Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আজ পবিত্র লাইলাতুল বরাত

 সৌভাগ্যের রজনী পবিত্র লাইলাতুল বরাত আজ। দিনের শেষে পশ্চিম গগণে সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে বরকতময় এ রাতটি ধরাতলে হাজির হবে। পাপ-তাপের মার্জনা আর সুন্দর আগামীর প্রত্যাশায় ইবাদত বন্দেগীতে মশগুল হবেন ধর্মপ্রাণ মুসলমান নরনারী। ধর্মীয় ভাবগম্ভীর পরিবেশে ও এবাদত বন্দেগীর মধ্যদিয়ে পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও যথাযথ মর্যাদায় পবিত্র লাইলাতুল বরাত পালিত হবে। মহিমান্বিত এ রজনীতে মুসলিম উম্মার সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশ্বের মুসলমান সমপ্রদায় বিশেষ মোনাজাত ও দোয়াখায়ের করবেন।

পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া এ উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান তাঁর বাণীতে বলেছেন, মানব জাতির সৌভাগ্যের বারতা নিয়ে পবিত্র শবেবরাত আমাদের মাঝে সমাগত। এই মহিমান্বিত রজনী মানব জাতিকে আল্লাহতায়ালার বিশেষ অনুগ্রহ ও ক্ষমা লাভের অপার সুযোগ এনে দেয়।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘শবে বরাতের এই পবিত্র রজনীতে আমরা সর্বশক্তিমান আল্লাহর দরবারে অশেষ রহমত ও বরকত কামনার পাশাপাশি দেশের অব্যাহত অগ্রগতি, কল্যাণ এবং মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্যের প্রার্থনা জানাই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বাণীতে পবিত্র শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে মানব কল্যাণে ও দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া পৃথক বাণীতে পবিত্র শবে বরাতে দেশ ও জাতির কল্যাণ, মুসলিম বিশ্বের সকল মানুষের অব্যাহত সুখ, শান্তি ও উন্নতি কামনা করেছেন।

পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে কাল শুক্রবার সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

সৌভাগ্যের এ রজনীতে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে নারী-পুরুষ-শিশু-বুড়োসহ সর্বস্তরের মুসলিম সম্প্রদায় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে কোরান তেলোয়াত, নফল নামাজ আদায় ও বিশেষ মোনাজাতের মধ্যদিয়ে মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনের চেষ্টা করবেন।

বাসাবাড়ি ছাড়াও মসজিদে মসজিদে রাতভর চলবে নফল নামাজ, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও অন্যান্য এবাদত-বন্দেগী।

শবেবরাত উপলক্ষে প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজন ও গরীবদের মধ্যে হালুয়া-রুটি ও মিষ্টি বিতরণের যে রেওয়াজ রয়েছে, তা পালন করতে দেখা যাবে কাল সামর্থবানদের ঘরে ঘরে।

ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা এই মহিমান্বিত রজনীকে তিন পবিত্র রাতের অন্যতম বলে গণ্য করে থাকেন।
মুসলমানদের বিশ্বাস, এই মহিমান্বিত রাতে মহান আল্লাহতায়ালা মানুষের ভাগ্য অর্থাৎ তার নতুন বছরের ‘রিজিক’ নির্ধারণ করে থাকেন। রাতব্যাপী এবাদত, বন্দেগী, জিকির-আজকার ছাড়াও এই পবিত্র রাতে মুসলমানরা মৃত মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজনসহ প্রিয়জনদের কবর জেয়ারত করে থাকেন।

মহিমান্বিত এ রজনী ভাবগম্ভীর পরিবেশের মধ্যদিয়ে পালনের লক্ষ্যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে- ওয়াজ মাহফিল, কোরআন তেলাওয়াত, হামদ্‌, না’ত, জিকির, মিলাদ, কিয়াম ও দোয়া।

পবিত্র এ রাতে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররকসহ দেশের সকল মসজিদ রাতভর খোলা থাকবে।

এ রাতের বিশেষ অনুষঙ্গ কবর জিয়ারতের পাশাপাশি মুসল্লিদের ব্যাপক উপস্থিতিতে মসজিদে মসজিদে এশার নামাজের পর থেকেই দফায় দফায় ওয়াজ মাহফিল, মিলাদ ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে।

সবশেষে বাদ ফজর আল্লাহর রহমত কামনায় মোনাজাতের মধ্যদিয়ে পবিত্র লাইলাতুল বরাতের সমাপ্তি হবে।

এ উপলক্ষে ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিগণের কেউ কেউ একদিন বা দু’দিন আবার কেউ তিন দিন নফল রোজা রেখে থাকেন।

এ পূণ্যবান রজনি উপলক্ষে সরকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বিরোধী দল বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলো নিজ নিজ কার্যালয়ে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে।

বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ বিভিন্ন বেসরকারি টিভি চ্যানেল এ উপলক্ষে ধর্মীয় নানা অনুষ্ঠান সমপ্রচার করবে। দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে জাতীয় দৈনিকগুলোতে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশিত হবে।

এদিকে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার বিজ্ঞপ্তিতে জানান, শবে বরাতের পবিত্রতা রক্ষার্থে এবং দিবসটি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপন করার লক্ষ্যে রাজধানীতে বৃহস্পতিবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বিস্ফোরকদ্রব্য, আতশবাজি, পটকা ও অন্যান্য ক্ষতিকারক দ্রব্য বহন এবং ফোটানো নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট