Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

শতভাগ নারী সাংবাদিকের টিভির যাত্রা শুরু

কায়রো, ২১ জুলাই: বলা চলে এ যেন মিশরের নেকাবি নারীদের নীরব প্রতিশোধ। মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত পোশাকে আবৃত, মুখমণ্ডল নেকাবে ঢাকা, শুধু চোখ দেখা যাচ্ছে; এমন নেকাবি সংবাদকর্মীদের নিয়েই চলতি রমজানের প্রথম দিন অর্থাৎ ২০ জুলাই একটি টিভি চ্যানেল যাত্রা শুরু করেছে মিশরে।

টেলিভিশন চ্যানেলটির অনুষ্ঠান নির্মাতা, সঞ্চালক, ক্যামেরাপারসন এবং উপস্থাপিকাসহ সবাই নেকাবি।এতে পুরুষের অংশগ্রহণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এমনকি লাইভ প্রোগ্রামে কোনো পুরুষ দর্শক ফোনও করতে পারবেন না।

প্রসঙ্গত, পতিত একনায়ক হোসনি মুবারকের সেক্যুলার দলের স্বৈরশাসনে দেশটির টিভি চ্যানেলগুলোতে নারীদের ইসলামি পর্দা’র সবচেয়ে পরিচিত নিশানা- মাথা ঢাকার ‘হিজাব’ও নিষিদ্ধ ছিল।

চ্যানেলটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক শাইখা রাফি জানিয়েছেন, মিশরে দশকের পর দশক ধরে স্রেফ হিজাবধারী নারী সাংবাদিকরা দমনের শিকার হয়েছিলেন। তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়েছিল। এখন তারা নির্বিঘ্নে কাজ করতে পরছেন।

নতুন টিবি চ্যানেলটির নাম ‘মারিয়া’। মুহাম্মদের (স.) মিশরীয় বংশোদ্ভুত স্ত্রী মারিয়ার (রা.) নাম অনুসারে রাখা হয় নামটি।

বর্তমানে প্রতিদিন ছয় ঘণ্টা করে অনুষ্ঠান প্রচার করছে চ্যানেলটি। চ্যানেলটির নিজস্ব সম্প্রচার ব্যবস্থা নেই, কট্টরপন্থি সালাফি মতাদর্শের ওপর একটি টিভি চ্যানেল ‘উম্মাহ’ এ ছয় ঘণ্টার অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে।

চ্যানেলটির অনুষ্ঠানের মূল বিষয়বস্তু হলো নারীদের বিভিন্ন ধর্মীয় দিক শিক্ষা দেয়া। বিশেষ করে বিবাহিত জীবনের নানান সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা।

চ্যানেলটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক শাইখা সাফা রাফি বলেন, “চ্যানেল মারিয়ার কর্মীরা এর আগেও বিভিন্ন ধর্মীয় চ্যানেলে উপস্থাপিকা হিসেবে কাজ করেছেন। এটা তাদের জন্য নতুন কিছু নয়।”

মিসরের চ্যানেল উম্মাহ’র মালিক শাইখ আবু ইসলাম আহমেদ আব্দুল্লাহ ২০০৫ সালে এই ধরনের টিভির ধারণা দেন বলে জানান রাফিয়া। তবে বর্তমানে চ্যালেনটির অর্থায়ন কে করছেন তা জানাতে রাজি হননি তিনি।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট