Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আমেরিকায় শিখ উপাসনালয়ে বন্দুকধারীর তাণ্ডব, নিহত ৭

উইসকনসিন, ৬ আগস্ট: আমেরিকার উইসকনসিনে সোমবার একটি শিখ উপাসনালয়ে (গুরুদুয়ারা) দুই বন্দুকধারীর হামলায় সাত জন নিহত ও কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে উপাসনালয়ের সভাপতিও রয়েছেন। আহতদের মধ্যে তিন জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

আমেরিকার উইসকনসিনের সর্ববৃহৎ নগরী মিলওয়াকির দক্ষিণে ওক ক্রিক অঞ্চলে ওই শিখ উপাসনালয়টি অবস্থিত। স্থানীয় সময় রোববার সকাল ১১টার দিকে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় উপাসনালয়টিতে শিখ ভক্তরা প্রার্থনা করছিলেন।

ছুটির দিন থাকায় তুলনামূলক অনেক বেশিসংখ্যক ভক্ত এ উপাসনালয়ে সকালের প্রার্থনার জন্য জড়ো হয়েছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বন্দুকধারী ব্যক্তি শেতাঙ্গ এবং তার বয়স ত্রিশের কোঠায়। তবে হামলার সঙ্গে অজ্ঞাত দুই বন্দুকধারী জড়িত বলে একটি বার্তা সংস্থা দাবি করলেও পুলিশ বলছে হামলাকারীর সংখ্যা একজনই।

এদিকে, মিলওয়াকি উইসকনসিন জার্নাল সেন্টিনেলের অনলাইন সংস্করণ বলেছে, পুলিশের সোয়াট টিমের সদস্যরা উপাসনালয়ে ঢুকেছে এবং গুলি বিনিময়ের সময় একজন বন্দুকধারী মাটিতে পড়ে গেছে। তবে বন্দুকধারীদের সঙ্গে গুলিবিনিময়ের সময় সোয়াট টিমের এক সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

দেশটির গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই’র সদস্যরা উপাসনালয়টিতে কোনো ধরনের বোমা আছে কিনা তা পরীক্ষা করতে সেখানে প্রবেশ করেছেন বলে জানা গেছে।

আমেরিকার কালোরাডো রাজ্যে একটি সিনেমা হলে বন্দুকধারীর হামলায় ১২ জন নিহত হবার ঠিক দুই সপ্তাহ পরই উইসকনসিনের এই ঘটনা ঘটলো। দেশটির প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা উইসকনসিনে রক্তপাতের ঘটনায় গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

জানা যায়, আমেরিকার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় উইসকনসিনে প্রায় তিন হাজার শিখ পরিবার বসবাস করে। সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ওক ক্রিকসহ অন্যান্য উপসনালয়ে প্রার্থনা ও খাবার-দাবারের জন্য শিখ সম্প্রদায়ের লোকজন সমবেত হন। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আমেরিকায় সন্ত্রাসী হামলার পরও উইসকনসিনের শিখরা সহিংসতার শিকার হয়েছিলেন।

এ ছাড়া, ১৯৮৪ সালে শিখ দেহরক্ষীদের গুলিতে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি নিহত হওয়ার পর ভারতজুড়ে শিখবিরোধী নজিরবিহীন দাঙ্গায় কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছিল। সূত্র: বিবিসি/রয়টার্স

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট