Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিএনপি’র স্যাক্রিফাইস কাপাসিয়া উপনির্বাচন

 কাপাসিয়া উপনির্বাচনে অংশগ্রহণের সার্বিক প্রস্তুতি নিয়েছিল বিএনপি। প্রার্থিতাও চূড়ান্ত করেছিল। প্রস্তুতির অংশ হিসেবে কৃষক সমাবেশের ব্যানারে সেখানে জনসভা করেছেন খোদ বিরোধী নেতা খালেদা জিয়া। সমাবেশের পর পূর্ণোদ্যমে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা। কিন্তু হঠাৎ উপনির্বাচন থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিরোধী দল। বিএনপি’র নীতিনির্ধারণী ফোরামের কয়েকজন সদস্য জানান, নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় নির্বাচনের দাবির পক্ষে বিরোধী দলের স্যাক্রিফাইস কাপাসিয়া উপনির্বাচন। এ নির্বাচনে অংশগ্রহণের করে নির্দলীয় সরকারের দাবিতে সৃষ্ট জনমতের জোয়ারে কোন ভাটার টান দেখতে চায় না বিরোধী দল। এড়াতে চায় সরকারের যে কোন ধরনের পাতানো ফাঁদ। স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, বিএনপি মনে করে বর্তমান সরকারের অধীনে কোন নির্বাচনই সুষ্ঠু হবে না। আমরা এ সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন করবো না বলেই আন্দোলন করছি। আর উপ-নির্বাচন জাতীয় নির্বাচনেরই একটি অংশ। তাই আন্দোলনের স্বার্থে কাপাসিয়া উপ-নির্বাচন থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলের নীতিনির্ধারণী ফোরাম। চেয়ারপারসন সূত্রে জানা গেছে, কাপাসিয়ায় সরকার দলীয় এমপির পদত্যাগের ঘটনাসহ সার্বিক পরিস্থিতি গুরুত্বের সঙ্গে পর্যালোচনা করেছে বিএনপি। উপনির্বাচনে অংশগ্রহণের লাভ-ক্ষতি নিয়ে নানামুখী বিশ্লেষণ ও একাধিক জরিপ চালানো হয়েছে দলের পক্ষে। তবে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করেই শেষ পর্যন্ত উপনির্বাচন থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত নেয় দলের নীতিনির্ধারণী ফোরাম। দলীয় সূত্র জানায়, কাপাসিয়ায় বিএনপির মূল প্রার্থী ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ। রাজনীতিতে শক্ত অবস্থান থাকলেও ভোটের হিসেবে এখন তিনি সুবিধাজনক অবস্থানে নেই। ঐতিহাসিকভাবে এ আসনটি আওয়ামী লীগের। জাতীয় নেতা তাজউদ্দিন আহমেদ পরিবারের সদস্যদেরই সম্মান দিয়ে আসছে কাপাসিয়াবাসী। হান্নান শাহ ১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় নির্বাচনে একবার মাত্র জয়লাভ করেছিলেন। সেবার মন্ত্রী হিসেবে এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করলেও স্থায়ীভাবে এলাকাবাসীর মন জয় করতে পারেননি। গত জাতীয় নির্বাচনে তিনি রাজধানীর গুলশান এলাকা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে কাপাসিয়ায় প্রার্থী করা হয়েছিল স্বল্প পরিচিত আবদুল মজিদকে। ফলে হান্নান শাহ ভোটের রাজনীতিতে অনেকটাই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। সাম্প্রতিক সময়ে তাজউদ্দিন আহমদের ছেলে সোহেল তাজের সঙ্গে সরকারের সম্পর্কের অবনতি এবং পদত্যাগের ঘটনায় এলাকাবাসী বিরক্ত হলেও হান্নান শাহ সেটাকে নিজের অনুকূলে আনতে পারেননি। এমনকি কাপাসিয়ায় বিভক্ত আওয়ামী লীগের কোন পক্ষের মৌন সমর্থনও এ মুহূর্তে বিএনপির পক্ষে নেই। এছাড়া গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গেও হান্নান শাহ’র সম্পর্ক সুখকর নয়। এমন পরিস্থিতিতে ঝুঁকি নিতে চায় না বিএনপি। অন্যদিকে হান্নান শাহের বিকল্প বিএনপি’র কোন শক্তিশালী প্রার্থীও কাপাসিয়ায় নেই। যিনি দলের ব্যানারে বা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিরোধীদলের সমর্থন পেতে পারে। সূত্র আরও জানায়, বিরোধী দলের চলমান আন্দোলনের প্রধান ইস্যু নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় নির্বাচন। সরকারের তরফে এখন পর্যন্ত সে ব্যাপারে কোন নমনীয় ইঙ্গিত আসেনি। ফলে কাপাসিয়া উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোন কৌশল ফাঁদ পাততে পারে। পরে যার দোহাই দিয়ে বিরোধী দলের দাবিকে গৌন করে তোলার চেষ্টা করতে পারে সরকার। তাই ঝুঁকি নিয়ে নির্দলীয় সরকারের আন্দোলনে কোন জটিলতা তৈরি করতে চায় না বিরোধী দল। বিএনপির কয়েকজন নেতা জানান, কাপাসিয়া উপনির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করলে দেশবাসীর আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠবে সেটা। সে সুযোগে চলমান নানা ইস্যু ঢাকা পড়ে যাবে। এখন বিএনপি নির্বাচন থেকে বিরত থাকায় সে নির্বাচনে কোন আমেজ নেই। ফলে বিরোধী দল অন্য জাতীয় ইস্যুতে এখন জোরালো আন্দোলন ও সরকারের সমালোচনায় মনোযোগী হতে পারবে। তবে দলের এ সিদ্ধান্তে হতাশ নির্বাচনে আগ্রহী হান্নান শাহ। কাপাসিয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীরা হতাশ এবং বিভ্রান্ত। অনেকের মতে, আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে কাপাসিয়া উপনির্বাচনকে টেস্ট কেস হিসেবে নিতে পারতো বিএনপি। জেলা বিএনপির নেতৃত্বে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে জোরালো প্রস্তুতি নিলে ফলাফল অনুকূলে আনা কঠিন ছিল না। বিএনপির একটি সূত্র জানায়, দলের নীতিনির্ধারণী ফোরামের একটি অংশ চায় না বিএনপি উপনির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক। শেষ পর্যন্ত বিরোধী নেতাকে সে অংশটি তাদের পক্ষে নিতে সক্ষম হয়েছে। আর দলের এ সিদ্ধান্তে কপাল পুড়েছে বিএনপিতে ওয়ান ইলেভেনের কণ্ঠস্বর হিসেবে পরিচিতি পাওয়া প্রবীণ নেতা হান্নান শাহের।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট