Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

নিরুত্তাপ ফাইনাল

ইমরুল কায়েস, জুনায়েদ সিদ্দিকী, আবদুর রাজ্জাক, জহুরুল ইসলামের মতো জাতীয় দলের তারকারা খেলছেন মাঠে। অথচ দর্শক গুনলে ৩০ থেকে ৪০ জন। আর গুটিকয়েক সাংবাদিক। অবাক হওয়ারই কথা। অথচ এই তারকাদের দেখার জন্যই লাইন দিয়ে টিকিট কেটে অপেক্ষা করে দর্শকরা। এমনকি ৪০০ টাকার টিকিট ৪০০০ হাজার টাকায়ও কিনতে দ্বিধা করে না। কিন্তু জাতীয় লীগের ফাইনালে এই তারকারাও সৃষ্টি করতে পারেননি আবেদন আর উত্তেজনা। মাঠের খেলায়ও তা দেখা গেল না। দুই দলের ব্যাটসম্যান আর বোলারদের আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণও ছিল যেন নিস্তেজ। তবে শেষ বিকালে জুনায়েদ ও ফরহাদের অপরাজিত ফিফটি খুলনার হতাশাই বাড়িয়েছে শুধু। ম্যাচে উত্তেজনা বলতে ছিল জুনায়েদের ফিফটিই। আগের দিন বৃষ্টি হলেও মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ফাইনাল শুরু হয় ঠিক ৯টা ৩০ মিনিটেই। খুলনার ব্যাটিং হতাশা দিয়ে শুরু হয়। আর ম্যাচ শেষও হয় খুলনার বোলারদের হতাশা দিয়ে। উত্তেজনা আর আমেজহীন ফাইনালে খুলনার প্রথম ইনিংসে সংগ্রহ ছিল ৫৩.৩ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২১২ রান। দিন শেষে রাজশাহীর সংগ্রহ ৩৬ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১৩৫ রান।
মাত্র ২১২ রানে খুলনার ব্যাটিং গর্বকে খর্ব করে অলআউট করার কৃতিত্ব রাজশাহীর বোলার আর ফিল্ডারদের না যত, তার চেয়ে  বেশি  কৃতিত্ব হয়তো পাবেন খুলনার অধিনায়ক তুষার ইমরানই। কারণ আগের দিনের রাতের বৃষ্টি আর উইকেটে কিছু ঘাস থাকার পরও ব্যাটিংয়ের এই সিদ্ধান্ত। আর তা বুমেরাং করে ফিরিয়ে দিয়েছে রাজশাহীর দুই বোলার ফরহাদ হোসেন ও সাকলাইল সজীব। তারা দুইজনই নিয়েছেন তিনটি করে উইকেট। সঙ্গে অধিনায়ক ফরহাদ  রেজা ২ উইকেট নিয়ে খুলনার সর্বনাশটা ভালভাবেই সারেন। ৩৪ রানে ৩ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর দলের হাল ধরেন অধিনায়ক তুষার ইমরান ও তরুণ মিথুন আলী। অধিনায়ক ৮৭ বল খেলে করেন ৫০ রান। তার সঙ্গে তরুণ উইকেট রক্ষক মিথুন জুটি গড়েন ৬৩ রানের। মিথুনের লড়াই থামে ৮৩ রানে। ১০৭ বলে ৭ চার ১ ছক্কায় এ রান করেন তিনি। এখান থেকে আর উঠে দাঁড়াতে পারেনি খুলনা। আগের ম্যাচে শতরান করা ইমরুল ৩ আর আনামুল করেন ১৭ রান। জবাব দিতে নেমে খুলনার ব্যাটসম্যানদের হতাশার পর বোলারদেরও হতাশায় ডুবায় রাজশাহীর ব্যাটসম্যানরা। প্রথম ৫ রানে ২ উইকেট হারানোর ধাক্কা সামলে জুনায়েদ সিদ্দিকী ও ফরহাদ হোসেন শেষ বিকালে দলকে উপহার দেন দুটি অপরাজিত ফিফটি। জুনায়েদ করেন ১০৪ বলে অপরাজিত ৭১ রান ও ফরহাদ হোসেন করেন ১০৬ বলে ৫৬ রান।
খুলনা বনাম রাজশাহী বিভাগ
টস: খুলনা, ব্যাটিং
খুলনা ১ম ইনিংস: ২১২ (মিথুন ৮৩, তুষার ৫০, জিয়াউর ১৯, ফরহাদ হোসেন ৩/১৪, ফরহাদ রেজা ২/৩৩, সাকলাইন ৩/৪৮)
রাজশাহী: ১৩৫/২  (জুনায়েদ ৭১*, ফরহাদ হোসেন ৫৬*, ডলার মাহমুদ ১/১৫, আল আমিন হোসেন ১/৪২)।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট