Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

২১ লাখ রুপিতে এক সন্তান

একটি সন্তানের জনক বা জননী হতে এখনও বিশ্বের হাজার হাজার নারী-পুরুষের মাঝে হাহাকার। সন্তান না হওয়ায় তারা কত রকম চিকিৎসা নিচ্ছেন তার কোন ইয়ত্তা নেই। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে একাকী বসবাস করা নারী বা পুরুষের সংখ্যা। তবে বৃটিশ এমন নারী বা পুরুষ একটি সন্তান পেতে ভারতে এসে গর্ভ ভাড়া নিচ্ছে। প্রতিটি সন্তানের জন্য তাদের গর্ভ ভাড়া বাবদ পরিশোধ করতে হচ্ছে গড়ে ২১ লাখ রুপি। বৃটেনে গর্ভ ভাড়া নেয়ার বিধান নেই বলে তারা ছুটছে ভারতে। আর এই সুযোগে ভারতে গড়ে উঠেছে প্রায় ১০০০ ক্লিনিক। এর মাধ্যমে বৃটিশ নারী বা পুরুষ বা নিঃসন্তান দম্পতি কোন নারীর গর্ভ ভাড়া নিচ্ছে। ফলে অর্থ উপার্জনের একটি মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে গর্ভ ভাড়া। গতকাল ভারতের একটি অনলাইন ট্যাবলয়েড দৈনিক এ খবর দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অনেক গরিব নারী অর্থের লোভে এ পথে পা বাড়াচ্ছেন। তারা নিজের গর্ভে অন্যের সন্তান ১০ মাস ১০ দিন ধারণ করে যখন প্রসব করছেন তারপর ওই সন্তানের ওপর তার কোন অধিকার থাকছে না। অথচ ওই সন্তানের সঙ্গে রয়েছে তার নাড়ির সম্পর্ক। তার কাছ থেকে যখন ওই সন্তানকে নিয়ে যাওয়া হয়, তখন তার মাঝে শুরু হয় অন্য রকম এক হাহাকার। এক হিসাব মতে, গত বছর ভারতে গর্ভ ভাড়া নেয়ার মাধ্যমে জন্ম হয়েছে ২০০০ শিশুর। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ মনে করে, শুধু গর্ভ ভাড়া দেয়ার মাধ্যমে প্রতি বছর আয় করা হচ্ছে ১২ হাজার ৬০০ কোটি রুপি। এত বিপুল পরিমাণ অর্থ যেহেতু এ মাধ্যম থেকে আসছে তাই এ বিষয়ে বিধিবিধান করা দরকার। ভারতীয় কোন নারীর ডিম্বাণু দান ও সন্তান ধারণের জন্য ভারতীয় একজন নারী পাচ্ছেন ৫ দশমিক ২ লাখ রুপি। বাকি অর্থ নিয়ে নিচ্ছে মধ্যস্থতাকারী, ক্লিনিকসহ সংশ্লিষ্টরা। বৃটের একক নারীরা, বিয়েতে যাদের অনীহা তারা গর্ভ ভাড়া নেয়ার মাধ্যমে মা হওয়াকে বেছে নিচ্ছেন। ভারতে যারা গর্ভ ভাড়া নিতে আসছেন তাদের মধ্যে আছেন ব্যাংকার, সিনিয়র সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, বহুজাতিক কোম্পানির নির্বাহী, এমনকি জাতীয় স্বাস্থ্য সেবার সঙ্গে যেসব চিকিৎসক জড়িত তাদেরও কেউ কেউ ভারতমুখী হচ্ছেন এই প্রবণতার সঙ্গে তাল মিলিয়ে। এ বাণিজ্যের ওপর বিধি আরোপের জন্য ভারত সরকার দায়িত্ব দিয়েছে ডা. রেডি শর্মাকে। তাকে এ বিষয়ে গবেষণা করতে বলা হয়েছে। তিনি বলেছেন, ভারতে এ বাণিজ্য আসলে কতটা বিস্তার ঘটেছে তা কেউই ভালভাবে জানে না। তিনি বলেছেন, ভারতের ৬০০ আইভিএফ ক্লিনিকের ডাটাবেস আমার হাতে এসেছে। কিন্তু তা একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা নয়। এ ছাড়া নিয়ম কানুনের বাইরে রয়েছে আরও প্রায় ৪০০ ক্লিনিক। তিনি বলেন, ভারতে এ বিষয়ে বিধিনিষেধ আরোপ করে বৃটিশদের গর্ভ ভাড়া নিয়ে সন্তানের জন্ম দেয়ার প্রবণতাকে রোধ করা যেতে পারে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট