Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিশ্বব্যাংকের চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী অর্থমন্ত্রী ও আবুল হোসেনের নাম আছে: ফখরুল

ঢাকা, ১০ জুলাই: পদ্মা সেতুর দুর্নীতি নিয়ে সরকারকে দেয়া বিশ্বব্যাংকের চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী ও সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী আবুল হোসেনের নাম রয়েছে বলে দাবি করছে বিএনপি। মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, “সে কারণেই নিজেদের অর্থায়নে সেতু করার কথা বলে প্রধানমন্ত্রী নিজেকে আড়াল করার চেষ্টা করছেন।”

‘পদ্মা সেতু নির্মাণে দুর্নীতি, বিশ্বব্যাংকের চুক্তি বাতিল, আর্থিক সংকটে বাংলাদেশ এবং সর্বক্ষেত্রে মানবাধিকার লঙ্ঘন’ শীর্ষক  আলোচনার আয়োজন করে জিয়া আদর্শ সংসদ (জিআস)।

মির্জা ফখরুল বলেন, “পদ্মা সেতুর দুর্নীতিতে প্রধানমন্ত্রী তার পরিবারের সদস্যদের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করলেও বিদেশী গণমাধ্যমে তার পরিবারের ঘনিষ্ঠদের জড়িত থাকার বিষয়ে কানাঘুষা চলছে।”

আর সংসদে বক্তব্য দেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রীর শারীরিক অঙ্গভঙ্গি তার দুর্বলতার প্রমাণ করে বলেও মন্তব্য করেন ফখরুল।

তিনি সরকারের কাছে আবারো বিশ্বব্যাংকের পূর্ণাঙ্গ চিঠি প্রকাশের দাবি করে বলেন, “নিজেদের নির্দোষ প্রমাণ করতে চাইলে অবিলম্বে বিশ্বব্যাংকের সব চিঠি ও সব বিষয় জনগণের সামনে প্রকাশ করুন। আর নৈতিকতার স্বার্থে গণতান্ত্রিক দেশের সরকারের মতো আপনারাও পদত্যাগ করুন।”

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, “দুর্নীতিতে অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে সরকার। এ সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যায়ে দুর্নীতি ছড়িয়ে পড়েছে।”

দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বললেই সুকৌশলে জনগণের নজর ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সরকার দক্ষ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

দেশের অর্থনৈতিক সংকট নিয়ে তিনি বলেন, “সরকার অর্থনীতি নিয়ে ছেলেখেলায় মেতে উঠেছে। এ খেলার পরিণতি হতে হবে ভয়াবহ।”

দুদকের সমালোচনা করে তিনি বলেন, “চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র এম মনজুর আলম বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হওয়ার পরই দুদক তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্তে নেমেছে। তারা কেন এটা করছে জনগণ তা ভালো করেই জানে।”

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, “সরকারের সাড়ে তিন বছরে ইলিয়াস আলী ছাড়াও ১৩০ জন রাজনৈতিক নেতাকর্মী গুম হয়েছেন। নির্যাতনের শিকার হয়েছেন হাজার নেতা-কর্মী। আর সে কারণেই আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। যদিও এতে সরকারের কিছু মন্ত্রীর মাথা খারাপ হয়ে গেছে।”

সভাপতির বক্তব্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান বলেন, “জনগণের পকেটের টাকা লুটের জন্যই নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের কথা বলছে সরকার। অর্থায়ন বড় বিষয় নয়, বরং এই অর্থ কতটা স্বচ্ছতার সঙ্গে বাস্তবায়ন হবে সেটাই মুখ্য।”

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা টিএম গিয়াসউদ্দিন, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সংসদ সদস্য সৈয়দা আসিফা আশরাফি পাপিয়া, নিলুফার চৌধুরী মনি প্রমুখ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট