Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আবুল ডাউন নয়

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছিলেন, ‘আবুল ইজ ডাউন’। কিন্তু তিনি এখনও ‘ডাউন’ হননি। কারণ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের পদত্যাগপত্র এখনও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পৌঁছেনি। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র দিলেও এখনও তিনি মন্ত্রী পদেই বহাল রয়েছেন। গতকাল বুধবার সৈয়দ আবুল হোসেনের বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা মানবজমিনকে বলেন, এখনও সৈয়দ আবুল হোসেনের পদত্যাগপত্র আমার কাছে আসেনি। তাই কারও পদত্যাগপত্র না এলে ওটা প্রসেস করতে পারছি না। পদত্যাগপত্র গ্রহণের প্রক্রিয়া সম্পর্কে তিনি বলেন, মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রীরা তাদের পদত্যাগপত্র প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দেবেন। এরপর প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগপত্রটি মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে আমার কাছে পাঠাবে। একটি সারসংক্ষেপ তৈরি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠাবে। ওই সারসংক্ষেপেই প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগকারী মন্ত্রীকে দপ্তরবিহীন করবেন নাকি পদত্যাগপত্র গ্রহণ করবেন তার সিদ্ধান্ত দেবেন। এরপর তা প্রেসিডেন্ট হয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে ফেরত আসবে। সে অনুযায়ী সরকারি আদেশ জারি করা হবে। ওদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাঁচ দিনের যুক্তরাজ্য সফর শেষে দেশে ফিরলেই মন্ত্রিসভায় রদবদল হতে পারে। মন্ত্রীদের মধ্য থেকে দু’জন বাদ পড়তে পারেন। তবে যোগ হবেন তিন থেকে চার জন। যোগ হওয়া মন্ত্রীরা জেলা কোটার ভিত্তিতে স্থান পাবেন। দপ্তরবিহীন মন্ত্রী এডভোকেট সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত দপ্তর পেতে যাচ্ছেন। এমনটাই মন্ত্রিসভার কয়েক সদস্য ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বলে গেছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে কারা কারা নতুন করে মন্ত্রিসভায় স্থান পাবেন এ বিষয়ে কিছু বলে যাননি। গতকাল বিমানবন্দরে সরকারের একজন মন্ত্রী ও কয়েক জন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সামনে মন্ত্রিসভায় রদবদলের বিষয়ে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি নতুন করে কয়েক জনকে মন্ত্রিসভায় স্থান দেয়ার ইঙ্গিত দেন। এর মধ্যে একজন প্রতিমন্ত্রীকে পূর্ণ মন্ত্রী করার কথাও রয়েছে। একই সঙ্গে দু’জনকে মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেয়ার প্রসঙ্গটি তুলেও থেমে যান। সিনিয়র ও যোগ্য কয়েক নেতাকে বর্তমান মন্ত্রিসভায় স্থান দেয়ার অংশ হিসেবে এমন রদবদল করা হচ্ছে। একজন সিনিয়র মন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, পদ্মা সেতুর সর্বশেষ অবস্থা নিয়েও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কথা বলেছেন। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, তথ্য, যোগাযোগ ও প্রযুক্তি মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের পদত্যাগ পরবর্তী বিষয় নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি মৌখিকভাবে স্থপতি ইয়াফেস ওসমানকে দায়িত্ব দিয়ে গেছেন বলে জানান। সিনিয়র কয়েক কর্মকর্তাকে বলেন, দেশে ফেরার পর এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা যাবে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট