ভোট কেন্দ্র ভিত্তিক। তবে নতুন দলের ঘোষণাকালে পরিচিত কেন মুখ দেয়া যায়নি। মঞ্চে বড় সারিতে বেশ কয়েকটি চেয়ার রাখা হলেও শেষ পর্যন্ত দুটো চেয়ার ছাড়া সবগুলো সরিয়ে নেয়া হয়। পুরো সময় মঞ্চে ছিলেন কেবল আহ্বায়ক ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা ও সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ।

ব্যানারের এক পাশে প্রয়াত প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ছবি টানানো হয়। নাজমুল হুদার নির্বাচনী এলাকা দোহার থেকে কয়েকশ সমর্থক অনুষ্ঠানে যোগ দেন। আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেয়ার ঘোষণা দেন ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। আগামী সংসদ নির্বাচনের রুপরেখা তুলে ধরে নাজমুল হুদা বলেন, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রসঙ্গ সম্পূর্ণ অবান্তর। আমরা বিশ্বাস করি, জাতীয় নির্বাচনে ভোটার তালিকা প্রণয়ন, হালনাগাদ, সঠিকভাবে ভোট গণনাসহ সর্বদলীয়ভাবে নির্বাচন কমিশনকে শক্তিশালী করা হলে অন্য কোন সরকারে প্রয়োজন হবে না। তবে সরকারের সব নির্বাহী ক্ষমতা দিতে হবে কমিশনকে। ২১ দফা ঘোষনাপত্রে তিনি বলেন, আমরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই। তবে তা হতে হবে স্বচ্ছ ও আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে। কোনভাবেই যেন নিরীহ ব্যক্তিকে যুদ্ধাপরাধে জরানো না হয়। বর্তমান হানাহানির রাজনীতির জন্য তিনি প্রধান দুই দলকে দায়ী করেন। একইসঙ্গে ছাত্ররাজনীতিকে শিক্ষাঙ্গণের গন্ডিতেই সীমাবদ্ধ থাকার কথা বলেন এবং শিক্ষাঙ্গন থেকে শিক্ষক রাজনীতিকে  উৎপাটন করার ঘোষণা দেন।

ঘোষণাপত্রে নাজমুল হুদা বলেন, আমরা মুসলমান, বাঙ্গালী ও বাংলাদেশী। আমরা অতি মুসলমান হয়ে অবাঙ্গালী হতে চাই না। আবার অতি বাঙ্গালী হয়ে অমুসলমানও হতে চাই না। একদিকে যেমন দাদা, দাদা করে ভাইকে ভুলতে চাই না অন্যদিকে মারহাবা মারহাবা বলে ধন্যবাদকে বিসর্জন দিতে চাই না।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ব্যারিস্টার হুদা বলেন, আমি জিয়ার আদর্শে বিশ্বাস করি। বিএনপিই আমার ঠিকানা। তবে বিএনপিতে স্বাধীন মত প্রকাশ করতে না পারায় নতুন দল গঠন করেছি। এ দল তৃতীয় কোন শক্তি নয় বরং নতুন রাজনৈতিক বিকল্প শক্তি। নতুন দল গঠনে বিশেষ কোন শ্রেণীর হাত আছে কিনা জানতে চাইলে হেসে উড়িয়ে দেন নাজমুল হুদা। বলেন, বাংলাদেশে গুঞ্জন আছে কেউ আইএসআইএর দালাল, আবার কেউ র’এর দালাল। আমি যদি বাংলাদেশের জনগণের দালাল হই তাতে সমস্যা কি? আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, যে দলে থেকে আমি স্বাধীনভাবে মতামত ব্যক্ত করতে পারি না সে দলে থাকার যৌক্তিকতা কি? আমি বিএনপি চেয়ারপারসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছিলাম সংলাপের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে আহ্বান জানাতে। তিনি সে আহ্বান জানালে রাজনৈতিকভাবে বড় হতেন। কিন্তু তিনি তা করেননি। তাই আমি দল থেকে বেরিয়ে এসেছি। দলের ভেতরে থেকে ষড়যন্ত্র করিনি। এখন আমি কি করবো সেটা আমার বিবেচনা। আমার এ উদ্যোগের কারণে যদি বিএনপি ভাঙ্গে তাহলে আমার কি দোষ? বরং যারা ধরে রাখতে পারবে না তাদের দোষ দেয়া যায়। আমি কেবল যারা বিএনপি থেকে সরে গেছেন তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তিনি বলেন, জিয়া ও তার আদর্শ জনগনের সম্পদ। তাই যে কেউ এটা ব্যবহার করতে পারে এ নিয়ে আইনী কোন জটিলতা নেই।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট