Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

তত্ত্বাবধায়কের জন্য আপিল করুন, বিএনপিকে আশরাফ

ঢাকা, ২০ জুন: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম প্রধান বিরোধী দল বিএনপিকে তত্ত্বাবধায়কের জন্য দুটো পথ খোলা রয়েছে উল্লেখ করে বলেছেন, “তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে বাতিল হয়ে গেছে। আপনারা সর্বোচ্চ আদালতের রায় না মানলে রিভিউ করার জন্য আপিল করেন অথবা নির্বাচনে আসুন। নির্বাচনে দুই তৃতীয়াংশ আসনে জয় লাভ করে সংবিধান সংশোধন করে তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা পুনরায় ফিরিয়ে আনুন।”

 

বুধবার দুপুরে রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

বিরোধী দলের তত্ত্বাবধায়কের দাবির সঙ্গে বাংলার মানুষের কোনো সর্ম্পক নেই উল্লেখ করে সৈয়দ আশরাফ বলেন, “মানুষ হত্যা করে, দেশকে অস্থিতিশীল করে কোনো দাবি আদায় করতে পারবেন না। এই দাবির সঙ্গে বাংলার জনগণের কোনো সর্ম্পক নেই।”

 

তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে আনার উপায় জানিয়ে তিনি বলেন, “সুপ্রিম কোর্টের রায় রিভিউ করার সুযোগ আছে। এছাড়া কোনো উপায়ে এটা করা সম্ভব না।”

 

তিনি বিরোধী দলের উদ্দেশ্যে বলেন, “গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় রাজপথই শেষ পথ নয়। নির্বাচনে আসুন। দুই তৃতীয়াংশ আসন নিয়ে ক্ষমতায় গিয়ে সংবিধান সংশোধন করুন।”

 

বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আন্দোলনকে ‘চার দফা’য় আবদ্ধ উল্লেখ্য করে সৈয়দ অশরাফ বলেন, “বিএনপি এবং বিএনপি জোটের আন্দোলনের মূল দফা চারটি। বেগম খালেদা জিয়ার মামলার হাত থেকে বাঁচানো, তার পুত্র তারেক রহমান এবং কোকো রহমান এবং যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা।”

 

বিএনপি বাংলাদেশে প্রথম আন্দোলন ডেকে আন্দোলন মুলতবি করার ইতিহাস গড়েছে উল্লেখ করে সৈয়দ আশরাফ বলেন, “বিএনপি নেত্রী বলেছিলেন ১০ তারিখের পর কঠোর আন্দোলন হবে। এরপর তিনি আন্দোলন মুলতবি দিয়ে সৌদি আরব, এরপর ভারত গেলেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে একমাত্র বিএনপিকে দিয়ে আন্দোলন মুলতবি সম্ভব।”

 

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, “আওয়ামী লীগ কোনোদিন আন্দোলন সংগ্রামে পরাজিত হয় না। আত্মশক্তিতে বলীয়ান আওয়ামী লীগের কর্মীরা বিজয় ছাড়া অন্য কোনো পথে নাই।”

 

মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের তৃণমূল থেকে কাউন্সিল করার মধ্য দিয়ে সংগঠন শক্তিশালী করা আহবান জানান সৈয়দ আশরাফ।

 

তিনি বলেন, “মহানগর আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড পর্যায় থেকে কাউন্সিল শুরু করেন। আশা করি আগামী দুই মাসের মধ্যে শেষ করতে পারবেন। আপনারা শুরু করেন এটার প্রভাব সারা বাংলাদেশে দেখতে পাবেন।”

 

প্রভাবশালী মহল গার্মেন্টে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফ দেশের গার্মেন্ট সেক্টরে চলমান আন্দোলনকে দালালদের উস্কানি আখ্যা দিয়ে বলেছেন, “সাধারণ শ্রমিকরা এই আন্দোলনে যুক্ত না। বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করতেই এই ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। আমি জানি আমাদের কাছে তথ্য আছে।”

 

বেতনের দাবিতে আন্দোলন হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, “একটি প্রভাবশালী গোষ্ঠী তারা বাংলাদেশের গার্মেন্ট শ্রমিকদের মাঝে দালাল সৃষ্টি করেছে। এসব দালালেরা শ্রমিক নেতাও না আবার শ্রমিকও না। এই দালালদের মাধ্যমেই গার্মেন্টে উস্কানি দেয়া হচ্ছে।”

 

মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজের সভাপতিত্বে এই বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ।

 

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আইন প্রতিমন্ত্রী আ্যডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, আব্দুর হক সবুজ প্রমুখ।

 

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট