Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীর বিরোধিতা সত্ত্বেও কৃষিতে ভর্তুকি অব্যাহত থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা, ২৯ এপ্রিল: আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীর বিরোধিতা সত্ত্বেও কৃষিতে ভর্তুকি অব্যাহত থাকবে বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

রোববার বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। কৃষিজাত পণ্য এবং প্রক্রিয়াজাত খাদ্য রফতানির ওপরও গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী।

 

ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী কৃষিক্ষেত্রে অবদানের জন্য মনোনীত ২৮ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার তুলে দেন। কৃষি উন্নয়নে অবদানের জন্য এটাই রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “দাতাদের কথা শুনে বিএডিসি’কে অনেক দুর্বল করে ফেলা হয়েছিল। এর আগের মেয়াদে ক্ষমতায় থাকতে দাতারা কৃষিতে ভর্তুকি কমাতে বলেছিল। আমরা বলেছিলাম, আমরা ভর্তুকি দেবই।” বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনকে (বিএডিসি) আরো শক্তিশালী করতে সরকারি নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

 

শেখ হাসিনা খাদ্য উৎপাদন বাড়ানোর তাগিদ দিয়ে বলেন, “কৃষি উৎপাদন বাড়িয়ে নিজেদের চাহিদা পূরণ করে তা যেন আমরা বিদেশে রফতানি করতে পারি। প্রক্রিয়াজাত খাদ্যও যেন আমরা রফতানি করতে পারি। বাংলাদেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং সবার জন্য পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করাই সরকারের লক্ষ্য।”

কৃষকদের উৎসাহিত করতে ও উন্নয়নে ১৯৭৩ সালে তহবিল গঠন করে জাতীয় পর্যায়ে কৃষি উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রপতির পুরস্কার চালু করেন বলেও তিনি বক্তব্যে উল্লেখ করেন। তিনি পুরস্কারপ্রাপ্তদের ধন্যবাদ জানান।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমরা খাদ্য নিরপাত্তা নিশ্চিত করব। আমাদের লক্ষ্য ২০১৩ সালের মধ্যে খাদ্যশস্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করা। আমাদের সরকার কৃষিবান্ধব সরকার।”

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। এতে বক্তব্য দেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস এবং পরিবেশ ও বনমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

যারা পুরস্কার পেলেন
কৃষিতে মহিলাদের অবদানের জন্য নরসিংদীর রায়পুরার সাদিকুন নাহার শিউলী; মানসম্পন্ন বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ, বিতরণ ও সেচের আওতা বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি); নতুন ফল, সবজি ও প্রযুক্তি উদ্ভাবনের জন্য বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র; কৃষি সম্প্রসারণে অবদানের জন্য সুনামগঞ্জের এস এম আফসারুজ্জামান স্বর্ণ পদক পেয়েছেন।

তারা ২৫ গ্রাম ওজনের একটি সোনার পদক, ২৫ হাজার টাকা এবং একটি সম্মাননাপত্র পেয়েছেন।

কৃষি উন্নয়নে জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও উদ্বুদ্ধকরণ, প্রকাশনা ও প্রচারণামূলক কাজের জন্য বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমির কৃষি বিজ্ঞান বিভাগের পরিচালক এ কে এম জাকারিয়া; কৃষি গবেষণায় অবদানের জন্য গাজীপুরের ডাল ও তৈলবীজ গবেষণা কেন্দ্রের সাবেক মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা দোলেয়ার হোসেন (মরণোত্তর); কৃষিতে মহিলাদের অবদানের জন্য রংপুরের আনিসা বেগম; প্রকাশনা ও প্রচারের জন্য শরীয়তপুরের উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম; কৃষি সম্প্রসারণে অবদানের জন্য রংপুরের পীরগঞ্জের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. জয়নাল আবেদিন এবং কুমিল্লার বুড়িচংয়ের উপ-সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মো. মামুনুর রশীদ; ফল চাষে সফলতার জন্য গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার মো. সুজাউদ্দৌলা রৌপ্য পদক পেয়েছেন।

তাদের সবাই ২৫ গ্রাম ওজনের একটি রুপার পদক, ১৫ হাজার টাকা এবং একটি সম্মাননাপত্র পেয়েছেন।

গুণগত মানের মাছের পোনা উৎপাদনে জন্য ময়মনসিংহের এ কে এম নুরুল হক, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বনায়নের জন্য চাঁদপুরের নেছার আহম্মদ ও হবিগঞ্জ গ্যাস ফিল্ডের ব্যবস্থাপক এ বি এম নাছিমুজ্জামান; কৃষি সম্প্রসারণে অবদানের জন্য গাইবান্ধার মো. শওকত আলী; জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা মো. মোয়াজ্জেম হোসেন, নওগাঁর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আক্কাস আলী এবং রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. সাইফুল আলম; সমন্বিত খামার ব্যবস্থার জন্য নোয়াখালীর মো. সাহেদুর রহমান; কৃষিতে নারীদের অবদানের জন্য ঢাকার মোসাম্মৎ আনোয়ারা ও পাবনার নুরুন্নাহার বেগম, সমন্বিত কৃষিভিত্তিক খামার স্থাপনের জন্য মৌলভীবাজারের আশীষ কুমার পাল; কৃষিতে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য লক্ষ্মীপুরের নিজাম উদ্দিন ফারুকী; বাণিজ্যিকভিত্তিক মাছ চাষের জন্য পাবনার মো. হাবিবুর রহমান; ছাগল পালনের জন রাজশাহীর মো. মিজানুর রহমান; কৃষি গবেষণার অবদানের জন্য সিলেটের দক্ষিণ সুরমার মো. আবুল মিয়া; কৃষিতে প্রযুক্তি হস্তান্তরে সাফল্যের জন্য সাতক্ষীরার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা রঘুজিত কমার গুহ; সমাজ উন্নয়ন ও বনায়নের জন্য যশোরের মোকাররম হোসেন ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন।

তারা সবাই ২৫ গ্রাম ওজনের একটি ব্রোঞ্জের পদক, সাড়ে সাত হাজার টাকা এবং একটি সম্মাননাপত্র পেয়েছেন।

 

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট