Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

দিনার ও জুনায়েদের খোঁজ মেলেনি ২৭ দিনেও

ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে: ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার আগে নিখোঁজ হয়েছেন সিলেট জেলা ছাত্রদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার আহমদ দিনার। সঙ্গে ছিলেন তার সহকর্মী জুনায়েদ আহমদ। তিনিও দিনারের সঙ্গে নিখোঁজ। সিলেটের ছাত্রদল কর্মী শওকত খুনের মামলায় পলাতক থাকা অবস্থায় ৩রা এপ্রিল ঢাকার উত্তরা থেকে নিখোঁজ হলেও ২৭ দিনে মেলেনি তাদের কোন সন্ধান। তবে গত শুক্রবার রাত ১টা ৫৫ মিনিটে হঠাৎ খোলা পাওয়া যায় জুনায়েদের মোবাইল নম্বর। ফোন দিলে অপরপ্রান্ত থেকে ‘রং নাম্বার’ বলে লাইন কেটে দেয়। শনিবার সিলেটের দায়ের করা জিডিতে জুনায়েদের পরিবার এই তথ্য জানিয়ে এই ফোন নাম্বারের সূত্র ধরে তদন্ত চালাতে পুলিশের কাছে আকুতি জানিয়েছেন। পরিবারের সদস্যরা জানান, দিনার ও জুনায়েদ নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে পরিবারটি। তারা অপেক্ষায় রয়েছেন কখন আসবে তারা।
পরিবারের আকুতি: ‘প্রধানমন্ত্রীও স্বজনহারা। তিনি বোঝেন স্বজনহারাদের বেদনা। আমাদের আর্তনাদ শুনবেন প্রধানমন্ত্রী। তিনিই একমাত্র পারেন দিনারকে খুঁজে বের করতে। প্রধানমন্ত্রীকে বলছি, দিনারের দু’টি সন্তানের মুখের পানে চেয়ে একবার আপনি দয়া করুন। আল্লাহ আপনার ভাল করবে। আমার ছেলেকে তার সন্তানের কাছে ফিরিয়ে দিন’-এই কথাগুলো বলে আর্তনাদ করছিলেন সিলেটের নিখোঁজ ছাত্রদল নেতা দিনারের মা গওহর পারভীন। কথা বলার সময় তিনি হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন। দিনারের পিতা ডা. মঈন উদ্দিন আহমদ জানিয়েছেন, আমরা এমন দুর্ভাগা যে কোনভাবেই দিনারের খোঁজ করতে পারছি না। একজন পিতা হিসেবে এটা আমার ব্যর্থতা। আমরা এখনও তার খোঁজ পেলাম না। দিনারের স্ত্রী প্রিসিলা পারভীন পিংকি বলেন, আমি দু’টি বাচ্চার প্রশ্নের জবাব দিতে পারছি না। তারা বার বার আমার কাছে বাবার সন্ধান করছে। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী চেষ্টা রাখলেই অবশ্যই দিনারকে খুঁজে পাওয়া যাবে। আমরা জান চাই, আর কিছুই চাই না। দিনারের ছোট মামা এহসানুল হক তাহের বলেন, আমাদের কান্না থামছে না। নাওয়া-খাওয়া ভুলে আমরা দিনারের অপেক্ষায় আছি। দিনার ফিরে না এলে আমরা প্রয়োজনে আমরণ অনশন কর্মসূচি শুরু করবো।
পরিবারের অবস্থান কর্মসূচি: সকাল থেকে বেলা একটা পর্যন্ত সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে পরিবারটি। তারা বলেন, ২৫ দিন পার হয়ে গেলেও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দিনারের কোন খোঁজ দিতে পারছে না। এর আগে গত ৬ই এপ্রিল সিলেটে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি নেতারা অভিযোগ করেন, গত ৩রা এপ্রিল বিকালে রাজধানীর উত্তরা থেকে সাদা পোশাকধারী আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ইফতেখার আহমদ দিনারকে ধরে নিয়ে যায়। এসময় দিনারের সঙ্গে জুনেদ আহমদ নামের আরও একজন ছাত্রদল কর্মী ছিল। তাকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ওই সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন বিএনপি’র নিখোঁজ সাংগঠনিক সম্পাদক এম. ইলিয়াস আলী। সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে কর্মসূচি পালনকালে পরিবারের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন- দিনারের পিতা ডা. মঈন উদ্দিন আহমদ, মা গওহর পারভিন, শ্বশুর এডভোকেট আব্দুল গাফফার, শাশুড়ি খুশনুর গাফফার, স্ত্রী প্রিন্সিলা পারভিন পিংকি, মেয়ে মায়িশা, ছেলে রাইয়ান, দিনারের ছোট ভাই ইসফাক আহমদ, ইসমাম আহমদ, বোন তাহসিন শারমিন তামান্না, হাবিবা হান্নান তাহমিনা তুষি, ভগ্নিপতি শামীম আহমদ, একেএম নুরুল আম্বিয়া রিপন, ভাগ্নে ইশান, ভাগ্নি আরিয়ানা, নানা প্রাক্তন শিক্ষক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ মোহাম্মদ ফজলুল হক, নানী হামিদা খানম, খালা সাহারা শিরিন চৌধুরী, ফাতেমা জহুরা জুবেলীন, নুরুন নাহার শিপা, শাহনাজ বেগম মুন্নি, লাইলি বেগম, খালু মো. আব্দুর রব চৌধুরী, বড় মামা এহতেশামুল হক বাহার, মামা লুৎফুর রহমান চৌধুরী ইয়াহইয়া, আফছার উদ্দিন ওয়েছ, মো. বদরুল ইসলাম,  মামি রাহেনা হক চৌধুরী, দিলারা ইয়াসমিন শিউলি, খালাতো ভাই আশরাফুল কবির লিমন, চাচা কাউন্সিলর ছালেহ আহমদ সেলিম, গিয়াস উদ্দিন আহমদ, নজির আহমদ, আব্দুল মুকিত, নজরুল ইসলাম, নানা ডা. ফখর উদ্দিন আহমদ, মো. আব্দুল খালিক। ছোট মামা মো. এহছানুল হক তাহেরের পরিচালনায় একাত্মতা পোষণ করে জেলা ও মহানগর বিএনপি’র নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নাসিম হোসাইন, তারেক আহমদ চৌধুরী, আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি, কাউন্সিলর রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল, এইচ এম খলিল, ছাত্রদল নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে নুরুল আলম সিদ্দিকী খালেদ, লোকমান আহমদ তালুকদার, শাহ রুমেল, ফখরুল ইসলাম, বুরহান উদ্দিন, শাহেদ বক্ত, মিজানুর রহমান মিজান, শিহাব উদ্দিন, মো. মনিরুজ্জামান, ইকবাল হোসেন খান, জাবলু আহমদ, সৈয়দ শাখায়াতুল আম্বিয়া, আব্দুর রউফ, নোমান চৌধুরী, উমেদুর রহমান চৌধুরী উমেদ, নাজিম উদ্দিন, ইউপি সদস্য গিয়াস আহমদ, বুরহান আহমদ রাহেল, বাবর আহমদ, আশিক আহমদ বুলন, সালাহ উদ্দিন রিমন, লিয়াকত আলী, ফয়সল আহমদ,  সজল আহমদ, জুয়েল আহমদ, মনসুর আহমদ চৌধুরী, ইব্রাহিম আমিন, সামাজিক অরাজনৈতিক সংগঠন সিলেট কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মো. জিয়াউর রহমান জিয়া, আলী আহসান হাবিব, একে কামাল হোসেন, মো. হাসান তালুকদার সোহেল, মো. আজিজুর রহমান আজিজ, আবু সাদাত সায়েম, মো. শাহ আলম, হুমায়ুর রশিদ শাহীন, মো. সহির উদ্দিন, রুহেল আহমদ বক্ত তুষার, গোলাপগঞ্জ বিয়ানীবাজার যুব সংঘের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামাদ আহমদ।
জুনেদের পরিবারের জিডি: সিলেট জেলা ছাত্রদল কর্মী জুনেদ আহমদ নিখোঁজের ২০ দিন পর তার মোবাইল ফোন খোলা পাওয়া গেছে দাবি করে মহানগরীর শাহপরান থানায় সাধারণ ডায়েরি হয়েছে। শনিবার জুনেদ আহমদের ভাই হাসান মঈনউদ্দীন আহমদ মঈনুল এ ডায়েরি (নং-৯৯৩) করেন। ছাত্রদল কর্মী জুনেদ ৯ই এপ্রিল ঢাকার উত্তরা থেকে জেলা ছাত্রদলের সহ সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার আহমদ দিনারের সঙ্গে নিখোঁজ হন বলে তার পরিবার দাবি করেছে। সাধারণ ডায়েরিতে মঈনুল দাবি করেন, তার ভাই জুনেদ নিখোঁজের পর থেকে মোবাইল ফোনও বন্ধ ছিল। গত শুক্রবার রাত ১টা ৫৫ মিনিটে তার ফোন খোলা পাওয়া যায়। কয়েকবার ফোন করার পর অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি ‘রং নাম্বার’ বলে গভীর রাতে ফোন করার জন্য গালিগালাজ করে লাইন কেটে দেয়। পরে কল করা হলে আবারও ফোন বন্ধ করে দেয় ওই ব্যক্তি। সাধারণ ডায়েরিতে মঈনুল উল্লেখ করেন, মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে তদন্ত চালালে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তার ভাইয়ের সন্ধান পেতে পারে। এ ব্যাপারে তিনি র‌্যাব-পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সহযোগিতা কামনা করেন। এদিকে শাহপরান থানা পুলিশ জানিয়েছে, জিডির পর এ বিষয়টি তদন্ত শুরু হয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট