Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

নবীগঞ্জের প্রিয়মুখ হাদী গাজী আর নেই

নবীগঞ্জের পরপর তিনবার নির্বাচিত জনপ্রিয় উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম সরওয়ার হাদী গাজী আর নেই (ইন্নালিল্লাহি… রাজিউন)। তিনি গতকাল বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৪টায় লন্ডনের ফোর্স মাউথ এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। তিনি জটিল ক্যান্সারে দীর্ঘ ৩ বছর ধরে ভুগছিলেন। তার মৃত্যুতে হবিগঞ্জের সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার লাশ কবে দেশে আসবে এখনও তারিখ নির্ধারণ হয়নি। নিহতের প্রথম জানাজা লন্ডনে অনুষ্ঠিত হবে। দ্বিতীয় জানাজা তার নির্বাচনী এলাকা জন্মভূমি নবীগঞ্জের দিনারপুরে দেবপাড়া ঈদগাহ মাঠে এবং দেবপাড়ার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে। দেওয়ান হাদী গাজীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, সমাজকল্যাণমন্ত্রী এনামুল হক মোস্তাফা শহীদসহ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সিনিয়র নেতারা। গোলাম সরওয়ার হাদী গাজী হযরত শাহজালালের অন্যতম সফরসঙ্গী হযরত তাজউদ্দিন কোরেশী (রহ.)-এর ১৭তম বংশধর ছিলেন। ১৯৪১ সালে তিনি  নবীগঞ্জের দিনারপুর পরগনার দেবপাড়া গ্রামে এক জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।  তিনি ১ ছেলে ২ কন্যা সন্তানের জনক ছিলেন। দেওয়ান হাদী গাজী ৬৬’র ছয়দফা আন্দোলন, ৬৯’র ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান, ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধ) ৯৪-এর সিলেট বিভাগ আন্দোলনসহ দেশের সবক’টি ঐতিহাসিক কর্মকাণ্ডে ছিলেন প্রথম কাতারে। ১৯৬৬-৬৮ সালে ছয়দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ সালে আইয়ুব খান বিরোধী আন্দোলনে অগ্রসৈনিক ছিলেন। ১৯৬৫ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত সিলেটের সাপ্তাহিক যুগভেরী পত্রিকার মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ছিলেন। ১৯৬৯ সালে আওয়ামী লীগ ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ থেকে ছাত্র সংসদের জিএস নির্বাচিত হন। ১৯৭৭ সালে তিনি নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের নির্বাচনে তার আপন চাচা দেওয়ান শহীদ গাজীকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি ইউপি চেয়ারম্যান পদে পরপর দুইবার নির্বাচিত হওয়ার পর ১৯৮৪ সালে স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ থেকে জাতীয় পার্টিতে যোগদান করে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিপুল ভোটে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। পরপর দুইবার উপজেলা চেয়ারম্যান হন। একাধিকবার সরকারের রোষানলে পড়ে কারাবরণ করতে হয়েছে তাকে। তিনি ১৯৭৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে মৌলভীবাজার সদর আসনে জাসদ থেকে প্রার্থী হিসাবে অংশ নিয়ে পরাজিত হন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট