Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

গাড়িতে জিপের ধাক্কা শনাক্ত

নূরুজ্জামান: ইলিয়াসের প্রাইভেট কারে জিপের ধাক্কা শনাক্ত হয়েছে। পাজেরো কিংবা ডুয়াল পারপাস জিপের ধাক্কাতেই চলন্ত প্রাইভেট কারের পেছনের বাম্পার বেঁকে গেছে। গতকাল বনানী থানা পুলিশ ও বিআরটিএ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। বনানী থানার তদন্ত কর্মকর্তা কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, গতকাল আদালতে পেশ করা তদন্তকাজের চতুর্থ প্রতিবেদনে বিআরটিএ-র প্রতিবেদনের এ তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। এতে ইলিয়াসের গাড়িতে অন্য আরেকটি গাড়ির ধাক্কা শনাক্ত হয়েছে। তবে এখনও খোঁজ মেলেনি বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী ও তার গাড়িচালক আনসারের। নিখোঁজ হওয়ার ১৩ দিনের মাথায় রহস্য আরও ঘনীভূত হয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে ছড়িয়েছে গুজবের ডালপালা। তদন্তকারী তিনটি সংস্থার কর্মকর্তারা বলছেন, তদন্তে কোন অগ্রগতি নেই। ইলিয়াসকে কারা নিয়ে গেছে, কেন নিয়ে গেছে, কি ঘটেছে তাদের ভাগ্যে- এসব প্রশ্নের কোন উত্তর জানাতে পারেননি তারা। বনানী থানা পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব ও ডিবি পুলিশ নিখোঁজ ইলিয়াস ও তার চালককে জীবিত উদ্ধারে নানা তৎপরতার কথা বললেও বাস্তবে মিল নেই। সূত্র জানায়, বনানী থানার তদন্ত কর্মকর্তা ৪৮ ঘণ্টা পরপর আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করছেন। কিন্তু সেখানে তদন্তের অগ্রগতি বিষয়ক কোন তথ্য নেই।  এ প্রসঙ্গে বনানী থানার তদন্ত কমকর্তা কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি স্পর্শকাতর। খুবই সতর্কতার সঙ্গে তদন্ত করতে হচ্ছে। এতদিন নিখোঁজ পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। এখন ঘটনাস্থলের আশপাশের লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। এসব তথ্যই নিয়মিতভাবে আদালতে পেশ করছি।  কিন্তু এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধারে কোন সূত্র পাওয়া যায়নি। তদন্ত সূত্র জানায়, আদালতে দাখিল করা সবশেষ প্রতিবেদনে আরও ১৫-২০ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য দেয়া হয়েছে। ওই রাতের ঘটনা সম্পর্কে তারা কোন তথ্য জানে কিনা, কোন ধরনের শব্দ শুনেছিল কিনা- সে বিষয়ে তাদের রেকর্ড করা জবাববন্দি মহানগর মুখ্য হাকিমের কাছে পেশ করা হয়েছে। তদন্তের প্রতিবেদনে প্রত্যক্ষদর্শী ডাব বিক্রেতা সোহেল রানার মাথায় গণ্ডগোল আছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত কর্মকর্তা কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, ইলিয়াসের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা সম্পর্কে সোহেল রানা গণমাধ্যমে যে ধরনের বক্তব্য দিয়েছিল তা সঠিক ছিল না। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে একেক সময়ে একেক ধরনের কথা বলেছে। নানা ধরনের গুজব শুনে নিজের কল্পনা থেকে বিষয়টি ব্যাখ্যা করেছে। আসলে সে কিছুই দেখেনি। তার মাথায় সমস্যা আছে। তদন্ত কর্মকর্তা আরও বলেন, মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের তদন্ত টিমের সঙ্গে সার্বক্ষণিকভাবে সমন্বয় করে ইলিয়াস নিখোঁজ রহস্যে উদঘাটনে তদন্ত করা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে র‌্যাবের তদন্ত টিম তাদের নিজস্ব পদ্ধতিতে তদন্ত করছে। এর সঙ্গে ডিবি কিংবা থানা পুলিশের সমন্বয় নেই। র‌্যাবের তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, ইলিয়াস নিখোঁজের অভিযোগ পাওয়ার পরপরই র‌্যাবের একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে। বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে রাজধানী ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন জেলা শহরে অভিযান চাালিয়েছে। এর পাশাপাশি কয়েকটি গোয়েন্দা টিম নিখোঁজ রহস্য উদঘাটনে মাঠ পর্যায়ে তথ্য সংগ্রহ করছে। ইলিয়াসের মোবাইল ফোনের কললিস্টের সূত্র ধরে গতকাল পর্যন্ত দেড় শতাধিক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তবে কেউই নিখোঁজ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেনি। ওদিকে ভাটা পড়েছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তেও। তদন্তের শুরুতে হোটেল রূপসী বাংলার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ, ইলিয়াসের ঘনিষ্ঠজনদের জিজ্ঞাসাবাদ ও তার মোবাইল ফোনের কললিস্ট পরীক্ষা করলেও বর্তমানে তদন্ত কাজ এগোচ্ছে না। সূত্র মতে, ডিবি পুলিশের সংশ্লিষ্ট টিম ইলিয়াস উদ্ধার তৎপরতা বাদ দিয়ে অন্যান্য মামলার তদন্ত কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করছেন। গতকাল ভোরে ওই টিম ২৫০০ বোতল ফেনসিডিলসহ চার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের এডিসি মশিউর রহমান বলেন, মাদকের অভিযানে খুব বেশি সময় দিতে হয়নি। এ অভিযানের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের কারণে ইলিয়াস নিখোঁজ ঘটনার তদন্তে কোন ব্যাঘাত হয়নি। তদন্তের অগ্রগতি বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, নো আপডেট।
ওদিকে বনানী থানা পুলিশ ও বিআরটিএ সূত্র জানিয়েছে, ইলিয়াসের প্রাইভেটকারে শক্তিশালী ও দামি গাড়ির আঘাত শনাক্ত করা হয়েছে। গতকাল বনানী থানা পুলিশের কাছে এ বিষয়ক একটি প্রতিবেদন দিয়েছে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ)। বিআরটিএ সূত্র জানিয়েছে, বনানী থানার তদন্ত কর্মকর্তার আবেদনের প্রেক্ষিতে বিআরটিএ-এর দু’জন মোটরযান পরিদর্শক আলী আহসান মিলন ও আতিয়ার রহমান থানায় জব্দকৃত ইলিয়াসের প্রাইভেটকারটি পরীক্ষা করেন। পরের দিন পরীক্ষার প্রতিবেদন বনানী থানা পুলিশের কাছে পাঠিয়ে দেন। ওই প্রতিবেদনে তারা উল্লেখ করেছেন, ইলিয়াসের প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো-গ-২৯৪৪১৫) এর পেছনের বাম্পার ‘আঘাত প্রাপ্ত’। শক্তিশালী কোন গাড়ির সামনে থাকা ধাতব দণ্ডের আঘাতেই ইলিয়াসের প্রাইভেটকারের পেছনের বাম্পার বেঁকে গেছে। বিআরটিএ-এর ঢাকা সার্কেল (উত্তর)-এর মোটরযান পরিদর্শক আলী আহসান মিলন বলেন, থানায় জব্দ করা গাড়িটির আঘাত দেখে মনে হয়েছে দামি পাজেরো জিপ, ডুয়েল পারপাস পিকআপ কিংবা শক্তিশালী পিকআপ ভ্যান দিয়ে ধাক্কা মারা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ তিন ধরনের গাড়ির সামনের অংশেই কেবল শক্তিশালী দু’টো ধাতবদণ্ডের পাত দাঁড়ানো থাকে।

 

‘মানসিক শক্তি আর ধরে রাখতে পারছি না’

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট