Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

পালিত হচ্ছে বিশ্ব বাঘ দিবস

বিশ্ব বাঘ দিবস আজ রবিবার। বাঘ রয়েছে বিশ্বের এমন ১৩টি দেশ বাংলাদেশ, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, চীন, ভুটান, নেপাল, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, মালেশিয়া, কম্বোডিয়া, লাওস, ভিয়েতনাম ও রাশিয়ায় প্রতি বছর এ দিনটি পালিত হয়। বাঘের আবাসস্থল সুন্দরবন বাঁচান-বাঘ বাঁচলে সুন্দরবন বাঁচবে স্লোগানে দিবসটি পালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষে খুলনায় জেলা প্রশাসন এবং বাগেরহাটে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে র‌্যালি-আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

এদিকে সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার সংরক্ষণে প্রস্তাবিত ‘টাইগার প্রজেক্ট সুন্দবন’ প্রকল্প গত ১ যুগেও বাস্তবায়িত হয়নি। প্রকল্পটি ফাইলবন্দী হয়ে রয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে। সংকটাপন্ন এ প্রাণি সংরক্ষণে বাস্তবসম্মত কোনো উদ্যোগ না থাকায় অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার। প্রতি বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগ, খাদ্যাভাব ও চোরা শিকারিদের হাতে অন্তত ৩টি বাঘ মারা যাচ্ছে। মাত্রারিক্ত লবণ পানি ও চিকিৎসার অভাবে রোগাগ্রস্ত হয়ে পড়ছে অনেক বাঘ।

সমপ্রতি আবাসস্থল সংকট ও খদ্যাভাবে লোকালয়ে বাঘের অনুপ্রবেশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে প্রস্তাবিত প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে তা বাঘের বংশবৃদ্ধিসহ সংরক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার মাধ্যমে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দেশে একটি বাঘ গবেষণা ইনস্টিটিউট গড়ে তোলা প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন বাংলাদেশ ও ভারত ভূখ-ে অবস্থিত। নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের প্রতীক সুন্দরবন শুধু সৌন্দর্যের প্রতীক নয় বন অভ্যন্তরে রয়েছে গাছপালা, পশুপাখি, জীবজন্তু, সরীসৃপসহ অফুরন্ত প্রাকৃতিক সম্পদের ভান্ডার। নির্বিচারে বন উজাড়ের ফলে বাঘের আবাসস্থল ও প্রজনন ক্ষেত্র সংকট দেখা দিয়েছে। যে কারণে বাঘের বংশবৃদ্ধি ঘটছে না।

অপরদিকে বিভিন্ন সময়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস ও চোরা শিকারিদের হাতে পাচার ও নিধনের ফলে ক্রমান্নয়ে হ্রাস পাচ্ছে এ প্রাণী।

এ ছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বাঘ বাঁচাতে নানা উদ্যোগ নিলেও সুন্দরবনে বাঘের মৃত্যু আশঙ্কাজনকহারে বেড়ে গেছে। ১৯৮০ থেকে ২০১২ সালের জুলাই পর্যন্ত গত ৩২ বছরে সুন্দরবন ও সংলগ্ন এলাকায় শিকারিদের হানা, গ্রামবাসীর পিটুনি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ৬৭টি বাঘের মৃত্যু হয়েছে।

সুন্দরবন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, এর মধ্যে ১৯৮০ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত ২০ বছরে ৩৩টি এবং ২০০১ থেকে ২০১১ সালের জুলাই পর্যন্ত ১১ বছরে ৩২টি বাঘের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে ‘বাংলার বাঘ, বাংলায় বেঁচে থাক’- এ স্লোগানকে সামনে রেখে ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট অব বাংলাদেশ (ডব্লিউটিবি) এর সুন্দরবন টাইগার প্রজেক্ট রবিবার বিশ্ব বাঘ দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে।

এ উপলক্ষে সুন্দরবনের ৪টি রেঞ্জে কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- শোভাযাত্রা, বাঘ দিবসের বিশেষ আলোচনা ও ইফতার পার্টি। শরণখোলা রেঞ্জের রায়েন্দা, সাতক্ষীরা রেঞ্জের মুন্সীগঞ্জ, চাঁদপাই রেঞ্জের চিলা ও খুলনা রেঞ্জের কয়রায় কর্মসূচি পালন করা হবে।

উল্লেখ্য, ডব্লিউটিবি ২০১০ সাল থেকে সাতক্ষীরা রেঞ্জের মুন্সীগঞ্জে বাঘ দিবস পালন করে আসছে। এ প্রথমবারের মতো চাঁদপাই, শরণখোলা, সাতক্ষীরা ও খুলনা ৪টি রেঞ্জেই একযোগে কর্মসূচিগুলো পালন করা হচ্ছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট