Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আসামে ডুবে যাওয়া ফেরির যাত্রী উদ্ধারে নেমেছে বিজিবি

ঢাকা, ১ মে: ভারতের আসামে ব্রহ্মপূত্র নদের বাংলাদেশ সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় ডুবে যাওয়া ফেরির যাত্রীদের উদ্ধার তৎপরতায় দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে (বিএসএফ) সহায়তা করছে বাংলাদেশের বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ)।

সোমবার সন্ধ্যায় ঝড়বৃষ্টির মধ্যে পড়ে ৩০০’র বেশি যাত্রী বোঝাই দোতলা ফেরিটি দুইভাগ হয়ে ডুবে যায়। রাজ্য পুলিশের প্রধান জেএন চৌধুরী আল-জাজিরাকে এ কথা জানিয়েছেন।

জনাব চৌধুরী বলেন, রাজ্যের রাজধানী গৌহাটি থেকে ৩০০ কিলোমিটার পশ্চিমে ধুবড়ি জেলার ফকিরহাটের কাছে যেখানে ফেরিটি ডুবেছে- তা বাংলাদেশ সীমান্তের খুব কাছে। এ পর্যন্ত ১০৩ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ১৫০’র বেশি যাত্রী এখনো নিখোঁজ রয়েছে।

ক্যালকাটা টেলিগ্রাফকে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফে’র প্রথম ব্যাটালিয়নের কমান্ড্যান্ট অলোক সিংহ জানিয়েছেন, সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে খবর পাওয়ার পরপরই তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার অভিযান শুরু করেন। কোনো ডুবুরি না থাকার কারণে মাছ ধরার জাল ছড়িয়ে দেয়া হয় দুর্ঘটনাস্থলে সেখান থেকে ৩৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়। উদ্ধারকৃতরা জানিয়েছে তারা প্রায় ৫০ জন ফেরির ছাদে বসেছিলেন।

শিলংয়ে বিএসএফে’র মুখপাত্র রবি গান্ধী জানিয়েছেন, ‘‘নিখোঁজ যাত্রীদের সীমান্তের অন্য পাশের নদীতে খুঁজতে ঘটনার পরপরই আমরা বিজিবিকে অবহিত করেছি।’’ তিনি জানান, সোমবার সন্ধ্যা থেকেই বিজিবি উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেছে।

আসামের ধুবড়ি জেলায় বাংলাদেশের সঙ্গে নৌসীমান্ত রয়েছে ভারতের। বিএসএফ আশা করছে এখানে বিজিবি’র সঙ্গে তাদের যৌথ তৎপরতায় হয়তো অনেককেই খুঁজে পাওয়া যাবে।

গান্ধী জানান, ‘‘প্রমত্তা ব্রহ্মপুত্রে বিজিবি ও বিএসএফ বেশ কয়েকটি নৌযান নিয়োজিত করেছে উদ্ধারকাজে। আক্রান্ত যাত্রীদের রক্ষায় আমরা সচেষ্ট।’’

তিনি বলেন, ‘‘প্রবল স্রোত ও বাতাসের কারণে দুই দেশের সীমান্তরক্ষীরাই উদ্ধার কাজে সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে।’’

একই কারণে অনেক যাত্রীই নদীর ভাটিতে বাংলাদেশ অংশে ভেসে গেছেন বলে মনে করছে বিএসএফ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট