Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

রিমান্ডে আসামির গলা, হাত ও পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছে পুলিশ

ফরিদপুর, ৭ আগস্ট: পুলিশের নির্যাতনে গুরুতর অসুস্থ জহির হোসেন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। পুলিশ রিমান্ডের নিয়ে তার গলা, হাত ও পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন।

সূত্র জানায়, গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী থানার পুলিশ একটি স্বর্ণ দোকানের চুরির মামলার আসামি জহিরকে গ্রেফতার করে। পরে পুলিশ কোর্টে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে। আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এরপর আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে শুরু হয় অমানবিক নির্যাতন।

রিমান্ডের শেষ দিন মঙ্গলবার সকালে পুলিশ তার গলা, হাত ও পুরুষাঙ্গ কেটে দেয়। পরে পুলিশ আসামি জহিরকে প্রথমে কাশিয়ানী হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আহত জহির জানান, পুলিশ রিমান্ডের নিয়ে মঙ্গলবার সকালে তার গলা, হাত ও পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে কাশিয়ানী থানার ভাপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ মান্নান মোল্লা জানান, পুলিশের চোঁখ ফাকি দিয়ে আত্মহত্যার জন্য সকালে কোনো এক সময় ব্লেট দিয়ে নিজের গলা ও পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলে। এরপর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. শফিউল্লাহ জানান, গলা ও পুরুষাঙ্গ কাটা হয়েছে তবে ক্ষতস্থান ততটা গভীর নয়। রোগীর অবস্থা এখন অনেকটা শঙ্কামুক্ত।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার (ভারপ্রাপ্ত) সরদার রোকনউজ্জামান বলেন, “আমি ঘটনা শুনেছি। থানায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছেন। ঘটনা কী হয়েছে তা পরে বলা যাবে।”

আসামি জহির কাশিয়ানী উপজেলার ভাদুলিয়া গ্রামের আকমল শেখের ছেলে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট