Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আইপিএল-এ শ্লীলতাহানি

ঘড়া পূর্ণ হওয়ার যাবতীয় বিতর্কিত উপাদান তো আগেই ছিল!
স্পট ফিক্সিং! নৈশ পার্টি নিয়ে বিতর্ক! আর্থিক লেনদেনে গভীর দুর্নীতি! বিদেশি মুদ্রা সংক্রান্ত আইন ভাঙা! পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের ওপর নিষেধাজ্ঞা! ললিত মোদীর একাধিপত্য এবং তাঁকে ঘিরে নানান আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগ! মন্ত্রীর বান্ধবীকে অবৈধ শেয়ার পাইয়ে দেওয়া আর তার প্রভাবে তৈরি ভারতজোড়া বিতর্কে মন্ত্রীর পদত্যাগ! অতিরিক্ত অর্থ পেয়ে তরুণ ক্রিকেটারদের মনঃসংযোগ নষ্ট হয়ে যাওয়া! মাঠে ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকের সিগারেট খাওয়া নিয়ে মামলা!
গত আটচল্লিশ ঘণ্টায় এর সঙ্গে যোগ হল, সুপারস্টারের স্টেডিয়াম-সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়া! অন্যতম জাতীয় আইকনকে কোনও ক্রীড়া সংস্থার কমিটি বৈঠক ডেকে পাঁচ বছর নির্বাসন! পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর তাঁর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডরের বিরুদ্ধে নেওয়া সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের আবেদন! হোটেল ঘরে প্লেয়ারের সঙ্গে ঘুষোঘুষি। রক্তারক্তি! প্লেয়ারদের হোটেলে পুলিশ ডাকা! অপারেশন টেবিল! টুইট নিয়ে মানহানির মামলার হুমকি! আর সিরিয়াস শ্লীলতাহানির অভিযোগ!
শুক্রবার নয়াদিল্লি থেকে কীর্তি আজাদ বললেন, “রেপটা (মহিলা অবশ্য শ্লীলতাহানির অভিযোগ করেছেন) শুধু বাকি ছিল আইপিএলে। এ বার সেটাও হয়ে গেল।” কীর্তি অবশ্য খেয়াল করেননি, তিনি নিজেও অভূতপূর্ব একটি কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলছেন। আমরণ অনশন। আগামী রবিবার কোটলায় আইপিএল ঘিরে এই ব্যাপারটা ঘটছে। যেখানে কীর্তির সঙ্গে থাকবেন প্রাক্তন কিছু ক্রিকেটার আর তাঁর দাবি অনুযায়ী, কিছু বিশিষ্ট মানুষ।
অনশনের দাবি: আইপিএল হটাও, দেশ বাঁচাও।
লালুপ্রসাদ যাদব থেকে সুব্রহ্মণ্যম স্বামী এ দিন মার্কিন মহিলার শ্লীলতাহানির পর অনেকেই ফের আওয়াজ তুলেছেন, আইপিএল কি আইনের ঊর্ধ্বে? এই বিজাতীয় বস্তুটা আন্তর্জাতিক স্তরে দেশের অপমান ডেকে আনছে। অতএব নিপাত যাক আইপিএল।
লালু এই দাবি তোলায় এ দিন ভারতীয় ক্রিকেটমহলে অনেকেই বেশ কৌতুক বোধ করছেন। দু’বছর আগে এই লালুর ছেলেই বিনা ট্রায়ালে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসে রেজিস্টার্ড প্লেয়ার হয়ে গিয়েছিলেন। তখন বলা হয়েছিল, সেই নির্বাচনটা মোটেও পারফরম্যান্স দেখে করা হয়নি।
লালু একা নন। বৃহস্পতিবার ডিডিসিএ-র তরফে চেতন চৌহান দাবি করেছিলেন, কোটলাতে মাঠের ভেতরে কাউকে ঢুকতে দেওয়া হয় না। বলেন, “আমি শাহরুখের ফ্যান হয়েও বলছি, মাঠের ভেতর শিশুদের নিয়ে যাওয়াটা উচিত হয়নি।” অথচ রাতে আরসিবি-ডিডি ম্যাচ চলার সময় দেখা গিয়েছে স্থানীয় ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের বাচ্চারা সাইডলাইনের ধারে এবং মাঝেমধ্যে মাঠে ঢুকে পড়ে দিব্যি খেলছে।
এ দিন মুম্বই ও ভারতের এক প্রাক্তন ক্রিকেটার বলছিলেন, “ইয়ে হ্যায় আইপিএল। ইন্ডিয়ান প্রবলেম লিগ বলুন আর যা-ই বলুন, এই হল ভারতের গ্রেটেস্ট সোপ অপেরা। যখন পুরোদমে চলে, আর কিছু চলে না।”
অন্তত শুক্রবারের জন্য কথাটা মারাত্মক ঠিক। শাহরুখ খানকে মুম্বই ক্রিকেট সংস্থা পাঁচ বছর বহিষ্কার করেছে, এটাই দিনের হেডলাইন হওয়ার কথা। বিশ্লেষণ হওয়ার কথা, যে সংস্থা গত কাল পর্যন্ত আজীবন সাসপেন্ড করবে বলছিল, তারা হঠাৎ পাঁচ বছরে থেমে গেল কেন? কে বা কারা এই সিদ্ধান্তকে প্রভাবিত করল? সংস্থার প্রেসিডেন্ট বিলাসরাও দেশমুখ কি আদৌ শাহরুখের সঙ্গে কথা বলেছিলেন? মুম্বই ক্রিকেট সংস্থার কি আদৌ আইনি অধিকার আছে আইপিএল ম্যাচ বা বোর্ডের আয়োজিত আন্তর্জাতিক ম্যাচ থেকে কাউকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করার? বিশেষ করে যেখানে দেখা যাচ্ছে রাজীব শুক্লের ভারতীয় বোর্ড আইকনের প্রতি সম্পূর্ণ সহানুভূতিশীল? আজও এত বড় বিতর্কে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স কেন মুখ খুলছে না? কেন মুখে কুলুপ এঁটেছেন নীতা অম্বানী?
অথচ খবরের তীব্রতায় শাহরুখ চলে গেলেন দুইতে। বিতর্কের স্থান মুম্বই থেকে সরে দিল্লিতে। যার কেন্দ্রে এক নিউইয়র্কবাসী মহিলা। যিনি দাবি করছেন, আইপিএলের নৈশ পার্টির পরে এক ক্রিকেটার হোটেলের ঘরে ঢুকে তাঁর শ্লীলতাহানি করেন। যাঁর সম্পর্কে এই অভিযোগ, রয়্যাল চ্যালের্ঞ্জাসের সেই অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার লিউক পোমার্সব্যাচ একটাও ম্যাচ খেলেননি। অস্ট্রেলিয়াতেও যাঁর শৃঙ্খলাভঙ্গের নজির রয়েছে। আইপিএল ইতিহাসে লিউকই প্রথম প্লেয়ার যাঁকে গ্রেফতার করা হল। শুধু শ্লীলতাহানিই নয়, অভিযোগ, ওই মহিলার ভাবী স্বামীকে লিউক এমন মারেন যে তিনি কার্যত কানে শুনতে পাচ্ছেন না। তাঁর অপরাধ, হোটেলের ঘরে মদ্যপ লিউককে তিনি আটকাতে গেছিলেন। আরসিবি দ্রুত প্রেস বিবৃতিতে জানায়, আইন তার নিজের পথে চলুক। পুলিশের সঙ্গে তদন্তে আরসিবি সম্পূর্ণ সহযোগিতা করবে। সংসদে বিজয় মাল্য তখন মিডিয়াকে বলেন, “সম্পূর্ণ ভাবে তদন্তে সাহায্য করবে আরসিবি।” তাঁর শরীরী ভাষা থেকে বোঝা যাচ্ছিল, লিউক টিম মালিকের সহানুভূতি পাবেন না।
পরিস্থিতি ঘুরে যায় বিকেলে। যখন শাহরুখ এবং মার্কিন মহিলাকে সরিয়ে আইপিএল সোপে মুখ্য চরিত্র হয়ে ওঠেন সিদ্ধার্থ মাল্য। আরসিবি টিমটা গত কয়েক বছর তিনিই দেখাশোনা করছেন। সিদ্ধার্থ মাল্য হঠাৎ লিউকের সমর্থনে টুইট শুরু করেন (তত ক্ষণে জাতীয় মিডিয়ার কল্যাণে গোটা দেশ ওই মহিলার বিবৃতি ও তাঁর রক্তাক্ত ভাবী স্বামীর ছবি দেখে ফেলেছে)। ‘ওই মেয়েটা কাল গোটা ম্যাচে আমার গায়ের ওপর ঢলে ঢলে পড়ছিল। তার পর যে ভাবে আমার বিবিএম পিনটা চাইল, তাতে আর যা-ই হোক ওকে আদর্শ ভাবী স্ত্রী বলে আমার মনে হয়নি।’
প্রচণ্ড প্রতিক্রিয়া হয় এই টুইটের। পাল্টা টুইটার জোক্স শুরু হয়ে যায়, ‘খবরদার সিদ্ধার্থ মাল্যর বিবিএম পিন কখনও চেও না। ফেঁসে যাবে।’ নিউজ চ্যানেলের অ্যাঙ্করদের সঙ্গে কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন সিদ্ধার্থ। তাঁর টুইটটা অত্যন্ত সেক্সিস্ট, এই শুনে আরও খেপে যান তিনি। পরে সাংবাদিকদের সঙ্গেও তাঁর তর্কাতর্কি হয়। সিদ্ধার্থর বক্তব্য ছিল, মহিলার কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়। বিচারের আগেই মিডিয়া কী করে লিউককে দোষী বানিয়ে দিচ্ছে! তাদের বরঞ্চ ক্রিস গেইলের অসাধারণ সেঞ্চুরি দেখানো উচিত। লিউক জামিন পাওয়ার পর কেউ কেউ আঙুল তোলেন আইপিএলের কর্তাদের দিকে। প্রশ্ন, উদ্দাম রাতের পার্টি কি আইপিএল চালিয়ে যাবে? শুনে চটে যান রাজীব শুক্ল। বলেন, “একটা পার্টিও আমরা দিচ্ছি না। ওগুলো স্পনসরদের পার্টি।”
শাহরুখ নিয়ে আলোচনাও দিনভর চলেছে। আইপিএল চেয়ারম্যান রাজীব শুক্ল পরিষ্কার করে দেন, ‘সোপ’ এমন মহা-উত্তেজক অবস্থায় যে, সারা দিনে কেউ জিজ্ঞেসই করেনি, শনিবার দাদা বনাম খানে কী হতে পারে? গত ৫ মে এই ম্যাচটা নিয়েই যে ভারত আলোড়িত ছিল, ঠিক এই মুহূর্তে বোঝার উপায় নেই। কেউ জানতেও চাইছে না, ওয়াংখেড়েতে ব্রাত্য শাহরুখ কি পুণের সুব্রত রায় স্টেডিয়ামে পা রাখছেন? শেষ খবর, বন্ধু ব্যবসায়ীর ব্যক্তিগত বিমানে তাঁর কিন্তু পুণে যাওয়ার কথা।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


2 Responses to আইপিএল-এ শ্লীলতাহানি

  1. rashed mahmud

    May 20, 2012 at 1:59 am

    like

  2. rashed mahmud

    May 20, 2012 at 1:59 am

    ftft