Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

দলীয় সরকারের অধীনেই আগামী নির্বাচন: হাসিনা

ঢাকা, ২৬ মে: দলীয় সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় নির্বাচনের ইঙ্গিত দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “নির্বাচন কমিশনের অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। ভোটের সময় প্রশাসন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নির্বাচন কমিশনের অধীনে থাকবে।”

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

হাসিনা বলেন, “এই তিন বছরে সরকার সারা দেশে পাঁচ হাজার ১৭৫ টি নির্বাচন করেছে। একটি নির্বাচনেও কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে দিইনি আমরা।”

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী তার বক্তব্যে বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবির সমালোচনা করে বলেন, “খালেদা জিয়া কি ভুলে গেছেন ১/১১ এর কথা। উনার দুই ছেলেকে যে উত্তম মাধ্যম দিয়েছিল। উনাকে আটক করে কাঠগড়ায় তুলেছিল।”

তিনি খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “এতো তাড়াতাড়ি কি করে ভুলে গেলেন?’’

অসাংবিধানিক পথে যারা ক্ষমতায় আসবে তাদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসা হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আর কোনো খেলা আমরা চাই না। জনগণের ভাগ্য নিয়ে অনেক খেলা হয়েছে।”

দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “বাসে আগুন দিয়ে মানুষ মারবেন, আর বিচার করা যাবে না। বিচার করতে গেলে বলবেন, মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। কিন্তু ঘুমন্ত বাসচালককে পুড়িয়ে মারার সময় মানবাধিকার কোথায় থাকে? বাসচালকের কি মানবাধিকার নাই।”

অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টিকারীদের ঈঙ্গিত করে শেখ হাসিনা বলেন, “যাদের নির্দেশে দেশকে অস্থিতিশীল করা হচ্ছে, যাদের হুকুমে বাসে আগুন দেয়া হচ্ছে তাদের সব রেকর্ড আমাদের কাছে আছে।”

আওয়ামী লীগ সভনেত্রী শেখ হাসিনা দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রসংশা করে বলেন, “২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূলের নেতাকর্মীদের কারণে। কারণ তাদেরকে কেউ বিভ্রান্ত করতে পারেনি।”

তিনি দলের শীর্ষ মহলের সমালোচনা করে বলেন, “বরং দলের ওপরের মানুষদের মাথা গুলিয়ে যায়। মাথা বেতালা হয়।”

দেশের চলমান বিদ্যুৎ পরিস্থিতির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “বিগত চারদলীয় জোট সরকার তাদের শাসনামলে এক মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করেনি বরং কমিয়েছে। একই অবস্থা ছিল তত্ত্বাবধায়ক আমলে।”

প্রধানমন্ত্রী এ সময় বিদ্যুৎ খাতে সরকারর সফলতা তুলে ধরে বলেন, “আমরা তিন বছরে তিন হাজার ৪শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছি। ২১ লাখ গ্রাহককে নতুন সংযোগ দিয়েছি।”

বিদ্যুৎ সংকটের কারণ জানিয়ে তিনি বলেন, “বিগত সাত বছরে এক মেগাওয়াটও বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়নি। এর পাশাপাশি প্রতিদিন নতুন নতুন চাহিদা বাড়ছে। এছাড়াও মানুষের অর্থনৈতিক শক্তি বাড়ার ফলে বিদ্যুতের ব্যবহার বেড়েছে আগের চেয়ে অনেক বেশি।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “দেশে এখন নয় কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। এই ফোনে চার্জ দিতেও তো বিদ্যুৎ লাগে। দেশে তিন কোটি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে। এরজন্যও তো বিদ্যুৎ লাগে। আমরা কিন্তু বসে নেই। আমরা কাজ করে যাচ্ছি।”

মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে মতবিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী স্বাধীন বাংলার প্রথম সরকারের শপথ নেয়ার স্মৃতিচারণা করে বলেন, “মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলায়ই স্বাধীন বাংলার প্রথম সরকারের শপথ নিয়েছিল।”

বাংলাদেশের মানুষ যেকোনো অসাধ্য সাধন করতে পারে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, “বাংলাদেশের ছেলেমেয়ে সবাই পারে এভারেস্টের চূড়ায় উঠতে।”

তিনি বলেন, “আমরা এভারেস্ট জয় করেছি। সমুদ্র জয় করেছি। তাহলে দেশকে কেন ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত করতে পারবো না।”

মতবিনিময় সভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা এবং মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট