Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

এক মাসেও সন্ধান মেলেনি ইলিয়াস জীবিত না মৃত?

সাহাদাত হোসেন পরশ
কী ঘটেছে বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর ভাগ্যে? ইলিয়াস জীবিত, নাকি মৃত? ইলিয়াসের পরিবার কি কোনো নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি হচ্ছেন? তিনিও কি বিএনপি নেতা চৌধুরী আলম ও জামালউদ্দিনের মতো চিরদিনের জন্য ‘নিরুদ্দেশ’ থাকবেন? ‘নিখোঁজ’ হওয়ার ৩০ দিন পরও এম ইলিয়াস আলীর সন্ধান না মেলায় এমন আশঙ্কা আর উদ্বেগের কথাই সবার মনে ঘুরপাক খাচ্ছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ পর্যায় থেকেও ইলিয়াসের সন্ধান নিয়ে কোনো আশার কথা শোনা যাচ্ছে না। তাদের বক্তব্য, ‘নাথিং নিউ’, ‘নো ক্লু’, ‘নো ফাইন্ডিংস’। ইলিয়াসকে উদ্ধার নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বক্তব্যে তাকে জীবিত পাওয়ার সম্ভাবনা খুব ক্ষীণ বলেই প্রতিপন্ন হয়। সময় পার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের মধ্যেও হতাশার কালো মেঘ গভীর হচ্ছে। তবু ক্ষীণ আশা জিইয়ে রাখছেন স্বজনরা। এখনও ‘আল্লাহর ওপর ভরসা’ নিয়ে তার ফেরার প্রতীক্ষায় আছেন ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদীর লুনা।
গত ১৫ দিন ইলিয়াসের সন্ধানে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দৃশ্যত কোনো অভিযান হয়নি। সূত্র জানায়, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একটি বড় অংশের ধারণা, ইলিয়াস আলীকে জীবিত পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। তাই অভিযান নিয়েও তেমন কোনো তৎপরতা নেই। বনানী থানা পুলিশ প্রতি ৪৮ ঘণ্টা পর আদালতে তদন্তের যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করে, সে প্রতিবেদনেও ইলিয়াসের ‘নিখোঁজ’ রহস্য সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কোনো তথ্য নেই। গতানুগতিকভাবে প্রায় একই ধরনের প্রতিবেদন দাখিল করা হচ্ছে। পুলিশ মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার সমকালকে বলেন, ইলিয়াসের
সন্ধান পেতে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছি। আমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে চেষ্টার কোনো ত্রুটি করছি না।
র‌্যাব মহাপরিচালক মোখলেসুর রহমান সমকালকে বলেন, ইলিয়াসকে উদ্ধারে র‌্যাবের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। র‌্যাবের একাধিক টিম ঘটনার তদন্ত করছে। গত ৩০ দিনে ইলিয়াসকে উদ্ধারের কোনো ক্লু পাওয়া গিয়েছে কি-না, এ প্রশ্নের জবাবে মোখলেসুর রহমান বলেন, কোনো ক্লু পেলে তো তাকে উদ্ধার করাই যেত।
র‌্যাবের মহাপরিচালক বলেন, ইলিয়াস আলীকে খুঁজে পেতে র‌্যাব অভিযান চালাচ্ছে। সব অভিযান তো দৃশ্যমান হয় না। কোথাও থেকে তথ্য আসার পরপরই র‌্যাব তাৎক্ষণিক সেটি যাচাই করছে।
ইলিয়াস আলীর ছেলে আবরার ইলিয়াস সমকালকে বলেন, ৩০ দিন পরও বাবার সন্ধান না পাওয়ায় তাদের হতাশা বাড়ছে। তবু আশা ছাড়েননি। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করছেন, যাতে তার বাবাকে ফিরে পান। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও তাদের কোনো আশার বাণী শোনাতে পারেনি।
ঘটনাবহুল ৩০ দিন : ১৭ মে রাতে বনানীর ২ নম্বর সড়ক থেকে ইলিয়াস আলী তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক মোঃ আনসারসহ ‘নিখোঁজ’ হন। ইলিয়াসকে খুঁজে পেতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট দু’দফায় পাঁচদিন হরতাল পালন করে। উত্তাল হয় রাজপথ। হরতালে সহিংসতায় তিন ব্যক্তি নিহত হন। ইলিয়াসকে উদ্ধারে তার পরিবারের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রধানমন্ত্রীও তাদের আশ্বস্ত করেন। ইলিয়াস ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের কাছে বিএনপির অভিযোগ, হিলারিকে ইলিয়াসের শিশুকন্যা সাইয়ারার মর্মস্পর্শী চিঠি, থানায় জিডি, আদালতের শরণাপন্ন_ কোনো কিছুরই কমতি নেই। এতসবের পরও ইলিয়াস আলীর সন্ধান মেলেনি। ইলিয়াস ইস্যুতে একাধিকবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথাও বলেছেন তার স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা। তার দাবি, রাজনৈতিক কারণেই তার স্বামী ‘নিখোঁজে’র শিকার হয়েছেন।
সম্ভাবনা ক্ষীণ হচ্ছে : ইলিয়াসকে উদ্ধারে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা গাজীপুরের পূবাইল, গজারিয়া গ্রাম, টাঙ্গাইল ও মুন্সীগঞ্জে অভিযান চালায়। তবে সব অভিযানের ফল ছিল শূন্য। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা শতাধিক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদও করে। জিজ্ঞাসাবাদে ইলিয়াস ‘নিখোঁজ’ রহস্যের কোনো ক্লু পাওয়া যায়নি। রূপসী বাংলা হোটেল থেকে ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে পরীক্ষা করে ডিবি-র‌্যাব। অনেকের মন্তব্য, ইলিয়াসকে জীবিত পাওয়া গেলে নিখোঁজ হওয়ার পরপরই পাওয়া যেত। এতদিন পর তাকে জীবিত পাওয়ার সম্ভাবনা কম। সম্প্রতি দেশের কোথাও অজ্ঞাতপরিচয় লাশ বা কঙ্কাল পাওয়া গেলে গুজব ছড়িয়ে পড়ে_ লাশ বা কঙ্কালটি ইলিয়াসের।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট