Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সর্বাত্মক প্রস্তুতি ১৮ দলের সারা দেশে হরতাল আজ

স্টাফ রিপোর্টার: নিখোঁজ সাংগঠনিক সম্পাদক এম. ইলিয়াস আলীকে ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে সারা দেশে হরতাল আজ। সর্বাত্মক হরতালের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি’র নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। জোটের বাইরের দুই দল বিকল্পধারা বাংলাদেশ এবং কৃষক শ্রমিক জনতা লীগও হরতালে সমর্থন দিয়েছে। জোটের নেতারা নিশ্চিত করেছেন, এবারের হরতালে বিএনপিসহ ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা সক্রিয়ভাবে রাজপথে নামবেন। আজকের হরতাল হবে আগের চেয়ে ভিন্ন। এবার নয়াপল্টন কেন্দ্রিক নয়, রাজধানী জুড়ে থাকবেন সিনিয়র নেতারা। শরিক দলের নেতারাও বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে পিকেটিং করবেন। দলীয় সূত্র জানান, রাজধানীর অন্তত ২০টি পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে কড়া হরতালের নজির সৃষ্টি করবে বিএনপি। প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে বের করা হবে বিক্ষোভ মিছিল। এদিকে হরতালের সমর্থনে গতকাল রাজধানীর ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মিছিল করেছে মহানগর বিএনপি। একই দাবিতে অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়েছে বৃহত্তর সিলেটে। দেশের প্রতিটি উপজেলায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করেছে স্থানীয় বিএনপি। মহাজোট সরকারের তিন বছরে বিএনপি’র ডাকা দশম এবং  বিএনপি’র নেতৃত্বাধীন নবগঠিত ১৮ দলীয় জোটের প্রথম হরতাল এটি  গত বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে হরতালের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এদিকে সন্ধ্যানাগাদ ইলিয়াস আলী ফিরে আসবেন বলে একটি গুজব ছড়িয়েছে কাল সারাদিন। তবে এধরনের গুজবে কান না দিয়ে সর্বাত্মক হরতাল প্রস্তুতির আহ্বান জানিয়েছেন দলের কেন্দ্রীয় নেতারা। ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ইলিয়াস আলীর ফিরে আসার ব্যাপারে অপপ্রচার চালিয়ে লাভ হবে না। তাকে ফিরে না পেলে আজকের পর প্রয়োজনে আমরা লাগাতার হরতাল দেবো। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, এমন কোন লক্ষণ আমরা পাইনি। এসব গুজব আমাদের হরতালের প্রস্তুতিতে কোন প্রভাব ফেলবে না। নেতাকর্মীরা ইলিয়াস আলীকে ফিরে পেতে উন্মুখ, সরকারের উপর বিক্ষুব্ধ। সারাদেশে আমাদের নেতাকর্মীরা হরতাল পালনের জোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। সরকার যতই দমন-পীড়ন চালাক আমরা হরতাল কার্যকর করবো। উল্লেখ্য, গত ১৭ই এপ্রিল মধ্যরাতে বনানীর নিজ বাড়ির ২০০ মিটার দূরে সাউথ পয়েন্ট স্কুলের সামনে থেকে গাড়িচালকসহ নিখোঁজ হয়েছেন ইলিয়াস আলী। এ পর্যন্ত তার কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। বিএনপিসহ তার পরিবারের অভিযোগ সরকারের কোন সংস্থাই তাকে তুলে নিয়ে গুম করেছে। তবে এখন পর্যন্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ কোন সংস্থাই তা স্বীকার করেনি। তবে পরদিন রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার বাসায় ছুটে গেলেও তাকে উদ্ধারে সরকারের পক্ষ থেকে জোরালো কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তবে ইতিমধ্যে ইলিয়াস আলীকে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার দাবিতে বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে বিএনপি। সেখানে নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। এর আগে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকও করেন। এছাড়া, ২৫শে এপ্রিল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ছাত্রগণজমায়েত কর্মসূচি ঘোষণা করেছে নব্বইয়ের দশকে ইলিয়াস আলীর ছাত্ররাজনীতির সহকর্মীরা। এদিকে ইলিয়াস আলীর ঘটনায় পরস্পরের প্রতি দোষারোপ করছেন সরকার ও বিরোধী দল। নিখোঁজের পরদিন বিকালে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে ১৮ দলীয় জোটের ঘোষণা অনুষ্ঠানে বিরোধী নেতা খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা ও র‌্যাবের লোকেরা ইলিয়াস আলীকে ধরে নিয়ে গেছে। তিনি সরাসরি বলেন, ইলিয়াসকে ধরে নিয়ে যাওয়ার সময় অনেকেই দেখেছে। অবিলম্বে তাকে ফিরিয়ে না দিলে এক দফার আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে। তবে একই দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি অনুষ্ঠানে বলেন, বিএনপি নেত্রীর নির্দেশে হয়তো কোথাও লুকিয়ে আছেন ইলিয়াস। এমন পরিস্থিতিতে বাড়ছে রাজনৈতিক অস্থিরতা। নানামুখী আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে।
হরতালে অপ্রত্যাশিত ঘটনায় সরকারই দায়ী হবে: মোশাররফ
এদিকে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল করতে চাই। এতে বাধা দিলে অপ্রত্যাশিত কোন ঘটতে পারে এবং তার জন্য সরকারই দায়ী থাকবে। জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দল আয়োজিত ‘বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড আইনের শাসনের জন্য হুমকি’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। মোশাররফ বলেন, গত তিন বছরে ৪০৪ জন ক্রসফায়ার, ৭১ জন গুম এবং ১১৮০ জনকে অপহরণ করা হয়েছে। এছাড়া ৯৫০০ জনের বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা মামলা’ দিয়েছে সরকার। হঠাৎ করে ক্রসফায়ার কমে গুম-হত্যা বেড়ে গেছে। গুমের তালিকা আস্তে আস্তে বাড়ছে। ইলিয়াস আলীকে গুমের ঘটনা তারই প্রমাণ। সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ও ইলিয়াস আলীর ড্রাইভারেরও কোন খোঁজ নেই। নাগরিক হিসেবে তাদেরও নিরাপত্তা দিতে সরকার বাধ্য। সংগঠনের সভাপতি মেজর (অব.) এমএ মেহবুব রহমানের সভাপতিত্বে সভায় যুবদলের সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি নেতা খায়রুল কবির খোকন, সংগঠনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট জেডআই মোস্তফা আলী মুকুল এমপি প্রমুখ বক্তব্য দেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট