Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

রাজকীয় বিয়ে

হেলিকপ্টারে বর-বধূ উড়ে এলেন নীলফামারী। ফুল দিয়ে বধূবরণ করে নেয়া হলো তাদের। বাদ্যের তালে তালে ঘোড়ার গাড়িতে ঘোরানো হলো নীলফামারী শহর। সবই হয়েছে রাজকীয় কায়দায়। রাজার ভাই বলে কথা! এ রাজা সেই রাজা না হলেও হালের এ রাজা কোন কমতি করেনি ছোটভাইয়ের বিয়ের আয়োজনে। লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে নজরকাড়া ডেকোরেশন, পাহাড়প্রমাণ তোরণ, মরিচ বাতির ঝলকানি আর আতশবাজির ব্যাপক আয়োজন। কোনকিছুই বাদ যায়নি সাড়া জাগানো এ বিয়ের অনুষ্ঠানে। ৭ হাজার আমন্ত্রণপত্রে ২১ হাজার মানুষের বিশাল আয়োজন নিয়ে গত ক’দিন চোখে ঘুম নেই আমেরিকা প্রবাসী বড়ভাই রাজা ও তার পিতা নীলফামারী জাপা সভাপতি মাহবুব আলী বুলুর। রাজার ছোটভাই আসাদুজ্জামান রোমানও আমেরিকা প্রবাসী। কনে চাঁদপুর জেলার মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরীর কন্যা আমেরিকা প্রবাসী রেবেকা চৌধুরী তৃষা। গত ২৫শে জুন ঢাকা আর্মি গলফ ক্লাব অডিটরিয়ামে জাঁকজমকপূর্ণ বিয়ে সম্পন্ন হলেও আজ ৩০শে জুন নীলফামারী শহরের শাখামাছা বাজারস্থ বাড়িতে বৌভাতের আয়োজন। এ আয়োজনকে কেন্দ্র করে গত এক পক্ষকাল ধরে চলছে সাজসাজ রব। কাজ পায়নি নীলফামারীর ডেকোরেটর-বাবুর্চিরা। সৈয়দপুর-দিনাজপুর থেকে আনা হয়েছে তাদের। ঘুম নেই সৈয়দপুরের উজালা ডেকোরেটর কর্মীদের। বাড়ির চারপাশের প্রধান সড়কগুলোতে বিশাল বিশাল তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। যার একটি ঝড়ে ভেঙে বিদ্যুৎ বিভাগের যথেষ্ট ক্ষতির কারণ হয়েছিল। ৮-১০ ঘণ্টা বিদ্যুৎবিহীন ছিল শহরের একাংশ। বরের বাড়িই শুধু নয়, আশপাশের বাড়ি এমনকি বাড়ির সামনের রাস্তাও মরিচ বাতিতে ছেয়ে ফেলা হয়েছে। শাখামাছা বাজারের দুটি কাঁচা তরিতরকারির আড়ৎ বন্ধ করে টিনের বিশাল বিশাল প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছে আমন্ত্রিত অতিথিদের বৃষ্টি থেকে বাঁচাতে। এক সঙ্গে এক হাজার অতিথির আপ্যায়নের ব্যবস্থা। আয়োজনের কমতি নেই। রান্না হবে ১০০ মণ গরু আর ৫০ মণ খাসির গোশ্‌ত। বিভিন্ন হাট থেকে গত ১৫ দিনে জড়ো করা হয়েছে ৩ হাজারেও বেশি দেশী-মুরগী। কাচ্চি বিরানি ও পোলাওয়ের সঙ্গে খাবারের তালিকা আরও থাকবে বোরহানি, টিকিয়া, ডাল। বগুড়ার থেকে আনা হয়েছে দই-মিষ্টি। আনা হয়েছে বাহারি পান। ওয়ান টাইম প্লেট-গ্লাস। ওদিকে বর-কনের জন্য ৩ লাখ টাকায় ভাড়া করা হয় হেলিকপ্টার (জ-৪৪)। সে হেলিকপ্টারে গতকাল বিকালে নীলফামারী হাইস্কুল মাঠে উড়ে আসে বর-বধূ। বর-বধূকে দেখতে শত শত মানুষ ছুটে আসে হাইস্কুল মাঠে। সেখানে নববধূকে বরণ করেন, শ্বশুর মাহবুব আলী বুলু। তারপর সারা শহরে ফুল ছিটিয়ে ঘোড়ার গাড়িতে বধূকে শহর ঘুরিয়ে নেয়া হয় বরের বাড়ি। এ সময় ঢাকা থেকে আনা ব্যান্ড পার্টির সদস্যরা সুরের মূর্ছনা তুলেন। আজ বৌভাত অনুষ্ঠানে সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে। এ বিশাল আয়োজন দেশের সেরা ধনী নীলফামারী-১ আসনের এমপি জাফর ইকবাল সিদ্দিকীর ছেলের বৌভাত অনুষ্ঠানকেও ম্লান করবে বলে অনেকেই মনে করছেন। অতিসমপ্রতি এমপি জাফর ইকবাল সিদ্দিকীও শহরের হাড়োয়া এলাকায় তার আলিশান ক্ষণিকালয়ে পুত্রের বিবাহ-উত্তর বৌভাতের গণআয়োজন করেছিলেন। উল্লেখ্য, বছর কয়েক আগে মাহবুব আলী বুলুর বড় ছেলে রাজার বিয়েতেও অনুরূপ আয়োজনে অতিথি সামাল দিতে পুলিশকে লাঠিচার্জ করতে হয়েছিল। আহত হয়েছিলেন জনা বিশেক অতিথি। সেবার হেলিকপ্টারে বধূ না এলেও লাখ টাকায় নীলফামারী স্টেডিয়াম ভাড়ায় বধূকে দেয়া সংবর্ধনায় গানের জমকালো অনুষ্ঠান জমিয়েছিলেন শিল্পী মমতাজ। সেবারো এসেছিলেন সাবেক রাষ্ট্রপ্রতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট