Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম থেকে অব্যাহতি চেয়েছেন হারুন-অর-রশীদ

ঢাকা, ২ মে: সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম থেকে অব্যাহতি চেয়ে আবেদন করেছেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সেনাপ্রধান লে জে অব. হারুন-অর-রশীদ।

বুধবার ফোরামের চেয়ারম্যান এ কে খন্দকারের কাছে অব্যাহতির জন্য তিনি এ আবেদন করেন।

ডেসটিনি গ্রুপের সঙ্গে থাকায় তাকে জড়িয়ে সেক্টর কমান্ডারস ফোরামকে হেয় ও বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস চলছে বলে আবেদনপত্রে উল্লেখ করেন হারুন-অর-রশীদ।

ফোরাম থেকে অব্যাহতি চেয়ে আবেদন করলেও ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট হিসেবে বহাল রয়েছেন হারুন-অর-রশীদ।

আবেদনে বলা হয়, “প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তিনি সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সঙ্গে জড়িত। ফোরাম যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে কাজ করে যাচ্ছে। সংগঠনটি সব ধরনের বিতর্কের ঊর্ধ্বে। এতে এমন সব ব্যক্তি রয়েছেন, যারা সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে বিভিন্ন সেক্টরে নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছেন।”

আবেদনে হারুন-অর-রশীদ বলেন, “ভিন্ন পরিচয়ে আমি ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট। কিন্তু কিছু গণমাধ্যম অপপ্রচার চালিয়ে গণমানুষের ভালোবাসার প্রতিষ্ঠান ডেসটিনির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের চেষ্টা করছে। ফোরামকে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াসও লক্ষ্য করছি। ফোরামকে জড়িয়ে আমাকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করা হয়েছে। এটি ফোরাম ও আমার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের অপচেষ্টা বলেই আমি বিশ্বাস করি।”

ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট আবেদনে বলেন, “ফোরাম ও আমাকে জড়িয়ে বিরূপ মন্তব্যের কারণে সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের চলমান কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হতে পারে। আমার কারণে ফোরামের সামান্যতম ক্ষতি হোক, তা কখনোই আমার কাম্য নয়। এ কারণেই ফোরামের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”
এই অব্যাহতির মধ্য দিয়ে তাকে জড়িয়ে ফোরামকে বিতর্কিত করার অপপ্রয়াস বন্ধ হবে বলে তিনি মনে করেন।

এদিকে, ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ আলাদা এক বিবৃতি দিয়েছেন হারুন-অর-রশীদ। এতে তিনি বলেছেন, “ডেসটিনি বিষয়ে বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সাক্ষাত্কার চাওয়া হয়। এ জন্য অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেন ডেসটিনির দুজন ক্রেতা-পরিবেশক। সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়নি, আমি নিজেও করিনি। মন্ত্রীর সঙ্গে ডেসটিনির শীর্ষ নির্বাহীদের সাক্ষাত্প্রক্রিয়ায় সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এ নিয়ে কোনো প্রতারণারও অবকাশ নেই।”

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, “অর্থমন্ত্রী ডেসটিনির শীর্ষ নির্বাহীদের সাক্ষাত্কারের সময় দেন ২৯ এপ্রিল বিকেল তিনটায়। মন্ত্রীর দফতর থেকে আমার এবং ডেসটিনি গ্রুপের চেয়ারম্যান রফিকুল আমীন, ডেসটিনি ২০০০-এর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসাইন এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ সাঈদ-উর-রহমানের নামে পাস ইস্যু করা হয়। কাজেই ছদ্মাবরণে মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার কোনো অবকাশ নেই।”

বিবৃতিতে বলা হয়, “সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর দফতরে গিয়ে সাক্ষাত্কারের জন্য অপেক্ষা করতে থাকি। তবে অর্থমন্ত্রী নানা বিবেচনায় শেষ পর্যন্ত আমাদের সাথে সাক্ষাত্ করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।”

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট