Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সিলেটে বিক্ষোভ পুলিশ পাহারায় সাব রেজিস্ট্রারের অফিস ত্যাগ

সিলেট অফিস: এজলাসে বসে সাব-রেজিস্ট্রারের ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দাবির অভিযোগ ওঠেছে সিলেটে। এ নিয়ে দলিল লেখক ও জমি রেজিস্ট্রি করতে আসা লোকজন দিনভর বিক্ষোভ করে। বিক্ষোভের মুখে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশ পাহারায় রেজিস্ট্রি অফিস ছেড়ে যান সিলেট সদর সাব রেজিস্ট্রার গাজী আবু হানিফ। এ কারণে গতকাল প্রায় ৩ ঘণ্টা সিলেট সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের কার্যক্রম বন্ধ ছিল। সিলেট সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে প্রায় ৩০০ নকল তোলা হয় প্রতিদিন। আর ১৫০ থেকে ২০০টি দলিল সম্পাদিত হয়। কিন্তু গত দেড় মাস ধরে এই অফিসের স্থায়ী কোন সাব রেজিস্ট্রার ছিলেন না। নতুন সাব রেজিস্ট্রার নিয়োগ না পাওয়ায় জৈন্তাপুর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ আহসানুল হাবিব ও গোয়াইনঘাট উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার মির্জা মো. মর্তুজ রেজা চলতি দায়িত্ব পালন করেন। এই অবস্থায় নতুন সাব রেজিস্ট্রার হিসেবে গাজী আবু হানিফকে নিয়োগ দেয়া হয়। তিনি আগামী সোমবার থেকে দায়িত্ব নেয়ার কথা ছিল। কিন্তু গতকাল সকালেই গাজী আবু হানিফ অফিসে চলে আসায় জেলা সাব রেজিস্ট্রার মো. আনোয়ার হোসেন তাকে দায়িত্ব সমঝে দেন। সিলেটের দলিল লেখক সমিতির নেতারা ও রেজিস্ট্রি করতে আসা লোকজন জানান, তিনি দায়িত্ব সমঝে নিয়ে কাজ শুরু করতে একটু বিলম্ব হয়। এ কারণে বেলা সাড়ে ১২টায় তিনি এজলাসে ওঠেন। শুরুতেই রেজিস্ট্রি অফিসের কর্মচারী করিম একজন লোক নিয়ে কমিশন বাবদ দেখা করতে যান। এ সময় কমিশনের কাজ বাবদ সাব রেজিস্ট্রার ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। একপর্যায়ে সাব রেজিস্ট্রার গাজী আবু হানিফ সেবা গ্রহণকারী লোককে গালি গালাজ করেন। এতে ক্ষুব্ধ হন করিমের সঙ্গে সাব রেজিস্ট্রারের সামনে যাওয়া সেবা গ্রহীতা ব্যক্তি। তিনি বেরিয়ে এসে দলিল লেখক সমিতির কর্মকর্তাদের কাছে অসদাচরণের অভিযোগ করেন। একটু পরে সেখানে সদর দলিল লেখক সমিতির এক সদস্য নির্ধারিত ব্যক্তি নিয়ে দলিল সম্পাদন করতে যান। সাব রেজিস্ট্রার গাজী আবু হানিফ তাদের কাছে ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। কিন্তু দলিল তাড়াতাড়ি সম্পাদন জরুরি থাকায় তারা ঘুষ প্রদান করতে সম্মতি জানান। তবে এ দৃশ্য দেখে উপস্থিত দলিল লেখকরা ক্ষুব্ধ হন। এরপর সাফ কাবলার একটি দলিল সম্পাদনের জন্য দেয়া হলে সাব রেজিস্ট্রার দলিল সম্পাদনের জন্য নিয়ম মেনে আসার হুকুম দেন। এ সময় উপস্থিত দলিল লেখক জানান, সব নিয়ম মেনেই ফাইল জমা দেয়া হয়েছে। তাদের কথায় যোগ দেন সাব রেজিস্ট্রার অফিসের কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন। নিজাম উদ্দিন সাব রেজিস্ট্রারকে জানান, বিধি মেনেই ফাইল জমা দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে সাব রেজিস্ট্রারের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন নিজাম। পরে বিষয়টির মীমাংসা করতে সাব রেজিস্ট্রার আবু হানিফ ও অফিসের কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন জেলা সাব রেজিস্ট্রার আনোয়ার হোসেনের কাছে যান। জেলা রেজিস্ট্রার নিজাম উদ্দিনের পক্ষেই রায় দেন। পরে সাব রেজিস্ট্রারের কাছে উপশহরের একটি জমি রেজিস্ট্রির কাগজপত্র দেয়া হয়। এই কাগজপত্র সামনে পেয়েই রেজিস্ট্রার বলেন, ‘উপশহরের জমির দাম বেশি। দলিল করতে হলে এখানে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দিতে হবে। ঘুষ দিলে কাজ হবে নতুবা হবে না।’ এ সময় উপস্থিত দলিল লেখকরা তার এই কথার প্রতিবাদ জানান। তারা জানান, সিলেট সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে এরকম কাণ্ড চলে না। তাদের কথার জবাবে সদর সাব রেজিস্ট্রার জানান, ‘জয়পুরহাট থেকে এসেছি। ২৫ লাখ টাকা ঘুষ দিয়ে এখানে ট্রান্সফার হয়েছি। এ কথায় ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন দলিল লেখক ও জমি রেজিস্ট্রি করতে আসা লোকজন। শুরু হয় উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়। একপর্যায়ের সাব রেজিস্ট্রারের সঙ্গে থাকা এক লোক তেড়ে আসে দলিল লেখকদের দিকে। দলিল লেখক ফয়সল আহমদ জানান, আগে কোন সাব রেজিস্ট্রার এরকম আচরণ  করেননি। সাব রেজিস্ট্রার দলিল লেখকদের বিক্ষোভের মুখে প্রথমে তার খাস কামরা এবং পরে ভবনের ২য় তলায় জেলা সাব রেজিস্ট্রারের কক্ষে অবস্থান নেন। দলিল লেখকরা তাকে অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ করতে থাকেন। বিক্ষোভের এক পর্যায়ে জেলা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি আজিজুর রহমান লাল মিয়া, সাধারণ সম্পাদক ফরিদুর রহমান, সদর সভাপতি আ. কা. ম রফিকুজ্জামান, জেলা সহ-সাধারণ ময়নুল ইসলাম খান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন, জিল্লুর রহমান, ফয়সল আহমদ, কুতুব উদ্দিন, আহমদ আলী, লুৎফুর রহমান, সাহাব উদ্দিন, আবুল হাসনাত, ইমন আহমদ, সেবুল আহমদ, আবদুল আজিজসহ দলিল লেখকরা জেলা সাব রেজিস্ট্রার আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকের একপর্যায়ে তারা দাবি করেন, নতুন নিয়োগ পাওয়া সাব রেজিস্ট্রার দিয়ে কাজ করালে স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। তারা দাবি করেন, যে ব্যক্তি প্রকাশ্যে ঘুষ দাবি করে তাকে গুরুত্বপূর্ণ এই পদে রাখা ঠিক নয়। এ সময় জেলা রেজিস্ট্রার আনোয়ার হোসেন তাদের কাছে সময় চান। এবং নতুন সাব রেজিস্ট্রার এনে দাপ্তরিক কাজ শুরু করার আশ্বাস দেন। বৈঠকের পর সিলেট জেলা সাব রেজিস্ট্রার অফিসের দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ফরিদুর রহমান জানান, এই সাব রেজিস্ট্রার থাকলে অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করবে। এ কারণে আমরা সাব রেজিস্ট্রারকে অনুরোধ জানিয়েছি তাকে সিলেট থেকে প্রত্যাহার করে নিতে। জেলা রেজিস্ট্রার তাদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন ফরিদুর রহমান। সদর দলিল লেখক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন জানিয়েছেন, এখানে প্রতিদিন ১৫০ থেকে ২০০টি দলিল সম্পাদিত হয়। সুতরাং এই অফিসে দক্ষ সাব রেজিস্ট্রার ছাড়া কোন ভাবে সঙ্কট দূর করা সম্ভব হবে না। জেলা যুগ্ম সম্পাদক ময়নুল ইসলাম ও প্রবীণ দলিল লেখক মুহিবুর রহমান জিলু জানান, যিনি চেয়ারে বসেই ঘুষ চান তিনি ভাল লোক নয়। তাকে আবার চেয়ারে বসালে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা আছে। আর তিনি নিজেই বলেছেন, ২৫ লাখ টাকার বিনিময়ে এখানে ট্রান্সফার হয়েছেন। সুতরাং তিনি তো টাকা ছাড়া কিছুই বুঝবেন না। পরে জেলা সাব রেজিস্ট্রারের কক্ষে বসা অভিযুক্ত সাব রেজিস্ট্রার গাজী আবু হানিফের কাছে অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি কিছুই জানি না।’ সামনে থাকা জেলা রেজিস্ট্রারকে দেখিয়ে বলেন, স্যার সব জানেন।’ এ সময় তাকে আবারও প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমি কারও কাছে ঘুষ চাইনি।’ এ সময় তার পেছনে থাকা দলিল লেখক সমিতির নেতারা তার কথার প্রতিবাদ জানান। জেলা সাব রেজিস্ট্রার আনোয়ার হোসেন মানবজমিনকে জানান, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে  জৈন্তাপুর সাব রেজিস্ট্রারকে নিয়ে আসা হচ্ছে। তাকে দিয়ে বিকালে কাজ করা হবে। পরে এ ব্যাপারে সবার সঙ্গে কথা বলে সিদ্বান্ত নেয়া হবে বলে জানান তিনি। তার কথা পরিবেশ শান্ত হলেও বিকাল সাড়ে ৩টায় বিক্ষোভের মুখেই সিলেটের সাব রেজিস্ট্রার ভবন পুলিশের পাহারায় ত্যাগ করেন নতুন সাব রেজিস্ট্রার গাজী আবু হানিফ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


5 Responses to সিলেটে বিক্ষোভ পুলিশ পাহারায় সাব রেজিস্ট্রারের অফিস ত্যাগ

  1. sikiş izle

    March 13, 2012 at 6:05 am

    Great article admin! i bookmarked your website webpage. i’ll glance ahead when you could have an e-mail record adding.

  2. ucuz notebook

    March 14, 2012 at 4:27 am

    Nice one web site operator results web site submit great sharings in this web site often have entertaining

  3. escort ilanlari

    March 14, 2012 at 5:06 am

    I used to be seeking this website last a few nights great blog operator wonderful posts every thing is wonderful

  4. su arıtma cihazları

    March 14, 2012 at 11:23 am

    Good submit admin! i bookmarked your website weblog. i will look ahead if you will have an e-mail variety adding.

  5. smackdown oyunları

    March 14, 2012 at 2:51 pm

    i bookmarked you in my browser admin thank you so much i will be searching for your up coming posts