Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে জটিলতা

কাজী সোহাগ: বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে দেখা দিয়েছে জটিলতা। ওই প্রকল্প শুরু না হতেই বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে ২০টি দেশ। এরই মধ্যে তারা আপত্তিও জানিয়েছেন। বিষয়টি এখন জাতিসংঘের ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ)-এর সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে। এর আগে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে ১০২ ডিগ্রিতে স্লট চেয়ে আইটিইউ-এর কাছে আবেদন করে। কারণ, এ স্লট দেয়ার কর্তৃপক্ষ হচ্ছে আইটিইউ। এ আবেদনের পর যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, রাশিয়া, অস্ট্রেলিয়াসহ এশিয়া মহাদেশের কয়েকটি দেশ ও মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশ আপত্তি জানায়। এসব দেশের বক্তব্য ১০২ ডিগ্রিতে বাংলাদেশের স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হলে তাদের স্যাটেলাইটে ফ্রিকোয়েন্সি পেতে সমস্যা তৈরি হতে পারে। তবে এ ইস্যুতে অনেকটা অনড় বিটিআরসি। ডাক তার ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির পক্ষ থেকেও তারা এ নিয়ে অকুণ্ঠ সমর্থন পেয়েছে। সমপ্রতি কমিটির বৈঠকে চলতি বছরের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের বাধা দূর করার সুপারিশ করা হয়। এ প্রসঙ্গে কমিটি সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, এ নিয়ে কোন বাধা মেনে নেয়া হবে না। সরকার স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা যুগান্তকারী। বাংলাদেশের আকাশসীমা নিয়ে অন্য কোন দেশের হস্তক্ষেপ অযৌক্তিক। কারণ মহাকাশ কারও জমিদারি নয়। আমরা আইন অনুযায়ী এগোচ্ছি। এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কোন কারণ নেই। তিনি বলেন, আমরা ১০২ ডিগ্রি না ১৩২ ডিগ্রিতে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করবো- এটা আমাদের বিষয়। আইটিও এ ব্যাপারে যথাযথ সিদ্ধান্ত দেবে। কোন দেশ আপত্তি জানালো- এ নিয়ে আমাদের মাথাব্যথা নেই। গত ২৮শে মার্চ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান স্পেস পার্টনারশিপ ইন্টারন্যাশনাল (এসপিআই)-এর সঙ্গে চুক্তি করে বিটিআরসি। সংসদীয় কমিটিকে বিটিআরসি জানিয়েছে, আপত্তি জানানো দেশগুলোর সঙ্গে এসপিআই আলোচনায় বসে এর সমাধান করবে। একই সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বিকল্প উপায়ও খুঁজছে বাংলাদেশ। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ যদি ১০২ ডিগ্রিতে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের অনুমোদন না পায়, তাহলে বিকল্প প্রস্তাব দেয়া হবে ৬৯ ডিগ্রি পূর্বে। তবে এতে একই কারণ দেখিয়ে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, চীনের মতো দেশ আপত্তি জানাতে পারে। বিটিআরসি জানায়, এসপিআই বিষয়টি সমন্বয় করবে, যাতে কোন দেশের জন্যই সমস্যা না হয়। বর্তমানে বিদেশী স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি ভাড়া নিয়ে টেলিভিশন চ্যানেল, টেলিফোন, রেডিওসহ অন্যান্য যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। এতে প্রতি বছর ভাড়া বাবদ বাংলাদেশকে ১১ মিলিয়ন ডলার গুণতে হয়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চালু করতে পারলে দেশে শুধু বৈদেশিক মুদ্রারই সাশ্রয়ই হবে না, সেই সঙ্গে অব্যবহৃত অংশ নেপাল, ভুটান ও মিয়ানমারের মতো দেশে ভাড়া দিয়ে প্রতি বছর ৫০ মিলিয়ন ডলার অর্থ আয় করা যাবে। বর্তমানে আইটিইউতে ২৪টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ কাউন্সিলর হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছে। এই হিসেবে আইটিইউ’র কাছে বাংলাদেশের গুরুত্ব একটু বেশিই হবে বলে সংশ্লিষ্টরা প্রত্যাশা করছেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


2 Responses to বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিয়ে জটিলতা

  1. l.r.rubel

    May 8, 2012 at 4:08 pm

    go ahead! do not stop to hear any 3rd person’s signal.

  2. Dushor

    May 8, 2012 at 9:18 pm

    Purai bindash.. amra akash e amra pathabo,onader ki … jotoshob faul ……