Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আলটিমেটাম শেষে সমাবেশ আজ, কর্মসূচি দেবেন খালেদা

ঢাকা, ১১ জুন : বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের সমাবেশ আজ সোমবার। তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহালের দাবিতে বিরোধী দলের বহুল আলোচিত ৯০ দিনের আলটিমেটাম শেষে এই সমাবেশ হচ্ছে। রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি অফিসের সামনের সড়কে সমাবেশে ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতারা বক্তব্য দেবেন। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেবেন জোটের নেত্রী খালেদা জিয়া ।

গত ১২ মার্চ নয়াপল্টনের মহাসমাবেশ থেকে ১৮ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সরবারকে আলটিমেটাম দেন। তিনি সেদিন বলেন, ৯০ দিনের মধ্যে সংসদে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিল পাশ না করলে ১১ জুন ঢাকায় মহাসমাবেশ করা হবে। সমাবেশ থেকে কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, আজকের চেয়ে (১২ মার্চ) তিনগুন বেশি লোক ঢাকায় জড়ো করে সরকারের পতন ঘটনো হবে।

বিরোধীদলীয় নেতার সেই আলটিমেটাম রোববার শেষ হয়েছে। ঘোষণা অনুযায়ী আজ হচ্ছে সমাবেশ। কর্মসূচি তি দেয়া হবে তা এখনো জানানো হয়নি কাউকে। কর্মসূচি চূড়ান্ত করতে বৃহস্পতিবার ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা ও শনিবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন খালেদা জিয়া।

শনিবার রাতে স্থায়ী কমিটির বৈঠক সুত্রে জানা যায়, দলের নেতাদের মুক্তি ও সমাবেশ করতে না দিলে হরতাল ঘোষনা হবে। একইসঙ্গে বিক্ষোভ সমাবেশ, গণঅনশন, গণমিছিলসহ আরো কিছু কর্মসূচিও থাকবে। অবশ্য শেষ সময়ে সমাবেশের অনুমতি পাওয়ায় কর্মসূচি কী হবে তা জানা যাবে খালেদা জিয়ার মুখ থেকে।

এদিকে দলের নেতাদের নামে যে তলবি সমন জারি করেছে আদালত তা বাতিলের আবেদন করা হয় রোববার। আদালত ওই আবেদনের শুনানি রেখেছেন বৃহস্পতিবার। ফলে জোট নেতা যারা জেলে রয়েছেন তারা আর সমাবেশে যোগ দিতে পারছেন না।

জানা গেছে, নেতাদের মুক্তি বিলম্বিত হওয়ায় একদিনের হরতাল দিতে পারেন খালেদা জিয়া। একদিনের হরতালের পর আগামী রমজান শেষ হওয়া পর্যন্ত আর কোনো কঠোর কর্মসূচি দেবে না জোট। এ সময় গণসংযোগ, বিক্ষোভ সমাবেশ, গণঅনশনের মতো কর্মসূচি থাকতে পারে।

এদিকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহালের কোনো সুযোগ নেই বলে জানিয়ে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের মন্ত্রী ও দলের নেতারা। এ পরিস্থিতিতে গণসমাবেশের মাধ্যমে নতুন কী ধরণের কর্মসূচি দিতে যাচ্ছে বিরোধীদলীয় জোট তা দেখার জন্য অধীর আগ্রহে আছেন দেশবাসী।

লাখ লাখ লোক জড়ো করতে চায় বিরোধী জোট
আজকের সমাবেশে সারাদেশ থেকে লাখ লাখ দলীয় নেতাকর্মী জড়ো করতে চায় ১৮ দলীয় জোট। তারা বলছেন, সমাবেশে ১৫ লাখ লোক জড়ো হবে। এজন্য ঢাকার আশপাশের জেলাগুলো থেকে ব্যাপক সমাগমের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এ সমাবেশকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেয়ার নির্দেশ দিয়ে খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘পেছনে তাকানোর কোনো সুযোগ নেই। ১১ জুনের সমাবেশে জনজোয়ার সৃষ্টি করে আন্দোলনের গতিকে তীব্রতর করতে হবে।’ তরিকুল ইসলাম এই সমাবেশের সমন্বয় করছেন। অন্যদিকে ঢাকা মহানগরীর প্রস্তুতির সমন্বয় করছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

সমাবেশ বিষয়ে তরিকুল ইসলাম বলেন, অন্যত্র সরকারের অনুমতি না মেলায় নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনেই সোমবারের সমাবেশ হবে। এই সমাবেশ হবে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সমাবেশ। এতে ১৫ লাখ মানুষ যোগ দেবে বলেও তিনি দাবি করেন।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, বিএনপি তিন মাস সময় দেয়ার পরও প্রধানমন্ত্রী নতুন কোনো সিদ্ধান্ত নেননি। তিনি জেদ করে বসে আছেন। এভাবে জেদ করে দেশের সাংবিধানিক সমস্যা সমাধান করা যায় না।

ড. আবদুল মঈন খান বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহাল জনগণের দাবিতে পরিণত হয়েছে। এ ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনতেই হবে।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা হয়েছে, চূড়ান্ত হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নেতাদের মুক্তি না দিলে ক্ষোভ বাড়বে। সেক্ষেত্রে যা ঘটনার তা-ই ঘটবে। তিনি বলেন, নেতারা মুক্তি না পেলেও ব্যাপক লোক সমাগম ঘটবে।

বিকল্প ধারাও আসবে সমাবেশে
১৮ দলীয় জোটের বাইরে বিকল্প ধারাও যোগ দেবে সমাবেশে। বিকল্প ধারার সাংগঠনিক সম্পাদক মাহী বি চৌধুরী জানিয়েছেন আজকের সমাবেশের মঞ্চে থাকবেন তিনি। তবে দলের চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী সমাবেশে আসবেন না।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট