Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বনানী থানায় আওয়ামী লীগ কর্মীদের তোপের মুখে বিএনপি’র দুই এমপি

ইলিয়াস আলী নিখোঁজের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা যুবদলের তিন নেতাকে নিয়ে বনানী থানায় গেলে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের তোপের মুখে পড়েন বিএনপিদলীয় দুই এমপি। অবস্থা বেগতিক দেখে ওই দুই এমপি ওসি’র কক্ষে আশ্রয় নেন। এ সময় উত্তেজিত আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের থামাতে গেলে তারা ওসিকেও গালাগাল করেন। পরে পুলিশ প্রহরায় এমপিরা থানা ত্যাগ করেন। গত রাত ১১টায় এ ঘটনা ঘটে। বিএনপিদলীয় এমপি আবুল খায়ের ভুঁইয়া ও শহিদউদ্দীন চৌধুরী এ্যানী যুবদলের তিন কেন্দ্রীয় নেতা মীর নেওয়াজ আলী, মোমেন মুন্না ও আমজাদ হোসেনকে নিয়ে থানায় গেলে এ ঘটনা ঘটে। গতকাল ইলিয়াস আলীর নিখোঁজ হওয়ার দিন তার সঙ্গে থাকা এই ৩ যুবদল নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় যেতে বলা হয়। দলীয় নির্দেশেই তাদের নিয়ে দুই এমপি থানায় যান। থানায় তাদের উপস্থিতির খবর পেয়ে সেখানে লাঠিসোটা নিয়ে অবস্থান নেন আওয়ামী লীগের ২০/২৫ নেতাকর্মী। তারা এই দুই এমপিকে উদ্দেশ্য করে গালিগালাজ করেন। এ ব্যাপারে শহিদউদ্দীন চৌধুরী এ্যানী বলেন, অবস্থা এমন এক পর্যায়ে গিয়েছিল যে, আমরা ওসি’র কক্ষে আশ্রয় নিই। তখন তারা আমাদের গাড়ি ভাঙচুরের চেষ্টা চালায়। তিনি বলেন, একটি কক্ষে যুবদলের ওই তিন নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছিল পুলিশ। আমরা ইলিয়াস আলীর বিষয়ে খোঁজখবর ও করণীয় সম্পর্কে ওসি’র সঙ্গে আলোচনা করছিলাম। হঠাৎ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আমাদের ঘেরাও করে। তারা অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজ করে। থানা থেকে বেরুলে আক্রমণ করা হবে বলেও হুমকি দেয়। আবুল খায়ের ভুঁইয়া বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নির্দেশে আমরা থানায় গিয়েছিলাম। আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা এ সময় আমাদের ওপর চড়াও হয়। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে গুলশান বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার লুৎফুল কবির বলেন, ঘটনা সেরকম নয়। ইলিয়াস আলীর সঙ্গে ঘটনার দিন যে ৩ জন যুবদল নেতা ছিলেন তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়েছিল। এ সময় দুজন এমপিও থানায় যান। তারা পুলিশের সঙ্গে কথা বলে বেরিয়ে গেছেন। তবে একজন পিকেটারকে নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে তাদের তর্কবিতর্ক হয়েছে বলে শুনেছি। সেটা তেমন বড় কিছু নয়। বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুনুর রশীদ বলেন, কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তারা তাদের নিখোঁজ নেতা ইলিয়াস আলীর বিষয়ে অগ্রগতি জানতে চেয়েছেন। আমরা বলেছি, আমাদের চেষ্টার কোন ত্রুটি নেই। আমরা সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছি। যোগাযোগ করা হলে বনানী থানার ওসি তদন্ত মাইনুল ইসলাম বলেন, যুবদলের ৩ নেতা নিখোঁজ হওয়ার দিন ইলিয়াস আলীর সঙ্গে ছিলেন। এ বিষয়ে তাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, কেন তারা সেদিন ইলিয়াস আলীর সঙ্গে রূপসী বাংলা হোটেলে গিয়েছিলেন। সেখানে কি কথাবার্তা হয়েছিল। পরে তারা কোথায় গিয়েছিলেন ইত্যাদি বিষয়ে তাদের প্রশ্ন করা হয়েছে। তারা সব প্রশ্নের উত্তরা দিয়েছেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট