Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হুদাকে রাখার পক্ষেই মত আওয়ামী লীগের

দীন ইসলাম: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বর্তমান সিইসি এটিএম শামসুল হুদাকে আবারও প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের পক্ষে মত দিয়েছে। এ জন্য পাঁচ জনের একটি তালিকা সার্চ কমিটির কাছে পাঠিয়েছে দলটি। নতুন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এবং নির্বাচন কমিশনার (ইসি) নিয়োগে গঠিত সার্চ কমিটির কাছে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুল আলম হানিফ স্বাক্ষরিত নামের তালিকা গতকাল বিশেষ দূত মারফত পাঠানো হয়। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ মানবজমিনকে বলেন, নাম পাঠানোর প্রক্রিয়ার সঙ্গে আমি জড়িত নই। তাই এ বিষয়ে আমি আপাতত কিছু বলতে পারছি না। তার স্বাক্ষরে কোন চিঠি সার্চ কমিটির কাছে গিয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়টি অনেক স্পর্শকাতর। তাই এ বিষয়ে পরে কথা বলবো। আওয়ামী লীগের বিশেষ সূত্র থেকে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, তালিকায় এটিএম শামসুল হুদাকে সিইসি রেখে নির্বাচন কমিশনার হিসেবে বর্তমান স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সচিব মুহম্মদ হুমায়ুন কবিরের নাম প্রস্তাব করেছে। এ আমলা নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় নির্বাচন কমিশনের সচিব পদে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তাকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে নিয়োগ করা হয়। বর্তমানেও তিনি এ পদে কর্মরত রয়েছেন। এছাড়া, সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন্নেসা খানমকেও নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ দেয়ার প্রস্তাব করেছে আওয়ামী লীগ। মুক্তিযোদ্ধা এ কর্মকর্তা সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিবের দায়িত্ব পালন শেষে এখন তিনি অবসরে আছেন। এ দুই জন ছাড়া সাবেক অতিরিক্ত সচিব আবু হাফিজ এবং এএফজি মঈন উদ্দিনকে নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ করার প্রস্তাব করেছে আওয়ামী লীগ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এ দুই কর্মকর্তা আওয়ামী ঘরানার কর্মকর্তা হিসেবে প্রশাসনে পরিচিত।
বিএনপি নাম দেয়নি
গতকাল সার্চ কমিটিতে রাজনৈতিক দলগুলোর ইসি নিয়োগে নাম দেয়ার শেষ দিনে বিএনপি কোন নাম দেয়নি। অবশ্য বিএনপি নেতারা আগে থেকেই বলে আসছেন সার্চ কমিটিতে তারা কোন নাম দেবেন না। তারা সার্চ কমিটির বৈধতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন।
অন্য দলগুলো যাদের নাম দিয়েছে সার্চ কমিটিতে
পরবর্তী নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের জন্য দেশের অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর নামের প্রস্তাব পেয়েছে সার্চ কমিটি। তা থেকে সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরির কাজ শুরু করেছেন কমিটির সদস্যরা। প্রেসিডেন্ট গঠিত এই সার্চ কমিটির সদস্যরা গতকাল আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের কক্ষে বৈঠক করেন। এই কমিটি পরবর্তী নির্বাচন কমিশনারদের নাম প্রস্তাব করতে রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে নামের যে প্রস্তাব করেছিল, তা গতকাল বিকালেই শেষ হয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলো জোটগতভাবে নয়, দলগতভাবে সার্চ কমিটির কাছে নাম পাঠিয়েছে। গতকাল বিকাল পর্যন্ত জাতীয় পার্টি (এরশাদ), বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (ডব্লিউপি), জাসদ (ইনু), জাতীয় পার্টি (জেপি), বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনসহ কয়েকটি দল সার্চ কমিটির কাছে নাম পাঠিয়েছে। জাসদ (ইনু) সূত্রে জানা গেছে, মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদসহ আরও কয়েকজনকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগ দেয়ার প্রস্তাব করে নাম পাঠিয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাসদ (ইনু) চেয়ারম্যান হাসানুল হক ইনু বলেন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) কারও নাম প্রস্তাব করে সার্চ কমিটিতে নাম দেয়নি। বিষয়টি সম্পর্কে সিপিবি’র সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম মানবজমিনকে বলেন, সার্চ কমিটিতে আমরা কোন নাম পাঠাইনি। আমি মনে করি নাম ঠিক করার দায়িত্ব সার্চ কমিটির। সিইসি ও ইসি নিয়োগের জন্য আমরা কয়েকটি মাপকাঠি নির্ধারণ করে দিয়েছি। সে অনুযায়ী ইসি গঠন করলেই হয়। জাতীয় পার্টি (জেপি) তাদের দলের অতিরিক্ত মহাসচিব সাদেক সিদ্দিকীর স্বাক্ষরে একটি তালিকা পাঠিয়েছে। ওই তালিকায় সাবেক যোগাযোগ সচিব রেজাউল হায়াতসহ আরও চার জন সাবেক আমলার নাম রয়েছে। গতকাল সার্চ কমিটির বৈঠকের পর এই বিষয়ে জানতে চাইলে কমিটির সদস্য মহাহিসাব নিরীক্ষক আহমেদ আতাউল হাকিম সাংবাদিকদের জানান, আমরা বেশকিছু নাম পেয়েছি। দুই- একদিনের মধ্যে সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করবো। এই কমিটি প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার হিসেবে প্রতিটি পদের বিপরীতে দুজনের নাম প্রস্তাব করবে প্রেসিডেন্টের কাছে। সংবিধান অনুযায়ী, প্রেসিডেন্ট নির্বাচন কমিশন গঠন করবেন। এটিএম শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ আগামী মাসের মাঝামাঝি সময়ে শেষ হচ্ছে। তার আগে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনার পর সমপ্রতি প্রেসিডেন্ট সার্চ কমিটি গঠন করেন। চার সদস্যের কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারক মো. নূরুজ্জামান ও সরকারি কর্মকমিশনের চেয়ারম্যান এটি আহমেদুল হক চৌধুরী।
জেলা জজ ও রেজিস্ট্রারদের নাম নিয়ে আলোচনা
গতকাল বিকাল চারটায় সার্চ কমিটির চতুর্থ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকে রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে পাওয়া নাম ছাড়াও সুপ্রিম কোর্টের সাবেক রেজিস্ট্রার, সাবেক জেলা জজদের তালিকা নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত তালিকা ধরে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। তবে কোন ধরনের সিদ্ধান্ত এখনও পর্যন্ত হয়নি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামীকালকে টার্গেট ধরে এগুচ্ছে সার্চ কমিটি।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট